এসএসসি পরীক্ষার্থীদের উদ্বেগে না থাকার পরামর্শ শিক্ষা সচিবের

এসএসসি পরীক্ষার্থীদের উদ্বেগে না থাকার পরামর্শ শিক্ষা সচিবের

এসএসসি পরীক্ষার্থী
এসএসসি পরীক্ষার্থী

শিক্ষাঙ্গন নিউজঃ ১২টি বিষয়ের প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ায় এবারের এসএসসির কোনো পরীক্ষা বাতিল হবে কি-না তা স্পষ্ট না করলেও এ নিয়ে পরীক্ষার্থীদের উদ্বেগে না থাকার পরামর্শ দিয়েছেন এ সংক্রান্ত কমিটির প্রধান মো. আলমগীর।

সচিবালয়ের পরিবহন পুল ভবনে রোববার বিকেলে কমিটি প্রধান কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর সাংবাদিকদের জানান, আগামীা ২/১ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন সরকারের কাছে জমা দেবেন তিনি।

প্রশ্নপত্র ফাঁস নিয়ে গণমাধ্যমে যেসব সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে সেগুলো পর্যালোচনা করেছেন জানিয়ে সচিব বলেন, ‘যে সুপারিশ করবো তা গোপনীয়। সরকার সুপারিশ পর্যালোচনা করবে, আমাদের সুপারিশ রাখতে পারে, না-ও রাখতে পারে। এরপর সরকার সিদ্ধান্ত নিলে আপনারা জানতে পারবেন।’

তিনি স্পষ্টভাষায় বলেন, তাদের কমিটির সুপারিশ নিয়ে পরীক্ষার্থীদের উদ্বিগ্ন হওয়ার কোনও কারণ নেই। শিক্ষার্থীদের উদ্বিগ্ন হওয়ার মতো কোনো সুপারিশ করবে না কমিটি। ২০ লাখেরও বেশি পরীক্ষার্থীর স্বার্থ বিবেচনা করেই প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিষয়ে সুপারিশ করবে ‘প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ যাচাই-বাছাই কমিটি’। আগামী ২/৩ দিনের দিনের মধ্যেই পূর্ণাঙ্গ সুপারিশ পেশ করা হবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীরের নেতৃত্বে গঠিত এ কমিটি তৃতীয় দিনের মত বৈঠক করেছে রোববার।

গত ১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস অব্যাহত থাকায় গত ৪ ফেব্রুয়ারি বিকেলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে জাতীয় মনিটরিং এবং আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত কমিটির জরুরি সভা শেষে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এ কমিটি গঠনের কথা জানান। গত ৬ ফেব্রুয়ারি কমিটি গঠন করা হয়। মন্ত্রণালয়ের গঠিত ওই কমিটি গত ১১ ফেব্রুয়ারি প্রথম বৈঠক করে মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে।

গত ১৮ ফেব্রুয়রি দ্বিতীয় বৈঠক শেষে কমিটির প্রধান জানান, একটি পুরো প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে। অন্য পরীক্ষার প্রশ্নপত্র আংশিক ফাঁস হয়েছে। একটি পরীক্ষা বাতিলের সুপারিশ করা হবে।

রোববার কমিটির তৃতীয় দিনের বৈঠকের পর সচিব মো. আলমগীর বলেন, ‘গণমাধ্যমে যে সংবাদ প্রচার হয়েছিল, তা পর্যালোচনা করেছি, তার সাপোর্টিংয়ে যে তথ্য-প্রমাণ দরকার তা আমরা সংগ্রহ করতে বলেছিলাম বোর্ড, বিটিআরসি ও পুলিশ বিভাগকে। তারা কিছু কিছু কাগজপত্র আমাদের দেখিয়েছে। পূর্ণাঙ্গ কাগজপত্র না পাওয়ায় আরও কিছু কাগজ পুলিশের কাছে চেয়েছি। আজকেই কমিটির শেষ মিটিং।’

প্রশ্নপত্র ফাঁসের প্রমাণ পাওয়া গেছে কি-না জানতে চাইলে সচিব বলেন, ‘সুপারিশগুলো গোপনীয়, আপনারা জানেন—সুপারিশ সব সময় গোপন থাকে। আমরা সরকারের কাছে সুপারিশ দেওয়ার পর তারা পর্যালোচনা করবে। সরকারের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত। আমরা শুধু এটুকু বলতে পারি, ২০ লাখ শিক্ষার্থীর স্বার্থের কথা চিন্তা করেই সুপারিশ করবো, সরকারও স্বার্থের কথা চিন্তা করে সিদ্ধান্ত নেবে। এই শিক্ষার্থীরা কারা, এরা তো আমাদেরই সন্তান, আমাদের দেশের সন্তান। আমরা এমন কোনও সুপারিশ করবো না যেটা তাদের জন্য ক্ষতি হবে। আর সরকারও এমন কোন সিদ্ধান্ত নেবে না যাতে তাদের জন্য কষ্ট হয়। সবারটাই দেখতে হবে।’

আগের বৈঠকের পর বলা হয়েছিল একটি পুরো প্রশ্নপত্র ফাঁসের প্রমাণ মিলেছে—এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে সচিব বলেন, ‘আমরা যেটা দেখেছি কোনও পরীক্ষায় ডিটেইলস ফাঁস হয়নি। গণমাধ্যমে যেটা এসেছে, আমরা দেখেছি কিছু কিছু অবজেকটিভ (ফাঁস) হয়েছে। এছাড়া আর হয়নি।’

পরীক্ষা বাতিলের সম্ভাবনা আছে কি-না জানতে চাইলে মো. আলমগীর বলেন, ‘এটা তো গোপন জিনিস। পরীক্ষা তো একটা না, ১২টা। অতএব ১২টির ১২ রকম সিদ্ধান্ত হতে পারে। কেমনে বলবো, বাতিল হবে বা হবে না। বাতিলের সুপারিশ করা হতে পারে, তবে কয়টার করা হবে—তা এখন বলা যাবে না। বাতিল হবে সেটাও বলবো না, হবে না, সেটাও বলবো না।’

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে সচিব বলেন, ‘তাদেরকে বলে দেই, তারা যেন কোনও উদ্বেগে না থাকে। তারা আমাদেরই সন্তান, তাদের স্বার্থের কথা চিন্তা করে, ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করেই আমরা সুপারিশ করবো। উদ্বেগের কোনও কারণ নেই, যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে তা জাতির স্বার্থে নেওয়া হবে।’

আগামী ২/১ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন পেশ করা হবে বলে জানান সচিব মো. আলমগীর।

পরীক্ষার্থী ও অভিভাবকের প্রতি আহ্বান জানিয়ে সচিব বলেন, ‘ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকদের প্রতি আহ্বান জানাব, দুশ্চিন্তার কোনও কারণ নেই। সরকার কিন্তু জনগণের সুখ-শান্তির জন্য, উদ্বেগর জন্য নয়। উদ্বিগ্ন রাখতে পারে অন্যরা।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com