‘আমি ব্যাটিংয়ের কিছুই বদলাইনি’

‘আমি ব্যাটিংয়ের কিছুই বদলাইনি’

lokaloy24.com/

লম্বা সময় পরে একটা সেঞ্চুরি পেলেন তামিম ইকবাল। তার চেয়ে বড়ো কথা, এই ম্যাচে তার ব্যাটিং দেখে মনে হয়েছে, নিজের রূপটা খুঁজে পেয়েছেন। নিজের ব্যাটিং নিয়ে গতকাল কথা বলেছেন এই বাঁহাতি ওপেনার।

এই ইনিংসটা খেলার পর চাপমুক্ত অনুভব করছেন কি না?

হ্যাঁ। চাপে তো ছিলাম। এটা ‘না’ বললে মিথ্যে কথা বলা হবে। কিন্তু আমার কাছে মনে হয় যে একটা ভালো জিনিস ছিল যে আমি ব্যাটিং খুব ভালো করছিলাম। আমি হয়তো অত বড়ো রান করতে পারছিলাম না। এমনকি প্র্যাকটিসেও আমি খুব ভালো ব্যাটিং করছিলাম। ফলে একটা বিশ্বাস অবশ্যই ছিল যে ইটস এ ম্যাটার অব টাইম। বড়ো হয়ে যাবে, হয়ে যাবে। আনফরচুনেটলি অনেক দিন ধরেই হচ্ছিল না।

গত কিছুদিন আপনি খুব ধীরে শুরু করতেন। কিন্তু এদিন শুরু থেকেই প্রভাব দেখালেন। ব্যাটিংয়ের ধরন বদলেছেন?

সত্যি কথা বলতে আমি কিন্তু কালকে কোনো কিছুই ডিফারেন্ট করিনি। একটা জিনিস পক্ষে গেছে, সেটা হলো যে আমি প্রথমে দুই তিনটা বাউন্ডারি বেশি পেয়ে গেছি। এ ছাড়া সেঞ্চুরির আগে কোনো সময় এমন দেখবেন না যে আমি সামনে গিয়ে বড়ো শটস খেলেছি অথবা কিছু। আমি সব কিন্তু ক্রিকেটিং শটস খেলেছি। হয়তো গ্যাপে চলে গেছে সব, বাউন্ডারি হয়ে গেছে। তার আগের দিন গ্যাপে যায়নি বলে বাউন্ডারিগুলো হয়নি।

সেঞ্চুরির পর একটু বেশি মেরে খেলার পরিকল্পনাটা

কী ছিল?

আমার কাছে ঐ সময় একটা জিনিসই মনে হচ্ছিল যে, সেকেন্ড হাফে উইকেটটা বেটার হয়ে যায়। প্রথম হাফে একটু আনইভেন বাউন্স থাকে। আমি এটাই চেষ্টা করছিলাম যে ওভার বেশি থাকার সময় যেন আমি আউট না হয়ে যাই। কারণ আমি যদি আউট হয়ে যেতাম তাহলে কিন্তু ওরকম কোনো ব্যাটসম্যান ছিল না। তো আমি ওরকম ক্যালকুলেটেড রিস্ক নিয়ে ব্যাটিং করছিলাম।

২০০৯ সালের ১৫৪, নাকি এই ১৫৮; কোন্টাকে এগিয়ে রাখবেন?

অবশ্যই ২০০৯ সালেরটা। কারণ ওটা প্রথমবার আমরা ৩০০ রান চেজ করে ম্যাচ জিতেছিলাম। এখন ৩০০ রানটা যত ইজিলি মানুষ দেখে, ঐ সময় কিন্তু ৩০০ রানটা অত ইজিলি দেখতো না। ৩০০ রান ঐ সময়ের, এখনকার ৪০০ রান। ঐ সময় যে আমরা চেজ করতে পারব ৩০০ রান এই বিশ্বাসটাই হয়তো বা আমাদের খুব বেশি মানুষের কাছে ছিল না। আমার কাছেও ছিল না। বাট যেভাবে করে আমরা ইনিংস বিল্ড আপ করেছিলাম ঐ ম্যাচে তো অবশ্যই ঐ ইনিংসটাকে আমি কালকের তুলনায় এগিয়ে রাখব।

মাঝের এই খারাপ সময়টাকে রানে ফেরার

জন্য কী করেছেন?

এই সময় যেহেতু ম্যাচে হচ্ছিল না তাই আমাকে ট্রেনিংয়েই করতে হচ্ছিল। যখন নেটে ব্যাটিং করেছি তখন চেষ্টা করেছি আউট না হতে। টুকটাক কিছু জিনিস পরিবর্তন করেছি। এটা একটা লম্বা প্রক্রিয়া। ঐদিন নেটে ভিন্ন কিছু করেছি বলে কাল রান করেছি এটা ঠিক না।

সাত হাজার রান করলেন, ওয়ানডেতে কত

রান করতে চান?

কত রান করব, কোনো সময় আমি লক্ষ্য সেট করি না। কোনো ক্রিকেটারের কাছে জানতে চাওয়া হলে সে কত রান করবে, বলবে ১০ হাজার রান করবে। কিন্তু আমি কোনো সময় এটা নিয়ে চিন্তা করি না। যা হচ্ছে ওটা নিয়েই থাকতে পছন্দ করি।

লিটনের মতো বিশ্বাস করেন কি—না ক্রিকেট হতাশার খেলা?

ক্রিকেট হতাশার খেলা বলা ঠিক না, আমার কাছে মনে হয় এটা গ্রেট লেভেলার। একদিন খুশি হবেন, একদিন হতাশ থাকবেন। এটা মিশ্র অনুভূতির।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com