অল্পদিনেই সম্পদের পাহাড় অমির

অল্পদিনেই সম্পদের পাহাড় অমির

http://lokaloy24.com

অভিনেত্রী পরীমণির মামলায় গ্রেপ্তার তুহিন সিদ্দিকী অমির বিশাল সম্পদের মালিক হওয়া যেন আলাদিনের চেরাগ পাওয়ার গল্পের মতো। মাত্র আট বছরেই বিপুল সম্পদের মালিক বনে গেছেন। এ যেন চেরাগ ঘষলেই ইচ্ছামতো সম্পদ পাওয়ার মতো ঘটনা। দিনে দিনে বেরিয়ে আসছে ক্লাবপাড়ায় ‘সেটিং মাস্টার’খ্যাত এই ব্যক্তির অনেক চাঞ্চল্যকর তথ্য।
রিক্রুটিং এজেন্সির আড়ালে ওয়ার্ক পারমিটের কথা বলে ভ্রমণ ভিসায় বিদেশে লোক পাঠিয়ে প্রতারণার ফাঁদ পেতে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেন অমি। এ ছাড়া ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ফ্যাশন হাউস, ডেভেলপার ব্যবসাসহ অন্তত ১৫টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে তার। তার রয়েছে একাধিক বাড়ি ও বিঘা বিঘা জমি। যদিও এক সময় অমির বাবা সিঙ্গাপুরে ট্রলিম্যান ও লাগেজ টানা পার্টির সদস্য হিসেবে কাজ করতেন। সমকালের তথ্যানুসন্ধানে ঢাকার ক্লাবপাড়ায় পরিচিত মুখ অমির নামে-বেনামে গড়ে তোলা সম্পদের এসব তথ্য পাওয়া যায়।
পরীমণি ইস্যুতে এরই মধ্যে অমির বিরুদ্ধে তিনটি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় মানব পাচার, পাসপোর্ট নিয়ে অপরাধ এবং ধর্ষণচেষ্টা ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগ আনা হয়েছে। পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে বিদেশে মানব পাচার ছাড়াও ক্লাবপাড়ায় অমির নেতৃত্বে একশ্রেণির দুর্বৃত্তকে নিয়ে গড়া সিন্ডিকেটের তথ্যও সামনে এসেছে। পরীমণির মামলায় ব্যবসায়ী ও জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য নাসির উদ্দিন মাহমুদসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাদের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।
গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার হারুন অর রশিদ সমকালকে বলেন, অমি ও তার সাঙ্গোপাঙ্গরা কোথায় কী ধরনের অপকর্মে জড়িয়েছিল, তা তদন্তে উঠে আসবে। তার অর্থবিত্তের অনেক তথ্য আমরা এরই মধ্যে পেয়েছি।
জানা গেছে, অমির জন্ম ১৯৮৭ সালে টাঙ্গাইলের করটিয়ায় তার দাদাবাড়িতে। পড়াশোনা করেছেন উত্তরা রয়েল ইউনিভার্সিটিতে। বর্তমানে তারা আশকোনার মেডিকেল রোডের বাড়িতে বসবাস করেন। অমির বাবা তোফাজ্জল হোসেন ওরফে তোফা আদম ব্যবসায়ী হিসেবে এলাকায় পরিচিত। ১৯৮৫ সালে সিঙ্গাপুরে পাড়ি জমান তোফাজ্জল। এরপর দেশে ফিরে বিদেশে মানুষ পাঠাতে শুরু করেন। প্রথমে পেঙ্গুইন ট্রেনিং সেন্টারের মালিক মিজানের সঙ্গে ছিলেন। এরপর আশকোনা ও দক্ষিণখানে গড়ে তোলেন দুটি ট্রেনিং সেন্টার। সিঙ্গাপুর, সৌদি আরব, মালয়েশিয়া, কাতার, দুবাইসহ বিভিন্ন দেশে লোক পাঠাতে শুরু করেন তিনি। সাত-আট বছর আগে ব্যবসার দায়িত্ব ছেলে তুহিন সিদ্দিকী অমির হাতে ছেড়ে দেন। এরপর অমি ও তার পরিবারকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। বিদেশে লোক পাঠানোর নামে প্রতারণা ও দেশে ক্লাবপাড়ায় সুন্দরী নারীদের অর্থ আয়ের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার শুরু করেন অমি। পরিচিতি পান ‘সেটিং মাস্টার’ হিসেবে।
তথ্যানুসন্ধানে আরও জানা যায়, উত্তরখানে ‘দ্য ভিলা’ নামে একটি রিসোর্ট আছে অমির। তার হয়ে সেটি দেখভাল করেন মশিউর রহমান ও রুবেল। এ দু’জন অমির প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা। এ ছাড়া হলি ডে প্ল্যানার্স নামে আরেকটি রিসোর্ট রয়েছে। হাতিরঝিল মহানগর এলাকার বাসিন্দা তুহিন কাজীকে নিয়ে এটি পরিচালনা করে আসছেন তিনি। এ ছাড়া মালয়েশিয়া ও দুবাইয়ে অমির মালিকানাধীন দুটি বিলাসবহুল রিসোর্ট আছে। দেশ থেকে অনেক উঠতি নায়িকা ও সেলিব্রিটিকে সেখানে নিয়ে প্রায়ই পার্টির আয়েজন করা হয়।
আশকোনা, দক্ষিণখান, উত্তরা ও টাঙ্গাইলে রয়েছে অমির আলিশান বাড়ি। উত্তরা ও আশকোনা এলাকার একাধিক বাসিন্দা জানান, মূলত বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতা ও তাদের সন্তানদের সঙ্গে সখ্য ছিল অমির। এ কারণে নানা অনৈতিক কারবারে জড়ালেও কেউ তা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে সাহস পেতেন না। এখন পর্যন্ত অমির যেসব প্রতিষ্ঠানের তথ্য পাওয়া গেছে, তার মধ্যে রয়েছে- জান্নাহ মেডিকেল সার্ভিসেস নামে ডায়াগনস্টিক সেন্টার, জান্নাহ এগ্রো, জান্নাহ ফ্যাশন, আয়াত ট্যুর অ্যান্ড ট্রাভেলস, জান্নাহ প্রপার্টিজ, অমি জেনারেল হাসপাতাল ও আয়াত-জান্নাহ রেস্টুরেন্ট। এ ছাড়া সিঙ্গাপুর ট্রেনিং সেন্টার, আইএসএমটি হিউম্যান রিসোর্স প্রাইভেট লিমিটেড নামে দুটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে তার। শেষোক্ত দুটি রিক্রুটিং এজেন্সি ও ট্রেনিং সেন্টার।
আশকোনা বাজারের পাশে একটি গলিতে রয়েছে অমির আইএমএসটি হিউম্যান রিসোর্স প্রাইভেট লিমিটেড। একই ভবনে আছে অমির আরও পাঁচটি প্রতিষ্ঠান। এসব প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে বিদেশে লোক পাঠাতেন তিনি। গোয়েন্দা জিজ্ঞাসাবাদে অমি দাবি করেন, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৫০ লাখ টাকার বেশি আয়কর দিয়েছেন তিনি। ওই বছর মালয়েশিয়ায় জনবল পাঠিয়ে কয়েক কোটি টাকা আয় করেন তিনি। পরের অর্থবছরগুলোতে ৮-১০ লাখ টাকার বেশি কর দেন তিনি।
ক্লাবপাড়ার পরিচিত মুখ- এমন একাধিক ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ঢাকার অনেক ক্লাবে অমির হাত ধরে নানা অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। তিনি উত্তরা, ঢাকা বোট ক্লাব, রয়েল ক্লাব, বাংলাদেশ ক্লাব, বরিশাল ক্লাবসহ অনেক ক্লাবের সদস্য। উঠতি মডেল ও নায়িকাদের হাতে রাখেন অমি। তাদের ব্যবহার করে একটি সিন্ডিকেট গড়ে তোলেন। অমি ও তার ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত তুহিন কাজী এবং নাজিম সরকারের চক্রে নিয়মিত যোগাযোগ করতেন- এমন একাধিক ব্যক্তির নামও জানা গেছে। তাদের মধ্যে ব্যবসায়ী, রাজনীতিক, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ রয়েছে। অমি প্রায়ই ক্লাবে সঙ্গী নিয়ে যেতেন। আবার অনেক সময় অন্যের জন্য সঙ্গী জোগাড় করে দিতেন। তাকে ক্লাবপাড়ায় ‘সেটিং মাস্টার’ বলে ডাকেন অনেকে। অমি ও তার চক্রে থাকা তরুণীদের কারণে অনেকের সংসারও ভেঙেছে। অসাধু কেউ কেউ এখনও এই চক্রের পলাতক সদস্যদের গোপন তথ্য দিয়ে সহায়তা করে যাচ্ছেন।
অমির বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগগুলো মানতে নারাজ তার বাবা তোফাজ্জল হোসেন। তার ভাষ্য, ‘অমি সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ার নাগরিক। এ ছাড়া অমির রয়েছে সাত-আটটি দেশের পাসপোর্ট এবং সবই ভিসা লাগানো। যদি জানতে পারতাম পরীমণির মামলায় অমিকে গ্রেপ্তার করা হবে, তাহলে আগেই তাকে দেশের বাইরে পাঠিয়ে দিতাম।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com