হবিগঞ্জে সীমান্তের ত্রাস দুলনকে গ্রেফতার করায় পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

হবিগঞ্জে সীমান্তের ত্রাস দুলনকে গ্রেফতার করায় পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

হবিগঞ্জে সীমান্তের ত্রাস দুলনকে গ্রেফতার করায় পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা
হবিগঞ্জে সীমান্তের ত্রাস দুলনকে গ্রেফতার করায় পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

হবিগঞ্জের  চুুনারুঘাট সীমান্তের মাদক সম্রাট,বহু অপকর্মের হুতা, সীমান্তের ত্রাস দুলন আহম্মদ প্রকাশ দাঁতপড়া দুলনকে গ্রেপ্তারের ঘটনায় চুনারুঘাট থানার ওসি শেখ নাজমুল হক,তদন্ত ওসি আলী আশরাফ, দারোগা শহিদুল ইসলাম ও দারোগা আঃ বাতেনকে আসামী করে মামলা করেছেন দুলনের স্ত্রী নবীউন নাহার মৌসুমী।
সোমবার হবিগঞ্জ আদালতে মামলাটি দায়ের করেন তিনি।
গত শুক্রবার রাতে প্রায় ৩ ঘন্টা চেষ্টার পর দুলকে গরু চুরি অভিযোগে আমুরোড বাজারস্থ বাসা থেকে আটক করে পুলিশ।
মামলার বাদি মৌসুমী বলেন, পুলিশ তার স্বামী দুলন আহম্মদ দুলনকে বিনা কারনে আটক করে জেলে পাঠিয়েছে। তার স্বামীকে পুলিশ মারধোর করেছে বলেও মামলায় উল্লেখ করেন তিনি। তবে পুলিশের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলাটিকে কাউন্টার মামলা বলেই মনে করছে সাধারন মানুষ। দুলনকে আটকের সময় স্থানীয় ইউপি সদস্য প্যানেল চেয়ারম্যান-
 আঃ রউপ, আমুরোড বাজার পরিচালনা কমিটির আহবায়ক, মুক্তিযোদ্ধা আঃ রহমান আজাদ, সাংবাদিক আজিজুল হক নাসির, সাংবাদিক জিলানী আখঞ্জীসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
এলাকাবাসিরা জানান, চুনারুঘাট উপজেলার আহম্মদাবাদ ইউপি’র বনগাও গ্রামের মৃত মশ্বব উল্লার পুত্র দুলনের (৪৫) বিরোদ্ধে একাধিক মাদক মামলা, লুটপাট ও গরু চুরির মামলা রয়েছে। ২০১৮ সালে দুলন তার ভাই সাবেক চেয়ারম্যান আঃ লতিবকে প্রকাশ্যে দা দিয়ে কুপিয়ে জখম করেছিলো। আমুরোড বাজারের বাসিন্দা এমরান আহমদের বাসায় হামলা করে এমরানকে কুপিয়ে আহত করেছিলে দুলন। এ নিয়ে দুলনের বিরোদ্ধে ৬টি মামলা রয়েছে। কালামন্ডল গ্রামের দরিদ্র মফিলা নামের এক মহিলাকে প্রকাশে পিটিয়ে আহত করার কারনে দুলনের বিরোদ্ধে দুইটি মামলা করেছেন বিধবা ওই মহিলা।
চলতি বছরের ১৫ এপ্রিল চিমটিবিল খাস গ্রামের জনৈক ওয়াহিদ মিয়ার বসত ঘরে হামলা চালিয়ে বিপুল পরিমাল মালামাল লুট করে নিয়ে যায় দুলন। মামলাটি হবিগঞ্জ ডিবি পুলিশ তদন্ত করছে। ২০১৯ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর বাল্লা বিজিবি’র হাতে ২ শ বস্তা চোরাই চা পাতা আটক হলে দুলন প্রকাশ্যে হামলা করে ৩০ বস্তা চা পাতা লুট করে নিয়ে যায়। একই বছর সুন্দরপুর গ্রামের আজিজকে মারধোর করে টাকা কড়ি ছিনতাই করে সে। এ নিয়ে মামলা হয় তার বিরোদ্ধে।
সর্বশেষ গত ১৫ অক্টোবর চিমিবিল খাস গ্রামের সিরাজ মিয়ার ঘর থেকে ৭ টি গরু চুরি করে নিয়ে যায় দুলন। ২০১৮ সালের ২৭ নভেম্বর দুলনকে ৫০ কেজি গাঁজাসহ আটক করেছিলো হবিগঞ্জ ডিবি পুলিশ। তার বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের হুমকীর অভিযোগও রয়েছে।
চুনারুঘাট থানার ওসি শেখ নাজমুল হক বলেন, দুলন সীমান্তের শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী। দুলনের স্বীকারোক্তি মতে তার হেফাজত থেকে দুই চোরাই গরু বনগাঁও সীমান্ত ব্রিকস্ ফিল্ড থেকে
উদ্ধার করা হয়েছে। তার বাসা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে চাপাতি, ছোরাসহ নানান জাতের দেশীয় অস্ত্র। এক প্রশ্নের জবাবে ওসি বলেন,জনপ্রতিনিধিও গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সামনেই দুলনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কৃষকের ৭টি গরু চুরির অভিযোগে তাকে আটক করা হয়। ওসি এলাকার মানুষের উপস্থিতিতেই তার ঘর তল্লাশী করে অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে ভিডিও ক্লিপও মানুষের হাতে হাতে রয়েছে। দুলনের বিরুদ্ধে ১১৯/১৮, ৫২৪/১৮, ১৯০/১৯, চুনারুঘাট থানার সাধারন ডায়েরি নং ৫১৮/১১,০৮,১৯ ইং, জনৈক আজিজ মিয়াকে হত্যার হুমকীর বিষয়ে মামলা, চুনারুঘাট থানার মামলা নং ২৮ তাং ২৫/১১/১৮, চুনারুঘাট থানার মামলা নং ১১ তাং ১৯/১০/১৯ ইং মামলাসহ গোছাপাড়া গ্রামের লাকি আক্তারকে মারধোর করে নগদ টাকা ছিনিয়ে নেয়াসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। কোন কোন মামলার বিচারাধীন ,কোনটা আবার তদন্তও করছে পুলিশ।
সীমান্ত সুত্র জানায়, দুলন সীমান্তের শীর্ষ সন্ত্রাসী হিসেবে পরিচিত। তার ভয়ে এলাকার লোকজন কোনঠাসা। কেউ তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার সাহস পায় না। দুলনকে আটকের পর এলাকায় স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছেন সাধারন মানুষ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com