হবিগঞ্জ জেলার পুলিশ মুক্তিযোদ্ধাদের বীরগাথা” গ্রন্থ-কিছু কথা।

হবিগঞ্জ জেলার পুলিশ মুক্তিযোদ্ধাদের বীরগাথা” গ্রন্থ-কিছু কথা।

“হবিগঞ্জ জেলার পুলিশ মুক্তিযোদ্ধাদের বীরগাথা” গ্রন্থ-কিছু কথা

মোঃ সনজব আলীঃ  মহান মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর অবদান অপরিসীম। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাত ১১টা ৩৫ মিনিটে রাজারবাগ পুলিশ লাইন্সে অবস্থানরত পুলিশ সদস্যরা অস্ত্রাগারের ঘন্টা পিটিয়ে সবাইকে সতর্ক ও একত্রিত করেন। অস্ত্রাগারে কর্তব্যরত কনষ্টেবলের রাইফেল থেকে গুলি করে অস্ত্রাগারের তালা ভাঙ্গে এবং তৎকালীন আর আই মফিজ উদ্দিনের কাছ থেকে জোর করে অস্ত্রাগারের চাবি নিয়ে নিজেদের মধ্যে অস্ত্র ও গোলাবারুদ বিতরণ করেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতার গৌরবান্বিত মুহুর্তের ইতিহাসের অনকেগুলো স্বাক্ষী বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনী।

মহান মুক্তিযুদ্ধে পিছিয়ে নেই হবিগঞ্জের অনেক গর্বিত সন্তান পুলিশ সদস্যও। অনেকের অবদান আজো জড়িয়ে আছে ইতিহাসের জমিনে। হবিগঞ্জ জেলা পুলিশ কর্তৃক প্রকাশিত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা বিপিএম, পিপিএম সম্পাদিত “হবিগঞ্জ জেলার পুলিশ মুক্তিযোদ্ধাদের বীরগাথা” গ্রন্থে একই মলাটে আবদ্ধ করা হয়েছে তৎকালীন সময়ে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীতে কর্মরত হবিগঞ্জের ২৯ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে। যদিও এই বিষয়ে কাজ করা অনেক কঠিন, তবে ৮০ পৃষ্ঠার বইটি পড়ে মনে হলো খুবই সহজে নিজের ঘরের মত সাজিয়েছেন একটি ইতিহাস। কাজ করলেই দৃষ্টান্ত স্থাপন করা যায়- এর বড় একটি প্রমাণ হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা। এই বইটির মাধ্যমে নতুন ও আগামী প্রজন্ম জানতে পারবে পুলিশ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ইতিহাস ও অবদান। মফস্বল এলাকায় মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস প্রণয়ণের যে ধারা সূচিত হচ্ছে, সেই ধারায় একদিন নিশ্চয়ই জাতীয় ইতিহাস আরো সমৃদ্ধ হবে, আরো শক্তিশালী হবে। কেননা জাতীয় ইতিহাসের পথ বিনির্মাণে ভূমিকা রাখবে এ ধরনের আঞ্চলিক ইতিহাসই। যে ইতিহাস অকৃত্রিমভাবে তুলে ধরবে দেশ মাতৃকার অকুতোভয় দুঃসাহসী বীর সন্তানদের। ভালো কাজ করলে অনেক সময় মন্তব্য শুনার সুযোগও হয়। কাজ করা শুরু না করলে মন্তব্যও কেউ করবে না। হবিগঞ্জের যে সকল সূর্য্য সন্তান পুলিশ বাহিনীতে কর্মরত থেকে যুদ্ধে অংশগ্রহন করেছেন, তাদের জীবনকর্ম আরো আগেই সংরক্ষণ করা উচিত ছিলো। পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা বিপিএম, পিপিএম হবিগঞ্জ জেলায় দায়িত্ব গ্রহণের পর পুরো জেলার আইন শৃংখলা নিয়ন্ত্রণে আনার বিভিন্ন প্রক্রিয়া গ্রহন করেন। এর মধ্যে হবিগঞ্জের দাঙ্গা প্রবণতা ছিল প্রবল। এ ক্ষেত্রে তিনি সামাজিক বন্ধন তৈরী করে ইহা নিরসনে কার্যকর ভূমিকা রাখেন। পাশাপাশি সীমান্ত জেলাসহ প্রায় ৯০ কিলোমিটার মহাসড়ক ও আন্তঃ মহাসড়কে দুর্ঘটনা, মাদক ও মানব পাচার ছিল ভয়াবহ। তা তিনি নিয়ন্ত্রণ এবং পুলিশই জনতা, জনতাই পুলিশ, কমিউনিটি পুলিশিং, বিট পুলিশিং এর মাধ্যমে আইন শৃংখলার উল্লেখযোগ্য নিয়ন্ত্রণ, এমনকি সামাজিক নিরাপত্তা বলয় সৃষ্টিসহ বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারী দেখা দিলে হবিগঞ্জের চা সমৃদ্ধ এলাকাসহ পুরো জেলায় কর্মহীন অসহায় মানুষের পুলিশ সদস্যদের বেতন ভাতা থেকে খাদ্য সহায়তাসহ নানামুখী কর্মসুচি গ্রহণ করেন। দু’বছর নিজের দায়িত্ব পালন করার পাশাপাশি মহান মুক্তিযুদ্ধকালে হবিগঞ্জের পুলিশ মুক্তিযোদ্ধাদের বীরগাঁথা গ্রন্থের তথ্য সংগ্রহ করেন তিনি। এ কারণে ইতিহাসের স্বাক্ষী হয়ে থাকবেন হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা বিপিএম, পিপিএম সহ সংশ্লিষ্ট সকলে।

হবিগঞ্জ জেলার পুলিশ মুক্তিযোদ্ধাদের বীরগাঁথা গ্রন্থখানার প্রচ্ছদসহ সামগ্রিক দিকই দৃষ্টি নন্দন। তবে মুদ্রণ জগতে ভুলভ্রান্তি থেকেই যায়। এ সবের আলোচনা সমালোচনা হয়ে থাকাই স্বাভাবিক। তবে যারা এই কাজটি সম্পাদনের সাথে যুক্ত তাদের মনন মেধা আর পরিশ্রমের প্রশংসা করতেই হয়। না করলে কৃপণতাই হবে। আমি আশাবাদী বইটি নতুন প্রজন্ম ও পাঠকের হৃদয়ে স্থান করে নেবে।

এ প্রসঙ্গে আরো একটি কথা বলা দরকার যে, যারা ভাল কাজ করেন তাদের ভুল হয়, যারা কাজ করেন না বা কোন কিছুর সাথে সম্পৃক্ত নন তাদের কোন ভুল নেই। পুলিশ সুপার সহ যারা পুলিশ বাহিনীর বীরগাঁথা গ্রন্থ সৃষ্টিতে শ্রম আর মেধা দিয়ে সোনালী ইতিহাস রচনা করেছেন তাঁদের ধন্যবাদ, কৃতজ্ঞতা জানালে খাটো করা হবে। তাঁদের এই মহতি কর্মই সৃষ্টিশীল ইতিহাসকে শাণিত করবে নিঃসন্দেহে।

ক্ষুদ্র এ পরিসরে আরো একটি বিষয় উল্লেখ করতে চাই। মহান মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সমৃদ্ধ জেলা হবিগঞ্জ। ১৯৭১ সালের ৪ এপ্রিল আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের মহা পরিকল্পনা গ্রহণে গোপন বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় হবিগঞ্জের তেলিয়াপাড়ায়। সেই গোপন বৈঠক থেকেই মুক্তিযুদ্ধের সামরিক সর্বাধিনায়ক জেনারেল মোঃ আতাউল গণি ওসমানীর নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের শপথ বাক্য পাঠ করা হয়। সর্বাধিনায়ক আতাউল গণি ওসমানী নিজের পিস্তল থেকে ফাঁকা গুলি ছুড়ে পাক বাহিনীর বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিকভাবে যুদ্ধের ঘোষণা করেন। এছাড়া ৪ এপ্রিল থেকে তেলিয়াপাড়া চা বাগানের ওই বাংলোটি প্রথম মুক্তি বাহিনীর সদর দপ্তর এবং পরবর্তী সময়ে ৩ ও ৪ নম্বর সেক্টরের কার্যালয় হিসেবে ব্যবহার করা হয়। তাছাড়া মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে ইতিহাসের অনেক গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ও পাক হানাদার বাহিনীর সঙ্গে বেশ কিছু রক্তক্ষয়ী সমর যুদ্ধের সাক্ষীও তেলিয়াপাড়া সহ আশপাশের এলাকা। ইতিহাস আর প্রকৃতি কেমন করে একে অপরের গর্বে উচ্ছসিত, তেলিয়াপাড়ার সেই বাংলো এলাকাটি না দেখলে বিষয়টি কখনো উপলব্ধি করা যাবে না। উক্ত বাংলো, মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সৌধ আর চা বাগানেই শুধু সীমাবদ্ধ নয়। তার চারপাশের ইতিহাস আজ জাতীয়ভাবে গুরুত্বপূর্ণ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com