হারিয়ে যাচ্ছে কারিগর বাবুই পাখি

হারিয়ে যাচ্ছে কারিগর বাবুই পাখি

হারিয়ে যাচ্ছে কারিগর বাবুই পাখি
হারিয়ে যাচ্ছে কারিগর বাবুই পাখি

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি: সময়ের বিবর্তনে পরিবেশ বিপর্যয়ের কারণে আজ হারিয়ে যেতে বসেছে শিল্পী, সম্প্রীতি এবং সামাজিক বন্ধনের নিদর্শন খ্যঠু বাবুই পাখি ও তার দৃষ্টিনন্দন বাসা। গ্রাম বাংলায় এখন আর আগের মতো বাবুই পাখির বাসা খুব একটা দেখতে পাওয়া যায় না।

“বাবুই পাখিরে ডাকি বলেছে চড়াই,
কুড়েঁঘরে থেকে করো শিল্পের বড়াই”।

কবির কালজয়ী কবিতার লাইন দুটি সকলের মনে দাগ কাটে এই বলে যে, বাবুই পাখি সৃষ্টিশীল শিল্পকর্মের উজ্জ্বল নিদর্শন।

কালের বিবর্তনে এখন বিলুপ্তির পথে বাবুইপাখি। তালগাছে তারা বাসা বাধে আর এই তাল গাছকে করে তোলে নয়নাভিরাম। এমন নিপুন কারিগরী সৃষ্টিতে আর কোন পাখি বাসা বাধতে পারেনা। বাবুই পাখি আবহমান বাংলার শোভা। তারা তাদেও বাসাকে দৃষ্টিনন্দন ও নয়নাভিরাম করে তৈরি করে যা প্রবল ঝড় ও বাতাসেও ক্ষতি করতে পারে না। এত সুন্দর কারুকার্যময় বাসা মানুষের পক্ষেও তৈরি করা কঠিন।

খড়ের ফালি, ধানের পাতা, তালগাছের কচিপাতা, ঝাউগাছ ও লতাপাতা দিয়ে তালগাছে দৃষ্টিনন্দন করে গড়ে তোলে তাদের ছোট্র কুড়েঁঘর। একসাথে এক গাছে দল বেধে তারা সমাজবদ্ধ হয়ে বাস করে যা সকলের জন্য শিক্ষনীয়। বাবুই পাখি একাধরে শিল্পী, স্থপতি ও সামাজিক বন্ধনের নিপুন কারিগর।

ক্রমশই উজাড় হচ্ছে তালগাছ। বছর দশেক আগেও গ্রাম-গঞ্জে নারিকেল, তাল ও সুপারি গাছে বাবুই পাখির বাসা চোখে পড়ত। এখন খুব একটা চোখে পড়েনা বাবুই পাখির বাসা। তাদের অন্যতম বৈশিষ্ট্য হচ্ছে “তারা রাতের বেলায় ঘর আলোকিত করার জন্য জোনাকি পোকা ধরে এনে রাখত আর সকালে ছেড়ে দিত”।

কিশোরগঞ্জ জেলায় হাওড় ও প্রত্যন্ত অঞ্চলের তাল, নারিকেল ও সুপারি গাছে বাবুই পাখির বাসা চোখে পড়ত যা বর্তমানে খুব একটা পড়ে না। পরিবেশবিদদের মতে, তালগাছ লাগানোর মাধ্যমে এ পাখির বিলুপ্তি রোধ করা সম্ভব।

পাখি প্রেমিক ডাঃ সালাহউদ্দিন বলেন, যেভাবে তালগাছ হারিয়ে যাচ্ছে তাতে বাবুই পাখি ও বিলুপ্ত হতে বেশি সময় লাগবে না। বাবুই পাখি বিলুপ্তি যেন না হয় তার জন্য সকলের সচেতনতা ও ব্যাপক ভিত্তিতে তালগাছ লাগানো দরকার।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com