সংবাদ শিরোনাম :
হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন হবিগঞ্জ শহরে মুন হাসপাতাল এবং চিকিৎসককে জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে ধনীর মেয়েকে বিয়ে করার দায়ে গরিবের ছেলেকে গাছে বেধে নির্যাতন পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি মাফিয়া ওলিউর দু’পুত্র ও সহোদর সহ পর্তুগাল পুলিশের খাঁচায় বন্দী হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার ইসলামে দান-সদকার সওয়াব অপরিসীম ৬ ঘণ্টা নয়, ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন করোনায় আক্রান্ত হয়ে আইসোলেশনে মিরাজ জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিতে শুক্রবার ঢাকা ছাড়ছেন প্রধানমন্ত্রী বিমানবন্দরে আরটিপিসিআর ল্যাব বসানোর অনুমোদন ৭ প্রতিষ্ঠানকে
খালেদার দুর্নীতি মামলায় যুক্তিতর্ক নিয়ে আদালতে উত্তেজনা

খালেদার দুর্নীতি মামলায় যুক্তিতর্ক নিয়ে আদালতে উত্তেজনা

লোকালয় খবর: বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় যুক্তি উপস্থাপনের দ্বিতীয় দিন বুধবার পুরান ঢাকার বকশিবাজারে বিশেষ জজ আদালতে আইনজীবীদের মধ্যে তর্কাতর্কিতে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে আদালতে। এক পর্যায়ে বিচারক আখতারুজ্জামান তার চেয়ার ছেড়ে উঠে যান।

পুরান ঢাকার বকশিবাজারে বিশেষ জজ আদালতে-৫ এ এই ঘটনা ঘটে।

উক্ত আদালতে বিএনপি চেয়ারপারসনের বিরুদ্ধে দুটি মামলা চলছে। এর মধ্যে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি রায় ঘোষণার তারিখ রয়েছে। আর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় যুক্তি উপস্থাপন শুরু হয় মঙ্গলবার।

প্রথম দিন রাষ্ট্রপক্ষ যুক্তি উপস্থাপন করে এবং পাবলিক প্রসিকিউটর মোশাররফ হোসেন কাজল খালেদা জিয়ার সাত বছরের কারাদণ্ড দাবি করেন।

দ্বিতীয় দিন বেলা সোয়া ১১টার দিকে আদালতের কার্যক্রম শুরু হলে আসামি জিয়াউল হক মুন্নার পক্ষে যুক্তি উপস্থাপন শুরু করেন তার আইনজীবী আমিনুল ইসলাম।

খালেদা জিয়া বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আদালতে প্রবেশ করেন। এরপর তার উপস্থিতিতেই দুই পক্ষের আইনজীবীরা বাদানুবাদে জড়ায়।

আইনজীবী আমিনুল হক মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিলেট সফরে জনসভা করা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনা সিলেটে গিয়ে যে ভোট চেয়েছেন, সেটা তার ব্যক্তিগত কাজ নাকি সরকারি কাজ।

এ সময় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল উঠে দাঁড়িয়ে বলেন, ‘আপনি আদালতে এসব কথা বলতে পারে না। আপনি মামলার রেকর্ড অনুযায়ী কথা বলেন।

পেছন থেকে খালেদার আইনজীবীরা এ সময় চিৎকার বলে উঠেন। কাজলকে উদ্দেশ্য করে তারা বলতে থাকেন, ‘আপনি চুপ করেন। আপনি আদালতের অনুমতি নিয়ে কথা বলেন। এটা রেফারেন্স।’

পরে কাজল বলেন, ‘না না, প্রধানমন্ত্রীর বিষয়ে আপনি এভাবে বিষয়বস্তুর বাইরে কথা বলবেন না, এভাবে বলতে দেয়া হবে না।’

এরপর দুই পক্ষে হট্টগোল চলতে থাকে। আর বেলা ১২টার কিছু আগে বিচার আখতারুজ্জামান তার চেয়ার ছেড়ে উঠে দাঁড়িয়ে ভেতরের কক্ষে চলে যান।

এরপর শান্ত হয়ে বসে পড়ে দুই পক্ষই। আর মিনিট ১৫ পর বিচারক আবার এজলাসে আসলে শুরু হয় যুক্তিতর্ক।

২০১০ সালের ৮ আগস্ট তেজগাঁও থানায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের করা জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় আসামি আছেন আরও তিন জন। এরা হলেন, খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে তার রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী, হারিছ চৌধুরীর তৎকালীন একান্ত সচিব জিয়াউল ইসলাম মুন্না এবং ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান।

এই মামলায় ট্রাস্টের নামে তিন কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছে। ২০১২ সালের ১৬ জানুয়ারি খালেদা জিয়াসহ চারজনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা হারুনুর রশিদ। এরপর ২০১৩ সালের ১৯ মার্চ অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে ঢাকার বিশেষ জজ আদালতে তাদের বিচার শুরু হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com