আহমদ শফীর বক্তব্য অসামঞ্জস্যপূর্ণ ও বৈষম্যমূলক: শিক্ষা উপমন্ত্রী

আহমদ শফীর বক্তব্য অসামঞ্জস্যপূর্ণ ও বৈষম্যমূলক: শিক্ষা উপমন্ত্রী

আহমদ শফীর বক্তব্য অসামঞ্জস্যপূর্ণ ও বৈষম্যমূলক: শিক্ষা উপমন্ত্রী
আহমদ শফীর বক্তব্য অসামঞ্জস্যপূর্ণ ও বৈষম্যমূলক: শিক্ষা উপমন্ত্রী

সময়ের কণ্ঠস্বর, চট্রগ্রাম- মেয়েদের লেখাপড়া নিয়ে হেফাজতে ইসলামের আমির শাহ আহমদ শফীর একটি বক্তব্যকে রাষ্ট্রের নীতির ‘অসামঞ্জস্যপূর্ণ ও বৈষম্যমূলক’ বলে মনে করেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

আজ শনিবার চট্টগ্রামে নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ে আহমদ শফীর বক্তব্য নিয়ে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি। এসময় নারী শিক্ষা নিয়ে হেফাজতে ইসলামের আমির শাহ আহমদ শফী যে বক্তব্য দিয়েছেন তা একেবারে তার ‘ব্যক্তিগত’ মন্তব্য বলেও জানান এই শিক্ষা উপমন্ত্রী।

শুক্রবার চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলায় দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম মাদ্রাসার ১১৮ তম বার্ষিক মাহফিলে মাদ্রাসার পরিচালক শফী’র দেওয়া একটি বক্তব্য ও ভিডিও বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশ হয়। সেখানে বলা হয়, মেয়েদেরকে স্কুল-কলেজে না দিতে এবং দিলেও সর্বোচ্চ ক্লাস ফোর বা ফাইভ পর্যন্ত পড়ানোর জন্য ওয়াদা নিয়েছেন আহমদ শফী। পরে বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও আলোচনা শুরু হয়।

হেফাজতে আমীরের নাম উল্লেখ না করে উপমন্ত্রী নওফেল বলেন, ‘যিনি এই মন্তব্যটা করেছেন, তিনি তার ব্যক্তিগত অভিমত দিয়েছেন। বাংলাদেশের শিক্ষানীতি প্রণয়ন, শিক্ষা ব্যবস্থাপনা বা পরিচালনা অথবা শিক্ষা খাতে কোনো নির্বাহী দায়িত্বে তিনি নেই। যেহেতু তিনি কোনো ধরনের সিদ্ধান্ত গ্রহণের অবস্থানে নেই, তিনি অভিমত দিলেই সেটা রাষ্ট্রীয় নীতিতে অন্তর্ভুক্ত বা প্রতিফলিত হবে, এমন চিন্তা করবার অবকাশ নেই। সমাজে এরকম অনেকেই অনেক ধরনের অভিমত দেন।’

নওফেল বলেন, দেশের যে কোনো নাগরিকেরই বাকস্বাধীনতা আছে। তার মনের ভাবনা প্রকাশ করার অধিকার আছে। তবে আমি সম্মানের সাথে বলব, আমরা সকলেই যারা বাকস্বাধীনতার চর্চা করছি, আমরা যেন এই বিষয়টা মাথায় রাখি যে- সংবিধান অনুসারে আমাদের সকলের সমান অধিকার নিশ্চিত করা হয়েছে। আমরা যেন বৈষম্যমূলক মন্তব্য না করি।’

১৮ বছর আগেও দেশে শিক্ষা ব্যবস্থার এমন চিত্র ছিল না উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিদেশে উচ্চশিক্ষা নিতে গেলে পুনরায় স্নাতক শ্রেণিতে পড়তে হতো। এখন দেশে শিক্ষার মান উন্নত হয়েছে এবং সনদও আন্তর্জাতিক মানের হওয়ায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সহজেই মেধাবী শিক্ষার্থীরা উচ্চশিক্ষা নিতে পারছে। এই মান ধরে রাখতে আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাবো।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে নওফেল আরও বলেন, নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বানিয়ে সেটিকে প্রতিষ্ঠিত করতে যে সময় ও অর্থ ব্যয় হবে-তার চাইতে বিভিন্ন এলাকার ঐতিহ্যবাহি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর অবকাঠামোগত উন্নয়ন করে শিক্ষক সংখ্যা বাড়ানোর দিকেই নজর দিচ্ছি। প্রয়োজনে অধিক শিক্ষার্থীর চাপ সামলাতে দুই শিফটে পাঠদানের ব্যবস্থাও করা যেতে পারে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com