একযুগ পর নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপিতে সু-বাতাস

একযুগ পর নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপিতে সু-বাতাস

একযুগ পর নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপিতে সু-বাতাস
একযুগ পর নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপিতে সু-বাতাস

ইকবাল হোসেন তালুকদার, নবীগঞ্জ: একযুগের ও বেশি সময় পরে নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপিতে সু-বাতাস বইছে। অনেক চরাই উৎরাই নানা প্রতিক‚লতা পেরিয়ে এখন ঐক্যবদ্ধ নেতাকর্মী। হবিগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও আহবায়ক কমিটির যুগ্ম আহবায়ক কেন্দ্রীয় বিএনপির সমবায় বিষয়ক সম্পাদক জি কে গউছের নেতৃত্বে নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির কমিটি নিয়ে গ্রুপিং লবিং ও দ্বায়িত্ব অবসান হয়েছে। গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় নির্বাচিত করা হয়েছে নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি। উপজেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি সরফরাজ চৌধুরী নির্বাচিত হয়েছেন আহবায়ক ও উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান শেফু নির্বাচিত হয়েছেন যুগ্ম আহবায়ক। এতে নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির রাজনৈতিক অঙ্গনে নতুন করে রূপ নিয়েছে দলটি। এরই মধ্যে নবীগঞ্জ উপজেলার ১৩ টি ইউনিয়নের মধ্যে শুরু হয়েছে আহবায়ক কমিটি গঠন।সিলেট ভয়েস এর অনুসন্ধানে জানা যায়, দীর্ঘ একযুগ পুর্বে লন্ডন প্রবাসী বিএনপি নেতা শেখ সুজাত মিয়াকে সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয় নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির। এরপর থেকে স্থানীয় আওয়ামীলীগের সাথে সম্পর্ক তৈরী করে বেশির ভাগ সময়ই লন্ডনে থেকে নেতৃত্ব দেন উপজেলা বিএনপির। স্থানীয় নির্বাচন আসলেই দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান থাকে তার ক্ষুব্ধ হন বিএনপির স্থানীয় নেতাকর্মীরা। আওয়ামীলীগের  সাথে লিয়াজুর ভিত্তিতে শুরু করেন বিএনপির রাজনীতি। অভিযোগ রয়েছে নেতাকর্মীর। উপজেলা, পৌর এমনকি ইউনিয়ন নির্বাচনে ও কাজ করেছেন দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে। এদিকে বিগত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ও কাজ করেছেন দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্বে। এনিয়ে ব্যাপক সমালোচনায় চলে আসেন বিএনপির প্রবাসী ওই নেতা। রাজনৈতিক জীবনে তার বিরুদ্ধে দলীয় কোনো মামলা নেই। শুধুমাত্র চেকডিঅজনার একটি মামলা রয়েছে। শেখ সুজাত মিয়ার সাথেই সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে থেকে কাজ করেছেন মুজিবুর রহমান শেফু।
দলীয় দ্বন্দ্ব সৃষ্টি,নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির প্রয়াত নেতা মরহুম এ্যাডভোকেট আব্দুস শহিদ গোলাপ পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হলে স্বজনপ্রীতি ও আত্মীয়তার বন্ধনে আওয়ামীলীগ নেতা তোফজ্জল হোসেন চৌধুরীর পক্ষে বিএনপির এই প্রার্থীর বিরুদ্ধে অবস্থান নেন শেখ সুজাত মিয়া ও পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি ছাবির আহমেদ চৌধুরী। পথের কাঁটা সরিয়ে দিয়ে এখন দলীয় প্রার্থী হয়ে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন ছাবির আহমেদ চৌধুরী। অভিযোগ করছেন দলের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সিনিয়র নেতারা । এরপর থেকে শুরু হয় নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপিতে গ্রুপিং আর চরম দ্্বন্ব। এসময় দলের পক্ষে অবস্থান নেন মুজিবুর রহমান শেফু ও পৌর ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি সাধারণ সম্পাদক মোশাহিদ আলম মুরাদ। এই অবস্থার প্রেক্ষিতে দলের ভেতর দেখা দেয় চরম উৎকন্ঠা ও ্উত্তেজনা। হতাশা দেখা দেয় দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে। পরে ২০১৪ সালে মুজিবুর রহমান শেফু ও সুজাত গ্রুপের মধ্যে একটি সংঘর্ষ হয়। এ সংঘর্ষের রূপ ধারন করে ব্যাপক দ্ব›েদ্ব। সারাদেশে বিএনপির সাধারণ একজন কর্মীর বিরুদ্ধে যে পরিমাণ মামলা হয়েছে তার কোনটাই প্রকাশ পায়নি প্রবাসী নেতা সুজাত মিয়ার বেলায়। এনিয়ে ট্রল ও করা হচ্ছে সুজাত মিয়াকে নিয়ে। সব কিছুর অবসান ঘটিয়ে ৬ সেপ্টেম্বর জেলা বিএনটিপর উদ্যোগে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় নির্বাচিত করা হয়েছে নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি। এ কমিটিতে স্থান হয়নি দীর্ঘদিন সভাপতির দায়িত্বে থাকা সুজাত মিয়ার। একই সাথে নির্বাচিত করা হয়েছে পৌর বিএনপির আহবায়ক কমিটি ওই কমিটিতে ও স্থান হয়নি পৌর বিএনপির বহুল সমালোচিত নেতা ছাবির চৌধুরীর। পৌর বিএনপির আহবায়ক কমিটিতে জায়গা না পেয়ে অনেক দৌড়ঝাপ করে সদস্য হয়েছেন তিনি। এব্যাপারে নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহবায়ক সরফরাজ চৌধুরী বলেন, দল থেকে অশুভ শক্তিকে বিদায় করা হয়েছে এতে করে আমরা খুশি। তিনি আরো বলেন, বিএনপির চেয়ারপার্সন তিনবারের প্রধান মন্ত্রী খালেদা জিয়া ফরমায়েশী রায়ে কারাগারে বন্ধী রয়েছেন। তাকে মুক্ত করতে রাজপথে ছিলাম রাজপথেই থাকব। এ প্রতিনিধির ্এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নবীগঞ্জ উপজেলা বিএনপি এখন ঐক্যবদ্ধ। দলীয় সিদ্ধান্তে যে কোনো আন্দোলন সংগ্রামের জন্য প্রস্তুত।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com