২০১৯ সালে আবিষ্কৃত ৮ প্রাণী

২০১৯ সালে আবিষ্কৃত ৮ প্রাণী

২০১৯ সালে আবিষ্কৃত ৮ প্রাণী
২০১৯ সালে আবিষ্কৃত ৮ প্রাণী

সাম্প্রতিক সময়ে জলবায়ুর অস্বাভাবিক পরিবর্তন বিশ্বব্যাপী প্রাণীদের সর্বনাশ ডেকে আনছে। এ বছরের মে মাসে জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, ক্রমবর্ধমান জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে আমাদের পৃথিবীর প্রায় ১ মিলিয়ন প্রজাতি বিলুপ্ত হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে। প্রজাতিদের বিলুপ্ত হওয়া খুব দ্রুতহারেই বাড়ছে। পরিবেশপ্রেমীদের জন্য এটি একটি ভয়াবহ সংবাদ।

তবে এতোকিছুর পরেও এখনও কিছু ভালো খবর আছে যেগুলো প্রাণীপ্রেমীদের মনে স্বস্তি যোগায়। প্রতিবছরই নতুন নতুন প্রজাতি আবিষ্কার করে চলছেন বিজ্ঞানীরা। ২০১৯ সালও এর ব্যতিক্রম ছিল না। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিজ্ঞানীরা বছর জুড়েই জলে এবং স্থলে নানা ধরনের নতুন প্রজাতির প্রাণী আবিষ্কার করেছেন। শুধু এক ক্যালিফোর্নিয়া একাডেমি অব সায়েন্সেসের গবেষকরাই এ বছর ৭১ প্রজাতির নতুন প্রাণী ও উদ্ভিদের সন্ধান পেয়েছেন। এ বছর অন্যান্য দেশের বিজ্ঞানীদের আবিষ্কারের তালিকাও বেশ লম্বা। এর মধ্যে ৮টি প্রজাতি সম্পর্কে জেনে নিই চলুন।

এপিনেফেলাস ফসকোমার্জিনাস মাছ

কে জানে কতজন অস্ট্রেলিয়ান না জেনে একদম নতুন প্রজাতির এই মাছটিকে বাজার থেকে কিনে নিয়ে গেছে রাতের খাবারের জন্য। রহস্যময় গ্রোপার প্রজাতির মাছের এই প্রজাতিটিকে সম্পূর্ণ নতুন প্রজাতি হিসেবে শনাক্ত করেছেন অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ড মিউজিয়ামের আইচথিওলজিস্ট জেফ জনসন। তিনি উল্লেখ করেন, এই মাছটি গ্রেট বেরিয়ার রিফের প্রায় ৭২০ ফিট গভীরে থাকে। অন্য সাধারণ মাছগুলোর মতো হওয়ার জন্যই হয়তো কেউ এতোদিন এর দিকে বিশেষ নজর দেয়নি।

স্পেক্টাক্লেড ফ্লাওয়ারপেকার (প্যাসেরিফর্মস: ডিকাডেই)

বোর্নিও দ্বীপে খুঁজে পাওয়া ১৩ প্রজাতির ফ্লাওয়ারপেকারের মধ্যে নতুন এই প্রজাতিটি সবচেয়ে আকর্ষণীয় এবং সবার চেয়ে আলাদা। এর চোখের নিচে এবং উপরে দুটি সাদা দাগ এর সৌন্দর্যকে বহুলাংশে বাড়িয়ে দিয়েছে। এই প্রজাতির পাখিটি বোর্নিও দ্বীপের নিম্নভূমি এলাকায় বাস করে এবং পরজীবি প্রাণীদের মতো নিয়ম করে খাবার খায়। তবে দুঃখজনক ব্যাপার হলো এই পাখিটিও তার নিজের আবাসস্থল ধ্বংস হয়ে যেতে দেখছে। খুব শিগগির হয়তো বিলুপ্তপ্রায় প্রাণীদের তালিকায় নাম উঠবে সদ্য আবিষ্কৃত অসাধারণ সুন্দর এই পাখিটির-ও।

ইউরোপ্লাসাস ফেটিসি পাতার মতো লেজযুক্ত গেকো

গাছের পাতার আকৃতির লেজযুক্ত এই গেকোটি আবিষ্কার করা হয় মাদাগাস্কারের জঙ্গল থেকে। এই প্রজাতিটি প্রথমবার খুঁজে পাওয়ার পর বিজ্ঞানীরা একে প্রায় একইরকম দেখতে অন্য একটি প্রজাতির সাথে মিলিয়ে বিশাল এক ভুল করে ফেলেছিলেন। কিন্তু পরবর্তীতে জেনেটিক বিশ্লেষণের মাধ্যমে বিজ্ঞানীরা নিশ্চিত হন যে এটি সম্পূর্ণ আলাদা একটি প্রজাতি। বিজ্ঞানীরা আরো একটি পার্থক্য খুঁজে পেয়েছেন, এই প্রজাতিটি সম্পূর্ণ কালো, লাল দাগযুক্ত এবং চোয়ালগুলো অনেকটা ভেতরের দিকে ঢুকানো। আবাসস্থলের বিরূপ অবস্থা এবং ক্রমাগত অন্য প্রাণীদের শিকার হওয়ার দরুণ আবিষ্কারের সাথে সাথে এই প্রাণীটিকে বিপন্নপ্রায় প্রাণীর তালিকায় স্থান দেওয়া হয়েছে।

ইলেক্ট্রিক ইল

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্মিথসোনিয়ান ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা সম্প্রতি এক অদ্ভুত জিনিস আবিষ্কার করেছেন। অ্যামাজন জঙ্গলে ইলেক্ট্রিক ইলের যে প্রজাতিটির কথা এতোদিন ধরে বিশ্ববাসী জানতো তা আদতে একটি প্রজাতি নয়। তিনটি আলাদা আলাদা প্রজাতির ইলেক্ট্রিক ইল রয়েছে অ্যামাজনে। নতুন দুইটি প্রজাতি আবিষ্কারের পূর্বে গোটা ব্রাজিলজুড়ে ইলেক্ট্রোফরাস ইলেক্ট্রিকাস-কেই একমাত্র ইলেক্ট্রিক ইল হিসেবে গণ্য করা হতো। স্মিথসোনিয়ান বিজ্ঞানীদের তথ্যমতে, ইলেক্ট্রিক ইলের নতুন প্রজাতি ইলেক্ট্রোফরাস ভোল্টাই প্রায় ৮৬০ ভোল্ট পর্যন্ত বিদ্যুৎ সঞ্চার করতে সক্ষম। আর সদ্য আবিষ্কৃত অন্য প্রজাতি ইলেক্ট্রোফোরাস ভারি সম্পর্কে এখন অব্দি তেমন কিছু গবেষকরা জানতে পারেন নি। তবে এই প্রজাতিটি নোংরা কাঁদাজলে থাকতে পছন্দ করে।

রহস্যময় জীব ব্লব

প্যারিস মিউজিয়াম অব ন্যাচারাল হিস্ট্রির গবেষকরা এ বছর অদ্ভুত এক জীব আবিষ্কার করেছেন। কিন্তু জীবটি ফাংগাস বা ছত্রাক কি-না, সে বিষয়ে বিজ্ঞানীরাও নিশ্চিত নন। তারা একে ‘উদ্ভিদ’ বলতে চাচ্ছেন না। আবার সব দিক বিবেচনা করে একে ‘প্রাণী’ও বলছেন না। গবেষকরা বলেছেন, হলুদ ঘন তরলের মতো দেখতে জীবটি ফাঙ্গাসের মতো হলেও তা প্রাণীর মতোই আচরণ করে। আর এতে আছে ৭২০টি লিঙ্গ! এটি পা অথবা ডানা ছাড়াই নড়াচড়া করতে পারে। এমনকি এই জীবটিকে দুই টুকরো করে ফেললেও তা দুই মিনিটেই আবারো নিজের অবস্থায় ফিরে আসতে পারে। এই জীবটির কোনো মুখ নেই, চোখ ও কোনো পাকস্থলী নেই। কিন্তু অদ্ভুত ব্যাপার হলো এটি খাবার শনাক্ত করে তা খেয়ে হজমও করতে পারে। তাই আবিস্কারকরা রহস্যজনক এই জীবটির নাম দিয়েছেন ‘ব্লব’। ১৯৫৮ সালের সায়েন্স ফিকশান হরর মুভির অ্যালিয়েন ‘দ্য ব্লব’-এর নামানুসারে এই এককোষী জীবটির নাম রাখা হয়েছে।

আউনেমা এসপি. ওর্ম

বিশ্বজুড়ে প্রায় ১ মিলিয়ন কীটপতঙ্গের বিস্তার সম্ভবত যথেষ্ট ছিল না। তাইতো গেল সেপ্টেম্বরে বিজ্ঞানীরা নতুন এক প্রজাতির কিট আবিষ্কার করেছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার পূর্ব সিয়েরা পর্বতমালার অতিমাত্রায় নোনতা এবং ক্ষারীয় হ্রদে বিজ্ঞানীরা এই প্রজাতিটির সন্ধান পেয়েছেন। অদ্ভুত এই প্রজাতিটি বিজ্ঞানীদের ইতোমধ্যেই চমকে দিতে শুরু করেছে। বিজ্ঞান বিষয়ক পোর্টাল সায়েন্স ডেইলির বক্তব্য অনুসারে, আণুবীক্ষণিক এই প্রজাতিটির তিনটি আলাদা আলাদা লিঙ্গ রয়েছে। মানব শরীর যে পরিমাণ আর্সেনিক সহ্য করতে পারে তারচেয়ে প্রায় ৫০০ গুণ বেশি আর্সেনিকের মধ্যেও দিব্যি বেঁচে থাকতে পারে এই প্রজাতিটি। উল্লেখ্য যে, এই প্রজাতিটি ক্যাঙ্গারুর মতো দেহের ভিতরে তার বাচ্চাকে বহন করে থাকে।

লুরিডিয়া কোল্যানি মাকড়সা

যুক্তরাজ্যের বিজ্ঞানীদের মধ্যে বিখ্যাত ব্যক্তিদের নামানুসারে আবিষ্কৃত নতুন প্রজাতির নামকরণের প্রতি একটা বিশেষ ঝোঁক রয়েছে। সেই ঝোঁক থেকেই ইউরোপ অঞ্চলে প্রথমবারের মতো পাওয়া সাদা-কালো এবং মখমলের মতো নরম শরীরের এই মাকড়সাটির নামকরণ করা হয়েছে বিখ্যাত সংগীতশিল্পী লু রিডের নামানুসারে। লন্ডনের ইনস্টিটিউট অব জুলজির জুলজিক্যাল সোসাইটির গবেষক সেরজিও হেনরিক এই প্রজাতিটি সম্পর্কে বলেছেন, এটি গর্তে বসবাস করে এবং গর্তের মুখে জাল বুনে রাখে। কিন্তু এই প্রজাতির বুনা জালগুলো অন্যান্য প্রজাতির মাকড়সা থেকে কিছুটা ভিন্ন। এই মাকড়সাটি শুষ্ক এবং উষ্ণ স্থানে থাকতে বেশি পছন্দ করে এবং টেনিব্রিনিডে গোত্রের পোকামাকড় এর সবচেয়ে প্রিয় খাবার।

পডোকেরাস জিনবে অ্যাম্ফিপড

২০১৭ সালে জাপানিজ বিজ্ঞানীরা হাঙরের মুখে নতুন প্রজাতির নরম দেহবিশিষ্ট অসংখ্য কাঁকড়ার সন্ধান পেয়েছিলেন। এরপর বিজ্ঞানীরা এই কাকড়াগুলো নিয়ে গবেষণা করেন এবং এর নামকরণ করেন (জাপানিজ ভাষায় হাঙরকে জিনবে নামে ডাকা হয়)। ধারণা করা হচ্ছে তিন সেন্টিমিটার দীর্ঘ এই প্রজাতিটি প্রাণী ক্ষয়কারী অর্থাৎ মৃত বা মৃতপ্রায় প্রাণীদের দেহাবশেষ খেয়ে বেঁচে থাকে। জাপানিজ বিজ্ঞানীরা যে হাঙরের মুখে এদের প্রথম আবিষ্কার করেছিলেন সেটিও দুর্বল হয়ে মারা গিয়েছিল। বিজ্ঞানীরা এখনও এটা নিশ্চিত হতে পারেন নি যে, ওই প্রজাতির হাঙরই এই নতুন প্রজাতিটির হোস্ট বা বাহক কি না।

নতুন আবিষ্কৃত এই প্রজাতিগুলো এবং পৃথিবীর বিরূপ জলবায়ু সহ্য করেও টিকে থাকা প্রজাতিগুলোকে রক্ষার জন্য আমরা কি বিশ্বব্যাপী প্রাণী সংরক্ষণ এবং জলবায়ু নীতিমালায় পরিবর্তন আনতে পারি না? তা নাহলে ধীরে ধীরে এক এক করে সব প্রজাতিগুলোই হয়তো একদিন বিলুপ্ত প্রজাতির তালিকায় নাম লেখাবে। আর ততোদিনে আমাদেরও পৃথিবীতে টিকে থাকা দুঃসহ হয়ে উঠবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com