৫০ ঢাবি শিক্ষার্থীকে আসামি করে প্রশাসনের মামলা

৫০ ঢাবি শিক্ষার্থীকে আসামি করে প্রশাসনের মামলা

বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা কর্মকর্তা মো. কামরুল আহসান খান বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার বিকালে শাহবাগ থানায় এই মামলা করেন বলে ওসি আবুল হাসান জানিয়েছেন।

মামলায় কারও নাম উল্লেখ না করে অজ্ঞাত পরিচয় ৫০ জনকে আসামি করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক এ কে এম গোলাম রব্বানীও মামলা দায়েরের বিষয়টি  নিশ্চিত করেছেন।

এভাবে ছাত্রদের আন্দোলন দমন করার চেষ্টা ভালো ইঙ্গিত দেয় না বলে প্রশ্সানকে সতর্ক করেছেন ছাত্র ইউনিয়নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি তুহিন কান্তি দাশ।

তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তিন বলেন, “প্রশাসন ছাত্রদের বিরুদ্ধে মামলা করলে ছাত্ররা তাদের প্রত্যাখ্যান করে। এর ফল হয় উল্টো, এতে ছাত্রদের আন্দোলনের গতি বাড়ে।”

পরে রাত ১২টার দিকে মামলার প্রতিবাদে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল বের করে প্রক্টর গোলাম রব্বানীর পদত্যাগ দাবি করেন শিক্ষার্থীরা। টিএসসি থেকে মিছিল শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক ঘুরে রাজু ভাস্কর্যে এসে তা শেষ হয়।

সেখানে সমাবেশে বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের স্নাতকোত্তরের ছাত্র মাসুদ আল মেহেদি মামলা প্রত্যাহার ও প্রক্টরের পদত্যাগ দাবিতে শুক্রবার বিকাল ৫টায় মশাল মিছিল কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

ঢাকার সাত সরকারি কলেজের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর সোমবার উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে চড়াও হয় ছাত্রলীগ। ওই আন্দোলনের সমন্বয়কারী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজির ছাত্র মশিউরকে ধরে নিয়ে পুলিশের দেওয়ার একদিন পর তাকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে শাহবাগ থানা।

ওই দিন ‘হামলাকারী’ ছাত্রলীগ কর্মীরা ছাত্রীদের নিপীড়ন করে বলেও আন্দোলনকারীদের অভিযোগ। এর প্রতিবাদে ‘নিপীড়ন বিরোধী শিক্ষার্থীবৃন্দ’ ব্যানারে বুধবার সকালে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলের পর প্রক্টর কার্যালয় ঘেরাও করতে যায় একদল শিক্ষার্থী।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি বিভিন্ন বাম সংগঠনের নেতাকর্মীদেরও এ কর্মসূচিতে দেখা যায়। শিক্ষার্থীদের আসতে দেখে ওই কার্যালয়ের গেইটে তালা আটকে দেওয়া হয়। কিন্তু শিক্ষার্থীরা তখন কলাপসিবল ফটকই ভেঙে ফেলেন।

দুদিন আগে শিক্ষার্থীদের কর্মসূচিতে ‘হামলা’ ও ‘ছাত্রী নিপীড়নে’ জড়িত ছাত্রলীগের আট নেতাকর্মীকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বহিষ্কার এবং ছাত্র প্রতিনিধিদের নিয়ে তদন্ত কমিটি করে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে প্রতিবেদন প্রকাশের দাবিতে স্লোগান দিতে থাকেন তারা।

এক পর্যায়ে প্রক্টর গোলাম রব্বানী তার কক্ষ থেকে বেরিয়ে এসে কলাভবনের গেইটে উত্তেজিত ছাত্রদের সঙ্গে কথা বলেন। শিক্ষার্থীরা এ সময় তাদের তিন দফা দাবি প্রক্টরের সামনে তুলে ধরেন। কেউ কেউ তার পদত্যাগের দাবিতে স্লোগানও দেন।

শিক্ষার্থীরা এ সময় ছাত্রলীগের ‘হামলা’ এবং বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের ভূমিকা নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্ন করলে সরাসরি কোনো উত্তর দেননি অধ্যাপক রব্বানী।  ‘যথাযথ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ব্যবস্থা নেওয়া হবে’ বলে তিনি ভেতরে চলে যেতে চাইলে উত্তেজিত শিক্ষার্থীরা তার পথরোধ করে প্রক্টর অফিসের গেইটে বসে পড়েন।

আন্দোলনকারীদের স্লোগানের মধ্যে প্রায় ২০ মিনিট সেখানে নিশ্চুপ দাঁড়িয়ে থাকেন প্রক্টর। তারপর আধাঘণ্টার সময় চেয়ে নিয়ে নিজের কক্ষে যান।

আধা ঘণ্টা পর বেরিয়ে এসে তিনি বলেন, “এটি তদন্ত করে যথাযথ শাস্তির ব্যবস্থা করব। এজন্য সময় লাগবে, সাত দিন সময় দিতে হবে।”

এরপরও শিক্ষার্থীরা মানতে না চাইলে বিকালে তাদের সঙ্গে করে উপাচার্যের কার্যালয়ে যান প্রক্টর। উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান শিক্ষার্থীদের দাবি পূরণের আশ্বাস দিলে ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়ে সেখান থেকে ফিরে যান তারা।

শিক্ষার্থীদের দাবি অনুযায়ী ছাত্রী নিপীড়নের অভিযোগ খতিয়ে দেখতে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে বৃহস্পতিবার রাতে উপাচার্য আখতারুজ্জামান জানিয়েছেন।

কমিটিতে কারা আছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “এগুলো তো বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টরের কাছ থেকে জানতে হবে।”

পরে প্রক্টর গোলাম রব্বানী বলেন, দুই দিনের ঘটনায় দুটি তদন্ত কমিটি করা হয়েছে।

উপাচার্য কার্যালয়ের সামনের ঘটনায় সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক জিনাত হুদাকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের কমিটি করা হয়েছে। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- গণিত বিভাগের অধ্যাপক চন্দ্রনাথ পোদ্দার ও সহকারী প্রক্টর অধ্যাপক আবু আহসান মো. এহসান।

আর সোমবার কলাভবনে ভাংচুরের ঘটনায় অধ্যাপক মাহফুজুর রহমানকে আহ্বায়ক করে আরেকটি তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। এতে অধ্যাপক বেলাল হোসেন ও ড. লুৎফুর কবির সদস্য হিসেবে আছেন।

আর সোমবার কলাভবনে ভাংচুরের ঘটনায় সহকারী প্রক্টর অধ্যাপক মো. মাকসুদুর রহমানকে আহ্বায়ক করে আরেকটি তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। সেখানে পপুলেশন সায়েন্সেস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ বিল্লাল হোসেনকে সদস্য ও সহকারী প্রক্টর সহযোগী অধ্যাপক এ কে লুৎফল কবির সদস্য হিসেবে আছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com