হবিগঞ্জ শহরে টমটম চালকদের দৌরাত্ম্য: ৫ টাকার জন্য বৃদ্ধকে আটকে রাখলো চালক।

হবিগঞ্জ শহরে টমটম চালকদের দৌরাত্ম্য: ৫ টাকার জন্য বৃদ্ধকে আটকে রাখলো চালক।

হবিগঞ্জ শহরে টমটম চালকদের দৌরাত্ম্য: ৫ টাকার জন্য বৃদ্ধকে আটকে রাখলো চালক

স্টাফ রিপোর্টারঃ করোনার সময়ে মানবিক কারণে ৫ টাকার ভাড়া বাড়িয়ে করা হয়েছিল ১০ টাকা। বলা হয়েছিল সরকারি ঘোষণা এলে আগের ৫ টাকা ভাড়াই বহাল থাকবে। দেশের সকল যানবাহন আগের ভাড়ায় ফিরলেও ফিরেনি হবিগঞ্জের তিনচাকার বাহন ইজিবাইক বা টমটমের ভাড়া।

 

সকল যানবাহন এর ভাড়া কমেছে প্রায় দুই মাস হল। কিন্তু হবিগঞ্জের টমটমের ভাড়া কেন আগের অবস্থায় ফিরেনি এর উত্তর পাচ্ছেন না সাধারণ যাত্রীরা। প্রতিদিন এ নিয়ে বাকবিতন্ডা লেগেই আছে। এমনকি এই টমটম বা ইজিবাইকের ভাড়া নিয়ে দুই দলের মারামারিও হয়েছে। কিছুদিন আগে এই টমটম স্ট্যান্ডের আধিপত্য নিয়ে একজনকে প্রাণও দিতে হয়েছে। চালকদের দাবি হবিগঞ্জ পৌর মেয়রের সম্মতি নিয়ে কথিত হবিগঞ্জ টমটম মালিক শ্রমিক পরিষদ মনগড়া ভাড়ার তালিকা করেছে। পৌর কর্তৃপক্ষও নিরব থাকায় যাত্রী সাধারণে ক্ষোভ বাড়ছে। কিন্তু মেয়র এই অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছেন বরাবরই। তিনি বলেছেন, তিনি সম্মতি দেননি। মালিক শ্রমিক সমিতির কতিপয় ব্যক্তি দাবি পেশ করেছিল। জবাবে তিনি বলেছেন, কেউ খুশি হয়ে ৫ টাকা অতিরিক্ত দিলে নিতে। জোর করা যাবে না।

 

যাত্রী ও সচেতন মহলের অভিযোগ টমটম চলাচলের জন্য পৌর এলাকায় সীমানা বেধে দিয়ে ৫ টাকা করে অতিরিক্ত টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এমনকি ৫ টাকা অতিরিক্ত কেউ দিতে না চাইলে চালকরা যাত্রীদের গায়ে হাত তুলছে। গত রবিবার রাতে সার্কিট হাউজ এলাকা থেকে চৌধুরিবাজার যাওয়া এক যাত্রীকে ৫ টাকার জন্য গালিগালাজ করে এক চালক এবং ৩০ মিনিট দাঁড় করিয়ে রাখে। প্রতিবাদ করলে গায়ে হাত তোলার চেষ্টা করে চালক। আশপাশের মানুষ এগিয়ে এসে চালককে বুঝালেও না বুঝায় ওই যাত্রী ১০ টাকা দিয়ে চলে যান।

 

জানা যায়, হবিগঞ্জ পৌর শহরের সাড়ে তিনকিলোমিটার এলাকায় যত দূর চোখ যায়, কেবল টমটমের (ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক) সারি। সড়কের এপাশ-ওপাশ দুই দিকেই এসব যান একটার পেছনে আরেকটা লেগে আছে। সড়কজুড়েই টমটমের অবস্থান। সম্প্রতি মরার উপর খারার গা হয়ে দাঁড়িয়েছে ব্যাটারি চালিত রিকশা। যাত্রীদের প্রয়োজনের তুলনায় বাহনের সংখ্যা বেশি। পথচারীদের হাঁটারও জো নেই। আগে ১০ মিনিটে যেখানে হেঁটে যাওয়া যেত সেখানে এসব যানে চড়লে লাগছে আধা ঘণ্টা।

 

জানা গেছে, শহরের চৌধুরী বাজার থেকে শায়েস্তানগর পর্যন্ত রয়েছে তিন কিলোমিটার সড়ক এবং বেক রোডে রয়েছে আরও প্রায় সাড়ে তিন কিলোমিটার সড়ক। এই দূরত্বের সড়কের মধ্যে সারাক্ষণ কয়েক হাজার টমটম ও ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচলের কারণে শহরে যানজট নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে।

শায়েস্তানগর এলাকার বাসিন্দা রিকশাচালক খালেক (১৮) জানান, টমটমের চাপের কারণে এই শহরে রিকশাচালকেরাও অসহায়। শহরে এত বেশি টমটম, রিকশা চালাতে অলিগলি খুঁজতে হয়। প্রায় একই মন্তব্য করেন কলেজ ছাত্র শাকিল। তিনি বলেন, মোটরসাইকেল চালাতে এই শহরে সবচেয়ে বেশি কষ্ট হয়। টমটমের কারণে অসহনীয় যানজটের কবলে পড়তে হয়।

 

প্রয়োজনের চেয়ে বেশি টমটম চলাচল করায় শহরে যানজট তীব্র রূপ নিয়েছে বলে একাধিক বাসিন্দা অভিযোগ করেছেন। ভুক্তভোগীরা জানান, যানজটের পাশাপাশি টমটমের কারণে প্রায়ই দুর্ঘটনাও ঘটছে। এসব যানের কারণে যাত্রীর সুবিধা নিশ্চিত হওয়ার চেয়েও ভোগান্তি বহুগুণে বেড়েছে। ব্যাটারিচালিত হওয়ায় উচ্চ আদালতের নির্দেশে সারা দেশে টমটমের চলাচল নিষিদ্ধ হলেও হবিগঞ্জ পৌরসভা এসব টমটম চলাচলে নিয়মিত নম্বর প্লেট ইস্যু করে অনুমতি দিচ্ছে।

স্থানীয় বাসিন্দা ও পৌরসভার সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের কাছ থেকে জানা গেছে, ২০১০ সালের দিকে শহরে টমটম চলাচল শুরু হয়। শুরুতে এসব যান সংখ্যায় কম থাকায় যানজটের তীব্রতা ছিল না। তখন টমটম যাত্রীদের কাছে জনপ্রিয় ছিল। কিন্তু ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে টমটমের সংখ্যা। এখন ১ হাজার ৩০০ অনুমোদনপ্রাপ্ত টমটম শহরে যাত্রী পরিবহন করছে। এর বাইরে আরও প্রায় দেড় হাজার টমটম অনুমোদন ছাড়া চলছে। এর বাইরে রয়েছে প্রায় দুই হাজার অনুমোদনহীন ব্যাটারিচালিত রিকশা। সেই সঙ্গে আরও কয়েক হাজার সিএনজিচালিত অটোরিকশা, প্যাডেল রিকশা, পিকআপ, ট্রাক ও ব্যক্তিগত গাড়ি রয়েছে। এসব যানের কারণে ছোট্ট শহরে যানজট এখন নিত্যসঙ্গী।

 

শহরের নতুন ও পুরোনো বাসস্ট্যান্ড, চৌধুরীবাজার, বাইপাস রোড, পুরোনো খোয়াই ব্রিজ, কালীবাড়ি, তিনকোনা পুকুরপাড়, সবুজবাগ, এম এ মোত্তালিব চত্বর, টাউন হল, পুরোনো হাসপাতাল সড়ক, বাণিজ্যিক এলাকায় দেখা গেছে, ঘণ্টার পর ঘণ্টা যানজট লেগে থাকে। এর মধ্যে আবার শহরের বিপণীবিতান ও দোকানে কোনো পার্কিং ব্যবস্থা নেই। দু’জন সচেতন বাসিন্দা জানান, শহরের জন্য এক হাজারের বেশি টমটমের প্রয়োজন নেই। সেখানে কয়েক হাজার টমটম চলাচল করছে। এতে শিক্ষার্থী ও জরুরি প্রয়োজনসহ চিকিৎসাস্থলে রোগীদের পৌঁছাতে বিড়ম্বনায় পড়তে হচ্ছে।

 

জানতে চাইলে মেয়র মো. মিজানুর রহমান জানান, শহরবাসীর চলাচলের পথ সুগম করতে জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় অনুমোদনের পরিপ্রেক্ষিতে শহরে চলাচলের

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com