ডায়াবেটিস নিয়ে উদ্বেগ, প্রয়োজন সচেতনতা

ডায়াবেটিস নিয়ে উদ্বেগ, প্রয়োজন সচেতনতা

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

আজ ১৪ নভেম্বর। বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস। জনসাধারণের মধ্যে এ রোগ সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে বিশ্বব্যাপী একসঙ্গে পালিত হচ্ছে দিবসটি। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ‘ডায়াবেটিক সেবায় সবার অন্তর্ভুক্তিকরণ, যদি এবার না হয়, তবে কখন’। বিশ্বের প্রায় ৪২২ মিলিয়ন মানুষ এ ব্যাধিতে আক্রান্ত। রোগটির বিস্তার আমাদের ঘরে ঘরে। সবার মধ্যে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা। দীর্ঘস্থায়ী এ রোগ থেকে দূরে থাকতে প্রয়োজন সচেতনতা। নিয়ন্ত্রণে রাখতে না পারলে দেখা দিয়ে থাকে জটিলতা। ডায়াবেটিস রোগের কার্যকরী ওষুধ হলো ইনসুলিন। একশত বছর আগে এত মোক্ষম ও মূল্যবান জীবন রক্ষাকারী ওষুধ আবিষ্কার হলেও এখনো বিশ্বের কোটি কোটি ডায়াবেটিস আক্রান্ত মানুষ এই জরুরি চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত।

জটিলতা : মানবদেহের এক গুরুত্বপূর্ণ হরমোন বা প্রাণরস হলো ইনসুলিন। এর ফ্যাক্টরি অগ্ন্যাশয়ে। আমাদের উপরের পেটে পেছনে পাতার মতো একটি অঙ্গ হলো অগ্ন্যাশয়। এটি প্রতিনিয়ত তৈরি করছে ইনসুলিন। ডায়াবেটিসের মূল সমস্যা হলো ইনসুলিনের ঘাটতি বা অকার্যকারিতা। শরীরের কোষে গ্লুকোজ প্রবেশের বাহক হলো ইনসুলিন। এর অভাব ঘটলে বা এটি অকার্যকর হলে গ্লুকোজ কোষে প্রবেশ করতে পারে না। তখন দেখা দেয় বিপত্তি। রক্তে হুঁ হুঁ করে বাড়তে থাকে চিনির মাত্রা। শরীর তখন নেতিয়ে পড়ে। মূত্র নিঃসরণ বেড়ে যায়। ক্ষুদ-পিপাসা বাড়লেও ওজন কমতে থাকে। চোখের জ্যোতি কমতে শুরু করে। রোগী চিরদিনের মতো অন্ধ হয়ে যায়। ক্ষেত্রবিশেষে কিডনি বিকল হয়। স্নায়ুতন্ত্র আক্রান্ত হয়। পায়ে দেখা দেয় ক্ষত বা আলসার। কখনো পচন রোগ। তখন পা কেটে ফেলতে হয়। রক্তনালিতে জমতে থাকে চর্বির আস্তরণ। হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের ঝুঁকি চারগুণ বাড়ে। ডায়াবেটিস এভাবে শরীরের সব তন্ত্রে জটিলতার দ্বার উন্মোচন করে দেয়।

ইনসুলিনে আশাবাদ : ইনসুলিন আবিষ্কারের আগে টাইপ-১ ডায়াবেটিসে মৃত্যু ছিল অবধারিত। এ ডায়াবেটিসে অগ্ন্যাশয়ের ইনসুলিন উৎপাদনের কোষ ধ্বংস হয়ে যায়। ফলে ইনসুলিনের অভাবে শরীরের চর্বি ভেঙে কিটো-অ্যাসিড তৈরি হয়। রক্তে এ অ্যাসিড বেড়ে গেলে রোগী অজ্ঞান হয়ে মৃত্যুবরণ করে। ইনসুলিন এসব রোগীর জন্য জীবনবর্তিকা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছিল। বিশ্বের ডায়াবেটিস রোগীর ৫ থেকে ১০ শতাংশ টাইপ-১ ডায়াবেটিসে ভুগছেন। বাকি প্রায় সবাই টাইপ-২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত।

 

রোগীর করণীয় : যাপিতজীবনে পরিবর্তন আনতে হবে। খাদ্যাভ্যাস বদলাতে হবে। চিনি কিংবা চিনিজাতীয় খাবার ত্যাগ করতে হবে। ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। মেদ-ভুঁড়ি বিদায় করতে হবে। নিয়মিত শরীরচর্চা বা হাঁটার অভ্যাস করতে হবে। নিজেকে রাখতে হবে সচল ও কর্মময়। অতিরিক্ত স্ট্রেসমুক্ত রাখতে হবে শরীর ও মন। ঘুমাতে হবে দৈনিক ৭ ঘণ্টা। ধূমপান, মদ্যপানের বদ অভ্যাস থেকে মুক্ত রাখতে হবে নিজেকে। নিয়মিত ওষুধ সেবন করে রক্তের চিনির মাত্রা কাক্সিক্ষত সীমার মধ্যে রাখতে হবে। নিয়মিত পরখ করে দেখতে হবে কোনো জটিলতা তৈরি হচ্ছে কিনা। ডায়েট (খাদ্যাভ্যাস), ডিসিপ্লিন (শৃঙ্খলা) এবং ড্রাগ (ওষুধ) এই তিন ‘ডি’ দিয়ে মোকাবিলা করতে হবে বড় ‘ডি’ তথা ডায়াবেটিসকে।

লেখক : ক্লাসিফাইড মেডিসিন

স্পেশালিস্ট ও এন্ডোক্রাইনোলজিস্ট

সহযোগী অধ্যাপক, সিএমএইচ, ঢাকা

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com