উদ্ধার হয়নি নৌকা, ২২ জনের লাশ উদ্ধার ॥ দুটি ট্রলার আটক ॥ গ্রেপ্তার-৫

উদ্ধার হয়নি নৌকা, ২২ জনের লাশ উদ্ধার ॥ দুটি ট্রলার আটক ॥ গ্রেপ্তার-৫

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগরের লইস্কা বিলে বালিবাহী ট্রলারের সাথে ধাক্কা খেয়ে শতাধিক যাত্রী নিয়ে একটি ইঞ্জিন চালিত নৌকা ডুবির ঘটনায় আজ শনিবার সকাল পর্যন্ত নারী, শিশুসহ ২২জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। মৃতদের মধ্যে একই পরিবারের একাধিক সদস্য রয়েছেন।

সর্বশেষ শনিবার সকাল পৌনে ১০টায় শিশু নাসরা-(৩) এর লাশ উদ্ধার করা হয়। শিশু নাসরা ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার হারিছ মিয়া মেয়ে। উদ্ধারের পর নাসরার চাচা ছায়েদ মিয়া ও ফরিদ মিয়াসহ স্বজনরা তার লাশ সনাক্ত করে। এর আগে শুক্রবার রাত সাড়ে ১১ পর্যন্ত ২১ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। শুক্রবার রাতেই উদ্ধার হওয়া ২১ লাশ তাদের স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এ সময় হাসপাতাল প্রাঙ্গনে শোকাবহ পরিবেশের সৃষ্টি হয়। শত শত মানুষের ভীড় সামলাতে পুলিশকে হিমসিম খেতে হয়।

এদিকে এ ঘটনায় বিজয়নগর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ বালিবাহী দুটি ট্রলার আটক ও ট্রলারের চালক শ্রমিকসহ ৫জনকে গ্রেপ্তার করেছে। দুর্ঘটনার কারনে ওই নৌ-পথে নৌ-চলাচল সাময়িকভাবে চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। বিকেল সাড়ে ৪টা পর্যন্ত ডুবে যাওয়া নৌকাটি উদ্ধার করা যায়নি। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিহতদের পরিবারকে দাফন কাফনের জন্য ২০ হাজার টাকা করে দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটিকে ১০ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

 

নৌকা ডুবিতে মৃতরা হলেন, সদর উপজেলার সাদেকপুর ইউনিয়নের চিলোকূট গ্রামের আবদুল্লাহর কন্যা তাকওয়া-(৮), বিজয়নগর উপজেলার চম্পকনগর ইউনিয়নের জহিরুল হক ভূইয়ার ছেলে আরিফ ভূইয়া ওরফে মামুন ভূইয়া- (২০), চম্পকনগর ইউনিয়নের গেরারগাঁওয়ের মৃত কালু মিয়ার স্ত্রী মঞ্জু বেগম- (৬০),একই এলাকার জজ মিয়ার স্ত্রী ফরিদা বেগম-(৪০), জজ মিয়ার কন্যা মুন্নি-(৬), একই ইউনিয়নের নূরপুর গ্রামের মৃত আবদুর রাজ্জাক ওরফে মন মিয়ার স্ত্রী মিনারা বেগম, বিজয়নগর উপজেলার আদমপুর গ্রামের পরিমল বিশ্বাসের স্ত্রী অঞ্জলী বিশ্বাস-(৩০), পরিমল বিশ্বাসের কন্যা ত্রিদিবা-(২), বিজয়নগর উপজেলার গেরারগাঁওয়ের মৃত আবদুল হাসেমের স্ত্রী কমলা বেগম ওরফে রৌশনারা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার দক্ষিণ পৈরতলার আবু সাঈদের স্ত্রী মোমেনা বেগম-(৫৫), সদর উপজেলার সাদেকপুর গ্রামের মুরাদ হোসেনের ছেলে তানভীর-(৮), একই উপজেলার গাছতলা গ্রামের জামাল মিয়ার ছেলে সাজিম-(৭), সদর উপজেলার নাটাই উত্তর ইউনিয়নের ভাটপাড়া গ্রামের জারু মিয়ার কন্যা শারমিন-(১৮) পৌর এলাকার উত্তর পৈরতলার ফারুক মিয়ার স্ত্রী কাজলী বেগম, একই এলাকার হারিজ মিয়ার কন্যা নাসরা আক্তার-(৩) পৌর এলাকার দাতিয়ারার হাজী মোবারক মিয়ার মেয়ে তাসফিয়া মীম-(১২), ময়মনসিংহ জেলার গৌরিপুর উপজেলার রামগোপালপুর গ্রামের খোকন মিয়ার স্ত্রী ঝর্ণা বেগম-(৫৫), বিজয়নগর উপজেলার পত্তন ইউনিয়নের মনিপুর গ্রামের সাবেক চেয়ারম্যান মৃত হাজী আবদুল বারীর ছেলে সিরাজুল ইসলাম শিরু- (৫৮), বিজয়নগর উপজেলার বাদেহারিয়া গ্রামের কামাল হোসেনের কন্যা মাইদা আক্তার-(৬), ময়মনসিংহ জেলার গৌরিপুর উপজেলার রামগোপালপুর গ্রামের শাওন মিয়ার ছেলে সাজিদ- (৩), বিজয়নগর উপজেলার পত্তন ইউনিয়নের বড়পুকুরপাড় গ্রামের সোলায়মান মিয়ার স্ত্রী রুবিনা আক্তার ও বিজয়নগর উপজেলার সোনাবর্ষিপাড়া গ্রামের আবদুল বারী ভূইয়ার স্ত্রী নুসরাত জাহান। এদিকে শনিবার সকাল থেকেই লইস্কা বিলের পাড়ে স্বজনদের ভীড়ও কমে গেছে।

 

এদিকে দুর্ঘটনার কারনে ওই নৌ-পথে নৌ-চলাচল সাময়িকভাবে চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। পরিস্থিতি বিবেচনায় এ বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে হবে বলে প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

 

বিজয়নগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দায়িত্বে থাকা সহকারি কমিশনার (ভূমি) রাবেয়া আফসার সায়মা বলেন, আমরা আপাতত নৌকা চলাচল বন্ধ রেখেছি। পরিস্থিতি বিবেচনায় আবার চালু করা হবে।

 

এদিকে শনিবার সকাল ৮টা থেকে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ ডুবুরী দল (বিআইডবি-উটিএ) ৪জন ডুবুরি ও ফায়ার সার্ভিসের ২২জনের একটি টিম উদ্ধার অভিযানে নামে। সকাল পৌনে ১০ টায় নিখোঁজ হওয়া শিশু নাশরা- (৩) কে উদ্ধার করা হয়।

 

এ ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারি পরিচালক তৌফিকুল ইসলাম ভূইয়া বলেন, শনিবার সকাল পৌনে ১০টায় নিখোঁজ হওয়া শিশু নাশরার লাশ উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছি। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে তিনি জানান, ডুবে যাওয়া নৌকাটি এখনো উদ্ধার করা যায়নি। তিনি বলেন, ঘটনাস্থলে কোন স্বজন নেই। আমরা জেলা প্রশাসকের সাথে কথা বলে কিছুক্ষনের মধ্যেই উদ্ধার অভিযানের সমাপ্তি ঘোষনা করব।

 

এদিকে নৌকা ডুবির শনিবার দুপুরে বিজয়নগর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। উপজেলার চম্পকনগর ইউনিয়নের মৃত আবদুল হাসিমের ছেলে সেলিম মিয়া বাদি হয়ে ৭জনকে আসামী করে থানায় মামলা দায়ের করেন। (মামলা নং-৪৪, তাং-২৮/০৮/২১ ইং, ধারা-২৮০/৩০৪/৩৩৭/৩৩৮/৪২৭/৪৩৭ পেনাল কোড তৎসহ ইনল্যান্ড শিপিং অর্ডিন্যান্স ১৯৭৬ এর ৭০)

 

পুলিশ মামলার আসামী বালুবাহি ট্রলারের চালক সরাইল উপজেলার পানিশ্বর ইউনিয়নের শোলাবাড়ি গ্রামের আফজল মিয়ার ছেলে জমির মিয়া-(৩৩), ট্রলারের শ্রমিক একই এলাকার মৃত আবদুল করিমের ছেলে মোঃ রাসেল-(২২), একই এলাকার কাশেম মিয়ার ছেলে খোকন মিয়া-(২২), মৃত আশরাফ আলীর ছেলে মোঃ সোলায়মান-(৬৪) ও বিজয়নগর উপজেলার পত্তন ইউনিয়নের কালারটেক গ্রামের মৃত হাজী তালেব হোসেনের ছেলে মিস্টু মিয়াকে গ্রেপ্তার করেছে।

 

এদিকে দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধ্যানে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট (এডিএম) রুহুল আমিনকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে ১০ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

 

এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খাঁন জানান, এ পর্যন্ত ২২ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতদের পরিবারগুলোকে ২০ হাজার টাকা করে দেয়া হয়েছে। এ ঘটনার অনুসন্ধ্যানে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

 

উল্লেখ্য গত শুক্রবার বিকেল সাড়ে চার দিকে শতাধিক যাত্রী নিয়ে সোনা মিয়া মাঝির একটি ইঞ্জিনচালিত নৌকা বিজয়নগর উপজেলার চম্পকনগর ঘাট থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার আনন্দ বাজার ঘাটের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে।

 

নৌকাটি শুক্রবার সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে বিজয়নগর উপজেলার পত্তন ইউনিয়নের লইস্কা বিলে এসে পৌছলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি বালিবাহি ট্রলার (বাল্কহেড) যাত্রীবাহি নৌকাটিকে ধাক্কা দেয়। এসময় যাত্রীবাহি নৌকাটি উল্টে যাওয়ার সময় পেছন থেকে আরেকটি বালিবাহি ট্রলার (বাল্কহেড) নৌকা ডুবন্ত নৌকাটিকে পেছন থেকে আবার ধাক্কা দেয়।

 

এ সময় যাত্রীবাহি নৌকাটির উপরে (ছৈয়া) থাকা অধিকাংশ যাত্রী সাতরে উপরে উঠতে পারলেও নৌকার ভেতরে থাকা নারী ও শিশুদের নিয়ে নৌকাটি বিলে তলিয়ে যায়।

 

খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌছে উদ্ধার কাজ শুরু করে। জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খাঁন ও পুলিশ সুপার ঘটনাস্থলে থেকে উদ্ধার তৎপরতা তদারকি করেন। রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত ১৯ জনের লাশ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে আনা হয়।

 

নৌকা ডুবিতে আহত ৮জনকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়।

শুক্রবার সন্ধ্যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে নৌকার যাত্রী আঁখি আক্তার বলেন, তার বাবার বাড়ি পৌর এলাকার ভাদুঘর গ্রামে। সদর উপজেলার পশ্চিমাঞ্চলের সাদেকপুর গ্রামে তার শ্বশুর বাড়ি। তিনি তার স্বামী মুরাদ মিয়া,দুই সন্তান, শ্বাশুড়ি ও ভাসুরের তিন ছেলেকে নিয়ে বিজয়নগরে তার ননাসের বাড়ি (স্বামীর বড় বোন) থেকে বিয়ে খেয়ে বাড়িতে ফেরার জন্য বিকেল সাড়ে ৪টায় বিজয়নগরের চম্পকনগর ঘাট থেকে একটি ইঞ্জিনচালিত নৌকায় করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের আনন্দবাজার ঘাটের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেন।

 

নৌকায় প্রায় শতাধিক যাত্রী ছিলো। নৌকাটি বিকেল পৌনে ৬টার দিকে বিজয়নগর উপজেলার পত্তন ইউনিয়নের শেখ হাসিনা সড়কের পাশে লইস্কার বিলে পৌছার পর বিপরীত দিক থেকে আসা বালিবাহী ট্রলারের সাথে ধাক্কা খেয়ে উল্টে যায়।

 

এ সময় তিনি তার ২ বছরের কন্যা মোবাশ্বিরার এক হাতে ও ছেলে তানভীর-(৮) এর এক হাতে ধরে সাতার কাটতে শুরু করেন। এক পর্যায়ে ছেলেটি হাত হাত থেকে ফসকে তলিয়ে যায়। পরে তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে এসে আহতবস্থায় স্বামী মুরাদকে দেখতে পান। তিনি বলেন, তার ছেলে শ্বাশুড়ি ও ভাসুরের তিন ছেলে নিখোঁজ রয়েছেন। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, হাসপাতালে আসার পর চিকিৎসকরাও অবহেলা করতে থাকে। প্রায় ঘন্টাখানেক পরে তিনি চিকিৎসকের দেখা পান। ( শুক্রবার রাতে আঁখি আক্তারের ছেলের লাশ উদ্ধার করা হয়)

 

নৌকায় থাকা যাত্রী মোহাম্মদ রাফি বলেন, আমি নৌকার ছাদে বসে ছিলাম। বিজয়নগরের চম্পকনগর নৌকাঘাট থেকে বিকাল সাড়ে ৪টায় নৌকাটি ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার আনন্দ বাজার ঘাটের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে। নৌকাটি লইস্কার বিলে আসলে বালু বোঝাই একটি ট্রলারের সাথে ধাক্কা খেয়ে ডুবে যায়। আমি ঝাঁপ দিয়ে পানিতে পড়ে সাতরে উপরে উঠি। রাফি আরো বলেন, নৌকার নিচে ও উপরের শতাধিকের মতো যাত্রী ছিলো।

 

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান বলেন, শনিবার বিকেল পর্যন্ত নৌকা ডুবির ঘটনায় ২২ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় দুটি বালিবাহি ট্রলার আটক ও ৫জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com