হবিগঞ্জে হাইকোর্টের তথ্য গোপন রেখে মাদক কারবারীর জামিনের অভিযোগ

হবিগঞ্জে হাইকোর্টের তথ্য গোপন রেখে মাদক কারবারীর জামিনের অভিযোগ

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ ভারতীয় সীমান্ত এলাকা হবিগঞ্জকে বলা হয় মাদকের ট্রানজিট পয়েন্ট। ভারত থেকে আসা মাদক এখান থেকে দেশের বিভিন্ন স্থানে চলে যায়। মাদক ব্যবসা ও বাহনের জন্য রয়েছে একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট। ইদানিং পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি প্রায় প্রতিদিনই মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করলেও বন্ধ হচ্ছে না এই মাদক কারবার। এর পিছনে পাওয়া গেছে নতুন একটি তথ্য। সেটি হল আদালতে জালিয়াতির মাধ্যমে দ্রুত সময়ে মাদক কারবারীরা জামিনে এসে নতুন করে জড়িয়ে যাচ্ছেন এই ব্যবসায়। এই জালিয়াতির নেপথ্য নায়ক এডভোকেট কুতুব উদ্দিন জুয়েলের বিরুদ্ধে এবার অভিযোগ এসেছে হাইকোর্টের তথ্য গোপন করে এবং আসামীকে বেশী কারাবাস দেখিয়ে এক মাদক ব্যবসায়ীকে জামিন করিয়েছেন ওই আইনজীবী। এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ জেলা এডভোকেট সমিতি বরাবর অভিযোগ দায়ের করেছেন তরুণ আইনজীবী এডভোকেট আশরাফুল আলম ফয়সল। অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, তিনি মাধবপুর থানার  জিআর ৮৪/২১ মামলার গ্রেফতারকৃত আসামী জাকির হোসেন এর আইনজীবী হিসাবে জামিন প্রার্থনা করেন। নিম্ন আদালত ও দায়রা জজ আদালতে তার জামিন আবেদন না মঞ্জুর হলে তিনি হাইকোর্টে তার জামিন প্রার্থনা করেন। হাইকোর্টের ২৮ নং কোর্টে তার মামলাটি ফাইল হয় এবং টেন্ডার নাম্বার পরে ১৯১২৭। কিন্তু মামলাটি হাইকোর্টের তালিকায় থাকার পরও এডভোকেট কুতুব উদ্দিন জুয়েল সেই তথ্য গোপন করে এবং তার কাছ থেকে মামলা না নিয়েই দায়রা জজ আদালত থেকে গত ১২ মে জাকির হোসেন এর জামিন করেন। গত ১২ মে ৯৪৪/২১ মিস কেইস এর মাধ্যমে জাকির হোসেন এর জামিনের আবেদনে তাকে গ্রেফতার দেখানো হয় ৭ জানুয়ারী । অথচ ওই আসামী গ্রেফতার হয় ৭ মার্চ। এখানেও বড় ধরনের জালিয়াতির ঘটনা ঘটেছে। আর তার কাছ থেকে মামলা না নিয়েই জামিন করানো পেশাগত অসদাচরন হওয়ায় তিনি এই অভিযোগ করেন।
আদালত সূত্রে জানা যায়, গত ২৭ মে তথ্য জালিয়াতি করে আদালতকে ভূল বুঝিয়ে দুই মাদকবারীকে জামিনে মুক্ত করেন এডভোকেট কুতুব উদ্দিন জুয়েল। এই ঘটনা জানাজানির পরই আদালত প্রাঙ্গনে শুরু হয় তোলপাড়। গত ৮ এপ্রিল মাধবপুর উপজেলার ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের জগদীশপুর মুক্তিযোদ্ধা চত্তর এলাকা থেকে ৫০ বোতল ফেন্সিডিলসহ দুই মাদক কারবারীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত মাদককারবারী নারায়নগঞ্জের সোনারগাঁ থানার গোয়ালদী গ্রামের হাবিবুর রহমান ভূইয়ার ছেলে মামুন ভূইয়া (৩৭) ও নরসিংদীর মাধবদী থানার মৃত নুর হোসেন এর ছেলে নবীর হোসেন (৩২) এর বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা দায়েরের পর আদালতের মাধ্যমে তাদেরকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। পরে তাদের আইনজীবী হিসাবে এডভোকেট মিজানুর রহমান বিভিন্ন সময় আদালতে জামিন প্রার্থনা করেন। কিন্তু গত ২৩ মে আসামীদের স্বজনরা এডভোকেট মিজানুর রহমান এর কাছ থেকে মামলাটি নিয়ে কুতুব উদ্দিন জুয়েল নামে অন্য একজন আইনজীবীর সাথে চুক্তি করে দ্রুত জামিন করানোর শর্তে। পরে তথ্য জালিয়াতির মাধ্যমে হবিগঞ্জের ভারপ্রাপ্ত জেলা ও দায়রা জজ নাসিম রেজার আদালত থেকে গত ২৭ মে দুই আসামীর জামিন হয়। দায়রা জজ আদালতে জামিনের আবেদনে বলা হয় আসামীরা ৯ ফেব্রুয়ারী থেকে জেল হাজতে আছে। অথচ ওই তারিখের অনেক পরে এই ঘটনা ঘটে। আবার দায়রা জজ আদালতে নিম্ন আদালতের  ১২ মে তারিখের আদেশের বিপরীতে জামিন প্রার্থনা করলেও ওই দিন নিম্ন আদালতে জামিন প্রার্থনা করা হয়েছিল একজনের। কিন্তু জাল জালিয়াতির মাধ্যমে দুইজনের জামিন করেন কুতুব উদ্দিন জুয়েল। পরে বিষয়টি আদালতের  নজরে আসলে ভারপ্রাপ্ত দায়রা জজ গত ২ জুন এক আদেশে নবীর হোসেন জামিন বাতিল করেন। একই সাথে এডভোকেট কুতুব উদ্দিন জুয়েলকে কেন তার সনদ বাতিলের জন্য বারকাউন্সিলে সুপারিশ করা হবে না তার কারন দর্শানোর জন্য তিন কার্যদিবসের মধ্যে জেলা এডভোকেট  সমিতির মাধ্যমে জানাতে বলা হয়েছে।
আদালত সূত্রে জানা যায়, হবিগঞ্জের এক সাবেক পিপির জুনিয়র হিসাবে পরিচিত এডভোকেট কুতুব উদ্দিন জুয়েল। তারা উভয়ে মিলেই আদালতে মামলা পরিচালনা করে থাকেন। তথ্য জালিয়াতির মাধ্যমে সহজেই মাদক কারবারীদেরকে জামিন করাতে পারে বলে তার বিশেষ সুনাম ছড়িয়ে পড়ে। বিশেষ করে মাধবপুর উপজেলায় অনেকেই তাকে ব্যারিস্টার কুতুব উদ্দিন জুয়েল নামে সম্বোধন করে। মাদক মামলা থেকে সে প্রতি মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা আদায় করে। আদালতে সাধারনত ব্যাক্তি পর্যায়ে মামলা হলে উভয় পক্ষেই আইনজীবী থাকায় জালিয়াতির তেমন সুযোগ থাকে না। কিন্তু মাদক মামলায় সরকার বাদী হওয়ায় সেখানে কোন আইনজীবী না থাকার সুযোগ নিয়ে সে এই অপকর্ম চালিয়ে আসছে। বিষয়টি এতদিন কারও নজরে না আসলে দুটি ঘটনায় বিষয়টি সামনে চলে আসে। তবে তাকে বাচাতে উঠে পড়ে লেগেছে একটি গ্রুপ। আদালতের আইনজীবী ছাড়াও অনেক রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দও বিষয়টি ধামাচাপা দিতে তদবির করছেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন আইনজীবী বলেন, তার সিনিয়র ও এডভোকেট কুতুব উদ্দিন জুয়েলের মাদক মামলায় যে মিস কেইসগুলো করেছেন সেগুলো তদন্ত করলেই থলের বিড়াল বেড়িয়ে আসবে।
জেলা এডভোকেট সমিতির সভাপতি এডভোকেট আবুল মনসুর এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এ ব্যাপারে ভারপ্রাপ্ত দায়রা জজ এডভোকেট কুতুব উদ্দিন জুয়েলকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছেন এবং আমাদেরকে বিষয়টি অবগত করেছেন। তবে এখনও সে কোন জবাব দেয়নি। আমরা যে কোন অনিয়মের বিরুদ্ধে। যারাই এ ধরনের অপকর্মে জড়িত রয়েছে তাদেরকে খুজে বের করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত।
এ ব্যপারে হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা জানান, বর্তমান সরকার মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছেন। আমরা শুনেছি জালিয়াতির মাধ্যমে মাদককারীদেরকে জামিন করানো হচ্ছে। তবে আমরা কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
বিজিবি-৫৫ ব্যাটালিয়ান অধিনায়ক লে. কর্ণেল সামউন্নবী জানান, এ ধরনের অনিয়ম দুঃখজনক। তবে আমাদেরও একটি দুর্বলতা রয়েছে। মামলা পরিচালনার জন্য আমাদের প্রতিনিধি থাকলে এই সমস্যা হত না। আমরা ভবিষ্যতে দাবী করব যাতে প্রতিটি ব্যাটালিয়ানে এই মামলা পরিচালনার জন্য একজন লোক নিয়োগ করা যায় সেটি নিশ্চিত করার জন্য।
এ ব্যাপারে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান জানান, বিষয়টি আমার নজরে আসেনি। এ ব্যাপারে খোজ খবর নেয়া হবে।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত এডভোকেট কুতুব উদ্দিন জুয়েল এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, কোন ভূয়া তথ্য দেইনি। আদালত হাজতবাস বিবেচনা করেই জামিন মঞ্জুর করেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com