সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
আজমিরীগঞ্জে দুইটি বিদ্যালয় প্লাবিত, পাঠদান বিঘ্ন

আজমিরীগঞ্জে দুইটি বিদ্যালয় প্লাবিত, পাঠদান বিঘ্ন

হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ উপজেলায় কয়েকদিনের বৃষ্টি ও কুশিয়ারা নদী থেকে নেমে আসা পানিতে দুইটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্লাবিত হয়েছে। এতে বিদ্যালয়গুলোর শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীর উপস্থিতি কমে গেছে।
সম্প্রতি উপজেলার কাকাইলছেও ইউনিয়নের উত্তর রসুলপুর এবং কামালপুর চরহাঠি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চারপাশ ও আসা যাওয়ার সড়কগুলো পানিতে তলিয়ে যায়। এখন স্কুলগুলোতে নৌকা ছাড়া যাতায়াত করা যাচ্ছে না। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের জন্য হাওরে যাতায়াত ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীর উপস্থিতি কমেছে প্রায় অর্ধেক।
জানা গেছে, দুইটি বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী সংখ্যা ৪৭২ জন। প্রায় ১০ দিন ধরে বৃষ্টি ও কুশিয়ারা নদীর পানি হাওরে প্রবেশ করায় বিদ্যালয়গুলো প্লাবিত হয়। এখন অর্ধেক শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ে নিয়মিত আসতে পারছে না।
কামালপুর চরহাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অনুপ কুমার চক্রবর্তী। তিনি বলেন, নৌকা ছাড়া বিদ্যালয়টিতে যাতায়াত করা যাচ্ছে না। এজন্য শিশু ও প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা একদমই বিদ্যালয়ে আসছে না। সাতার জানা কিছু শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ে এলেও তারা সংখ্যায় অনেক কম। মোট ২৫০ জনের মধ্যে অর্ধেক শিক্ষার্থী এখন অনিয়মিত।
উত্তর রসুলপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মমতা রাণী দেবী। তিনি বলেন, আমার বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ২২২ জন। আশপাশের এলাকা থেকে বিদ্যালয়ের ভিট অনেক নিচু। কয়েকদিনের বৃষ্টিতে তাই বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ এবং সড়ক তলিয়ে গেছে। সড়কে একটি বাঁশের সাঁকো নির্মাণ হলেও তা নিয়ে শিক্ষার্থীদের আসা-যাওয়া ঝুঁকিপূর্ণ। তাই প্রায় অর্ধেক শিক্ষার্থী বিদ্যালয়ে আসছে না।
এ বিষয়ে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মাহমুদুল হক বলেন, বিষয়টি উপজেলা পরিষদের সভায় রেজুলেশন করা হয়েছে। শুকনো মৌসুমে বিদ্যালয়গুলোর সড়ক নির্মাণের জন্য সেখান থেকে অর্থ বরাদ্দ দেওয়া হবে। তবে একটি বিদ্যালয়ে চলাচলের জন্য বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com