সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
হবিগঞ্জে শিশু ধর্ষণের ঘটনায় সংবাদ সম্মেলন বানিয়াচং থানাধীন যাত্রাপাশা সাকিনের ৬ বছরের শিশু কন্যাকে ধর্ষণ মামলা রুজুর ২৪ ঘন্টার মধ্যে ধর্ষককে গ্রেফতার।

হবিগঞ্জে শিশু ধর্ষণের ঘটনায় সংবাদ সম্মেলন বানিয়াচং থানাধীন যাত্রাপাশা সাকিনের ৬ বছরের শিশু কন্যাকে ধর্ষণ মামলা রুজুর ২৪ ঘন্টার মধ্যে ধর্ষককে গ্রেফতার।

হবিগঞ্জে শিশু ধর্ষণের ঘটনায় সংবাদ সম্মেলন বানিয়াচং থানাধীন যাত্রাপাশা সাকিনের ৬ বছরের শিশু কন্যাকে ধর্ষণ মামলা রুজুর ২৪ ঘন্টার মধ্যে ধর্ষককে গ্রেফতার

 

মোঃ সনজব আলীঃ  হবিগঞ্জের বানিয়াচঙ্গে শিশু ধর্ষণের বিষয়ে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলন করেছেন পুলিশ সুপার এস, এম মুরাদ আলি। এ সময় তিনি সাংবাদিক সম্মেলনে শিশু ধর্ষণের বর্ণনা দেন। আরো উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল মাহফুজা আক্তার শিমুল , অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হবিগঞ্জ মাহমুদুল, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বানিয়াচং সার্কেল জনাব পলাশ রন্জন দে , হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মাসুক আলী, বানিয়াচং থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি এমরান হোসেন , মোশারফ হবিগঞ্জ জেলা শাখা ডিবি ওসি আল আমিন , অনেক পুলিশ সদস্য ও সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন

তিনি জানান, গত ২১ আগস্ট বিকালে বানিয়াচং যাত্রাপাশা গ্রামে সুকৌশলে ৬ বছরের এক শিশু বাচ্চাকে প্রলোভন দিয়ে, ধর্ষকের ঘরে নিয়ে, ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। পরে রক্তাক্ত অবস্থায় শিশু টি কে তার মা উদ্ধার করে। প্রথমে বানিয়াচং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হয়। শিশুর অবস্থা সংকটপূর্ণ হওয়ায়, দ্রুত হবিগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখানে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। ঘটনা সময় শিশু’ র মা পুকুরে বাসন মাজার কাজে ছিলেন। ধর্ষক পার্শ্ববর্তী বাড়ির মোতাহের মিয়ার ছেলে অলিম মিয়া (১৭) এ বিষয়ে শিশুর বাবা বাদী হয়ে ২২ আগস্ট বানিয়াচং থানায়।

 

শিশু ধর্ষণের অভিযোগ এনে, অলিম মিয়াকে আসামী করে এক মামলা দায়ের করেন যার মামলার নং ১০। ধর্ষক ঘটনার পরেই পালিয়ে যায়। বিষয়টি হবিগঞ্জ পুলিশ সুপার এস এম মুরাদ আলি’র দৃষ্টিতে আসলে তৎক্ষণাত তিনি শিশুটি কে দেখতে হবিগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে ছুটে যান। সেখানে শিশু টি চিকিৎসার খোঁজ খবর ও ঘটনার বিস্তারিত জেনে।

 

বানিয়াচংয়ের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পলাশ রঞ্জন দে কে নির্দেশ দেন। তাহার নেতৃত্বে বানিয়াচং থানায় অফিসার ইনচার্জ এমরান হোসেনসহ একদল পুলিশ মামলা দায়েরের ২৪ ঘণ্টার ভিতরে আজমিরীগঞ্জ উপজেলার বিরাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে ধর্ষক কে গ্রেপ্তার করে ২৩ আগস্ট।

 

মঙ্গলবার দুপুরে ধর্ষক বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্টেট জনাব মোঃ সুলতান উদ্দিন প্রধান এর আদালতে ফৌঃকাঃ বিঃ ১৬৪ ধারা মোতাবেক স্বীকারুক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করে। প্রেরণ করেছে পুলিশ। নির্দেশনা মোতাবেক অফিসার ইনচার্জ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হইয়া ঘটনাস্থল পরিদর্শনসহ ঘটনার সময় ভিকটিম এর শরীরে পরিহিত রক্তের দাগযুক্ত জামা ও অলিম মিয়ার কক্ষে রক্তমাখা বিছানার চাদর জব্দ করেছে। চাঞ্চল্যকর শিশু ধর্ষণের ঘটনার পর এলাকার লোকজনের মাঝে চাঞ্চলের পরিবেশ সৃষ্টি হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com