২৩ বছর পর নিখোঁজ বাংলাদেশি মিলল ভারতের কারাগারে!

২৩ বছর পর নিখোঁজ বাংলাদেশি মিলল ভারতের কারাগারে!

২৩ বছর পর নিখোঁজ বাংলাদেশি মিলল ভারতের কারাগারে!
২৩ বছর পর নিখোঁজ বাংলাদেশি মিলল ভারতের কারাগারে!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- সাতক্ষীরা জেলার বাসিন্দা আজবার। ২৩ বছর আগে হঠাৎ করেই নিখোঁজ হন আজবার। দেশের আনাচে-কানাচে অনেক সন্ধান করেও ছেলে আজবারে খোঁজ পাননি বাবা আবদুল করিম পিয়েদা।

আদরের সন্তানের এভাবে উধাও হয়ে যাওয়াটা মানতেই পারছিলেন না মা মোমেনা খাতুন। চোখের পানি ফেলে দেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় আজবারের খোঁজ করে ক্লান্ত হয়ে পড়েন তারা। অতঃপর দীর্ঘ ২৩ বছর পর ভারতের আসামের এক কারাগারে খোঁজ মিলল আজবারের। সম্প্রতি তার সঙ্গে দেখা করেছেন ছোট ভাই ইকবাল পিয়াদা (২৮)।

ভারতের সংবাদমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিন জানায়, ২৩ বছর আগে ভুল করে ভারতে ঢুকে পড়েছিলেন সাতক্ষীরা জেলার বাসিন্দা আজবার পিয়েদা। সে সময় তিনি মানসিকভাবে ভারসাম্যহীন ছিলেন। ৫৫ বছর বয়সী আজবার বর্তমানে সুস্থ আছেন। আজবার এখন আসামের তেজপুর জেলে আছেন। আগামী মাসে তাকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হবে।

৩২ বছর বয়সী আজবার যখন বাংলাদেশ থেকে ভারতে চলে এসেছিলেন তখন ৫ বছর বয়স ছিল ইকবালের। তাই ওই সময়ের কথা খুব ভাল করে মনে নেই বলে তিনি জানান। শুধু মনে আছে, অনেক খোঁজ করেও ছেলের সন্ধান পাননি তার বৃদ্ধ বাবা আবদুল করিম পিয়েদা ও মা মোমেন খাতুন।

এদিকে অবৈধভাবে ভারতে অনুপ্রবেশের অভিযোগে ২০১৫ সালের জুলাইতে আসামের ধেমাজি জেলা থেকে আজবারকে আটক করা হয়। এরপর ভারতীয় পাসপোর্ট আইন ও ফরেনার্স আইনের আওতায় ওই বছরের ১৬ নভেম্বর জেলে পাঠানো হয় তাকে। ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে তেজপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের ডিটেনশন ক্যাম্পে পাঠানো তাকে। পরবর্তীতে সেখান থেকে শুরু হয় তাকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর প্রক্রিয়া।

কিন্তু মানসিক অসুস্থতার কারণে নিজের দেশ ও ঠিকানা সম্পর্কে সঠিক তথ্য দিতে পারছিলেন তিনি। ফলে দেড় বছরের বেশি সময় ধরে তাকে ফেরত পাঠানোর ক্ষেত্রে সমস্যা হচ্ছিল। এরপর কারাগার কর্তৃপক্ষের উদ্যোগে আজবারের চিকিৎসা শুরু চলে। এতে সুস্থ হয়ে ওঠেন আজবার।

আবার দীর্ঘ বছর পর ভাই ইকবালও তার সন্ধান পান। তিনি যে আসামে আছেন তা জানতে পারেন। আজবারকে ফিরিয়ে আনতে বাংলাদেশের একজন ব্যবসায়ী ও সমাজসেবীর সঙ্গে যোগাযোগ করেন ইকবাল। ওই ব্যবসায়ী গুয়াহাটিতে বাংলাদেশের সহকারী হাই কমিশনারের সঙ্গে যোগাযোগ করলে আজবার ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া শুরু হয় আবার।

এক প্রতিক্রিয়ায় ইকবার বলেন, “আমার মা বলেছিলেন দাদা মানসিকভাবে অপ্রকৃতিস্থ ছিলেন এবং ২৩ বছর আগে নিখোঁজ হয়ে যান। আমি যখন একেবারে ছোট ছিলাম, ভাই তখন যেভাবেই হোক ভারতে প্রবেশ করেন। এত বছর পর তাকে সুস্থ দেখতে পেয়ে আমি সত্যিই আনন্দিত। এর জন্য ভারত সরকার ও জেল কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানাতে চাই।”

তেজপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের সুপার মৃন্ময় দাওকা বলেন, “আজবার এখন সম্পূর্ণ সুস্থ। বাংলাদেশে তার পরিবার ও ঠিকানা সম্পর্কে লিখতে পারে। প্রত্যর্পণ সম্পর্কিত সমস্ত নথি তৈরি কাজ শেষ হয়ে গেলে আগামী মাসেই আজবারকে কারাগার থেকে মুক্ত করা হবে।”

পুরো ঘটনায় আজবার নিজেও খুব খুশি। তিনি বলেন, “আমি আমার দেশে ফিরে যেতে চাই। মা ও পরিবারের অন্যদের সঙ্গে দেখা করার জন্য মুখিয়ে আছি।”

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com