সংবাদ শিরোনাম :
সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিকে এগিয়ে নিতে সকলের এক যোগে কাজ করার আহ্বান : আবু জাহির রাজধানীর বস্তি থেকে হবিগঞ্জের শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার পার্কিং করা বাসে ৩০ কেজি গাঁজা, গ্রেফতার ৩ ‘বাবা নির্যাতন সহ্য করতে পারছি না, আমাকে উদ্ধার করো : সৌদি থেকে মেয়ের আকুতি ভারতের ত্রিপুরায় প্রচুর বৃষ্টিপাত হওয়ায় খোয়াই নদীর পানি বৃদ্ধি রাস্তায় পড়ে থেকে নষ্ট হচ্ছে টেলিফোন বক্স ॥ দেখার যেনো কেউ নেই শায়েস্তানগর হকার মার্কেট দখল করে ব্যবসা ॥ নেয়া হয়েছে অবৈধ বিদ্যুত সংযোগ হবিগঞ্জ শহরে ব্যাটারী চালিত রিকশার বিরুদ্ধে অভিযান বাধা দিলেই খুন করত শুক্কুর আলী-দিদার আগামী ৮ অক্টোবর হবিগঞ্জে শ্রমিক ইউনিয়ন নির্বাচনে সব গণপরিবহন বন্ধ
আশুলিয়ায় ধর্ষণের একদিন পর কিশোরীর রহস্যজনক মৃত্যু

আশুলিয়ায় ধর্ষণের একদিন পর কিশোরীর রহস্যজনক মৃত্যু

আশুলিয়ায় ধর্ষণের একদিন পর কিশোরীর রহস্যজনক মৃত্যু
আশুলিয়ায় ধর্ষণের একদিন পর কিশোরীর রহস্যজনক মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার: আশুলিয়ায় ধর্ষণের ঘটনায় লিখিত অভিযোগ দায়েরের একদিন পর রহস্যজনক মৃত্যু হয় নির্যাতনের শিকার এক কিশোরীর।

প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে ধর্ষণের ঘটনায় অপমান ও ক্ষোভে আত্মহত্যা করছে বলে পুলিশের দাবি। এ ঘটনায় পুলিশ আবদুর রহিম নামে একজনকে আটক করেছে।

আজ সোমবার সকালে আশুলিয়ার জামগড়া স্থানীয় নারী ও শিশু স্বাস্থ্য কেন্দ্র হাসপাতাল থেকে কিশোরীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এর আগে রবিবার দুপুরে আশুলিয়া থানায় ধর্ষণের ঘটনায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে ছিলেন নির্যাতিত ওই কিশোরী। আটক আবদুর রহিম পাবনা জেলার সাথিয়া থানার পিপুলিয়া গ্রামের আবদুর সাত্তারের ছেলে।

নিহত কিশোরীর লিখিত অভিযোগে দেখা যায়, আশুলিয়ার জামগড়ার পোশাক কারখানা থেকে সন্ধ্যায় ছুটি শেষে বের হয়ে যাওয়া পথে শিপন ও রিপনসহ আরও দুই বখাটে তাদের গতিরোধ করে। পরে তাদের সহায়তায় রিপন তাকে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে।

নিহত কিশোরীর মা আফরোজা বেগমের দাবি, গত শনিবার সন্ধ্যায় আশুলিয়ার গোরাট এলাকা পোশাক কারখানা থেকে ছুটি শেষে কথিত প্রেমিক রহিম তাকে কৌশলে নির্জন স্থানে নিয়ে যায়। পরে আরও দুইজন মিলে কিশোরীকে ধর্ষণ করে। এদিকে আজ সকালে কিশোরীর গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে নারী ও শিশু স্বাস্থ্য কেন্দ্র হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।

নিহতের বাবা আবু হানিফ জানান, শনিবার রাতে মেয়ে ফোন করে টাকা চায় ও বলে তাকে বাঁচাতে হলে দ্রুত যেন টাকা পাঠায়। পরে রাতে অপরাধীরা তার মেয়ে বাসার সামনে ফেলে দিয়ে যায়। আমি এ ঘটনার উপযুক্ত বিচার চাই। অপরাধীদের ফাঁসি চাই।

এ দিকে ধর্ষণের ঘটনায় লিখিত অভিযোগের মামলার তদন্তকারী বলেন, অভিযোগ পাওয়া পর ঘটনাস্থলে যাই। অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করি।

এ বিষয়ে আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জাবেদ মাসুদ জানান, এ ঘটনায় ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একজনকে আটক করা হয়েছে। তবে ধর্ষণের ঘটনা ও মৃত্যুর কারণ এখনো নিশ্চিত নয়। বিস্তারিত তদন্ত ও ময়নাতদন্ত শেষে বলা যাবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com