সংবাদ শিরোনাম :
হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন হবিগঞ্জ শহরে মুন হাসপাতাল এবং চিকিৎসককে জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে ধনীর মেয়েকে বিয়ে করার দায়ে গরিবের ছেলেকে গাছে বেধে নির্যাতন পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি মাফিয়া ওলিউর দু’পুত্র ও সহোদর সহ পর্তুগাল পুলিশের খাঁচায় বন্দী হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার ইসলামে দান-সদকার সওয়াব অপরিসীম ৬ ঘণ্টা নয়, ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন করোনায় আক্রান্ত হয়ে আইসোলেশনে মিরাজ জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিতে শুক্রবার ঢাকা ছাড়ছেন প্রধানমন্ত্রী বিমানবন্দরে আরটিপিসিআর ল্যাব বসানোর অনুমোদন ৭ প্রতিষ্ঠানকে
আজমিরীগঞ্জ উপজেলার জনসাধারণের মধ্যে কোভিড-১৯ এর টিকা গ্রহণের আগ্রহ বাড়ছে

আজমিরীগঞ্জ উপজেলার জনসাধারণের মধ্যে কোভিড-১৯ এর টিকা গ্রহণের আগ্রহ বাড়ছে

আজমিরীগঞ্জ প্রতিনিধি: হবিগঞ্জ জেলায় আজমিরীগঞ্জ উপজেলার জনসাধারণের মধ্যে কোভিড-১৯ এর টিকা গ্রহণের আগ্রহ বাড়ছে। উপজেলা স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সে সপ্তাহের শুক্রবার ছাড়া প্রতিদিনই চলছে টিকাদান কার্যক্রম। উপজেলা স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সে সুত্রমতে গত তিনদিনে ৩৮৪ জন অনলাইনে নিবন্ধনদের মাধ্যমে কোভিড-১৯ এর ভ্যাক্সিন গ্রহণ করেছেন। এছাড়াও অনলাইন নিবন্ধনের মাধ্যমে প্রতিদিন এক থেকে দেড়শ জনের মতো নিচ্ছেন কোভিড-১৯ ভ্যাক্সিন। বিগত দিনে ৩০ বছর থেকে শুরু করে ৬৫ বছরের নাগরিকরা ভ্যাক্সিন গ্রহণ করলেও সর্বশেষ গত ১৯ জুলাই সরকারি নির্দেশনার পর ২৫ বছরের উর্ধ্বের নাগরিকরাও নিচ্ছেন কোভিড-১৯ এর টিকা।

সরজমিনে মঙ্গলবার (০৩ রা আগষ্ট) সকাল ১১ টায় উপজেলা স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে দেখা যায় প্রায় শতাধিক পুরুষ মহিলা কোভিড-১৯ ভ্যাক্সিন নিতে অনলাইনে নিবন্ধনকৃত টিকা কার্ড নিয়ে হাজির হয়েছেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে।

কোভিড-১৯ ভ্যাক্সিন এর ১ম ডোজ গ্রহনকারী উপজেলার শিবপাশা ইউনিয়নের বাসিন্দা আতাবুর মিয়ার সাথে আলাপকালে তিনি জানান -প্রথমে টিকা নেয়ার আগ্রহ ছিল না। পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সহ নানান রকম ভয় কাজ করতো। কিন্তু এখন দেখলাম পরিচিত যারা ভ্যাকসিন নিয়েছেন উনাদের কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বা কোনো ধরনের কোনো অসুবিধা হয়নি। বর্তমানে কোভিড-১৯ এর সংক্রামণ যেহারে বাড়ছে সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে টিকা নিতে আজ এখানে এসেছি।

টিকা নিতে আসা পৌরসভার বাসিন্দা সোহেল আহমেদ জানান- প্রথমে ভয় কাজ করছিলো টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়ে কিন্তু এখন দেখলাম পরিচিত সবাই টিকা নিচ্ছে,কারো কোনা পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াও নেই তাই আজ টিকা নিতে এসেছি।
স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সে টিকা নিতে আসা প্রায় অনেকেরই ছিলো একই ভাষ্য।

আজমিরীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সে কর্তব্যরত আরএমও চিকিৎসক মনির হোসাইন জানান- প্রথম যখন কোভিড-১৯ এর টিকা আসে তখন প্রতিদিন ৫ থেকে ৮ জন আসতেন টিকা নিতে। আমরা টিকা নেয়ার জন্য জনসাধারণের মধ্যে অনেক প্রচারণা ও চালিয়েছি কিন্তু অনেকই টিকা নিতে ভয় পেতেন যার দরুণ আমরা তেমন সাড়া পাইনি। কিন্তু দ্বিতীয় পর্যায়ে কোভিড-১৯ এর টিকা আসার পর এখন উপজেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রতিদিনই এক থেকে দেড়শ জন উপজেলা স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সে টিকা নিতে আসছেন।

এ বিষয়ে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্হ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ইকবাল হোসেন জানান-স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সে প্রথম দিকে যখন টিকা আসে তখন আমরা দেখেছি মানুষের মধ্য টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়ে একটি ভ্রান্ত ধারণা ছিল। কিন্তু প্রথম ধাপের টিকা শেষ হবার পর বিভিন্ন মাধ্যমে জনসাধারন ধারনা পরিবর্তন হয়েছে। এখন সবাই বুঝতে পারছেন টিকা গ্রহনে কোভিড আক্রান্ত হলেও অবস্হা খারাপের দিকে যাচ্ছে না। সবার মধ্যেই এখন টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়ে যে বিরুপ ধারণা ছিল এটা কমে এসেছে।
এখন প্রতিদিনই উপজেলা স্বাস্হ্য কমপ্লেক্সে আমরা প্রায় দেড় শতাধিক মতো টিকা প্রদান করছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com