হবিগঞ্জে লন্ডনী কন্যার স্বামী ও চালককে অপহরন করে ১০লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবী

হবিগঞ্জে লন্ডনী কন্যার স্বামী ও চালককে অপহরন করে ১০লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবী

হবিগঞ্জে লন্ডনী কন্যার স্বামী ও চালককে অপহরন করে ১০লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবী
হবিগঞ্জে লন্ডনী কন্যার স্বামী ও চালককে অপহরন করে ১০লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবী

বুলবুল আহমদ, নবীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ ঢাকা- সিলেট মহা সড়কের থেকে ফিল্মি ফিল্মি স্টাইলে অপহরণ করে মোবাইল ফোনে ১০ লক্ষ টাকার মুক্তিপণ দাবী করেছে অপহরণকারীরা। এ ঘটনায় নবীগঞ্জ থানা পুলিশ মামলা না নিলেও সিলেট রেঞ্জ এর ডিআইজি বরাবারে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। আজ ১৫ দিন অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত সিলেটের মেধাবী আলেম ও কার চালক উদ্ধার হয়নি! তাদের না পেয়ে পরিবারের লোকজন দিশাহারা হয়ে পড়েছেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়সহ সরকারের উর্ধ্বতন কর্মকর্তার সহযোগিতা কামনা করছেন।

ঘটনাটি ঘটেছে, গত ৫মার্চ মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে। ঢাকা- সিলেট মহা সড়কের নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি গ্যাস পাম্প থেকে গ্যাস নিয়ে কিছু দূর যেতে না যেতেই মহা সড়কের পাশে এফ.ডি সুপার মার্কেটের সামনে আসা মাত্রই পিছন দিক থেকে আসা একটি হাইএক্স মাইক্রোবাস প্রাইভেট কার-কে গতিরোধ করে। হাইএক্স গাড়ি থেকে ৪/৫জন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী কারের সামন ও পিছন ভাংচুর করে। এ সময় ভাংচুরের শব্দে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা তাদের বুকে ও মাতায় পিস্তল ধরে বলে এখান থেকে চলে যা। অস্ত্রের ভয়ে উপস্থিত কেউই প্রতিবাদ করা সম্ভব হয়নি। এ সুযোগে সু-কৌশলে গাড়িতে থাকা লন্ডনী কন্যা গাড়ির পিছনের দরজা দিয়ে বের হয়ে পাশের জমিন দিয়ে পালিয়ে আত্মরক্ষা করেন। পরে স্থানীয় লোকজন কালো বুরখা পড়া লন্ডনী মেয়েকে উদ্ধার করে চ্যানেল এস এর অফিসে নিয়ে আসা হয়। এ খবর চতুরদিকে ছড়িয়ে পড়লে, সাংবাদিক, পুলিশ, জনপ্রতিনিধি সহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার লোকজন ঘটনাস্থলে আসেন।

উদ্ধার হওয়া মেয়েটি জানায়, সে জগন্নাথপুর উপজেলার শ্রীধরা পাশা গ্রামের যুক্তরাজ্য প্রবাসী মাওলানা সালাউদ্দিন মনসুর এর কন্যা যুক্তরাজ্য প্রবাসী সরিফা নুসরাত তাইবা। তার স্বামী সিলেট জেলার দক্ষিণ সুরমা উপজেলার লতিফপুর গ্রামের মাওলানা মাহমুদ হোসাইনের পুত্র মাওলানা আব্দুল্লাহ আল মাইমুন। তারা মঙ্গলবার একটি প্রাইভেট কার ঢাকা (মেট্রো-গ ১২-২২৩৪) যোগে মামার বাড়ি জেলা মৌলভীবাজার জেলার রায়পুর (মামরকপুর) যাওয়ার সময় গাড়ির গ্যাস শেষ হওয়ায় আউশকান্দি গ্যাস পাম্পে রাত সাড়ে নয়টার দিকে আসেন। গ্যাস নিয়ে পাম্প থেকে বের হয়ে শেরপুরের দিকে যাওয়ার পথিমধ্যে আউশকান্দিস্থ মহা সড়কের পাশে এড.ডি সুপার মার্কেটের সামনে তাদের ব্যবহৃত প্রাইভেট কারকে বেরিকেট দেয় অপর আরেকটি হাইএক্স মাইক্রো। ৪/৫জন অস্ত্রধারী লোক হাইএক্স গাড়ি থেকে নেমে কারের সামন ও পিছন ভাংচুর করে এবং গাড়ির জানালা দিয়ে টেনে হেছড়ে অস্ত্রের মূখে জিম্মি করে সন্ত্রাসীরা আমার স্বামী মাওলানা আব্দুল্লাহ মায়মুন ও কার চালক-কে তুলে নিয়ে যায়। আমি সু-কৌশলে গাড়ির দরজা খুলে দ্রুত বের হয়ে রাস্তার নিচ দিয়ে দৌড়ে পালাই। পরে লোকজন আমাকে এখানে নিয়ে আসেন। উপস্থিত সাংবাদিক ও স্থানীয় লোকজন মেয়েটির কাছ থেকে বিষয়টি অবগত হন। এসব কথার ফাঁেক তার বাবা মাওলানা সালাউদ্দিন মনসুর ফোন নিয়ে বলেন, তিনি তাজপুর আছেন। আসতে সময় লাগবে ৩০ মিনিট। কিন্তু ৮ থেকে ১০ মিনিটের মধ্যেই মাওলানা সালাউদ্দিন মনসুর তার মেয়ের পাশে এসে উপস্থিত হন। পরে রাত ১টার দিকে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ লন্ডনী কন্যা ও তার বাবাকে প্রথমে আউশকান্দি গ্যাস পাম্পে নিয়ে নিয়ে যায়। এবং অপহরণকারীদের চিহ্নিত করতে সিএনজি গ্যাস পাম্পের সিসি টিভির ফুটেজ সহ বিভিন্ন আলামত সংগ্রহ করে তাদেরকে নবীগঞ্জ থানায় নিয়ে যায়। খবর পেয়ে মাইমুনের বড় ভাই নবীগঞ্জ থানায় আসলে অপহরণকারীদের উদ্ধার করতে ওসি ২দিনের সময় চান। ২দিন পর আবার থানায় এসে যোগাযোগ করলে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ অপারগতা প্রকাশ করে মৌলভীবাজার থানায় মামলা করার পরার্মশ দেয়। পরে সিলেট ডিআইজি বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করে গত রবিবার সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়সহ সরকারের উর্ধ্বতন কর্মকর্তার সহযোগিতা কামনা করে মাইমুনের বড় ভাই।

অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রকাশ, গত ১১ মার্চ ২০১৯ইরেজী সোমবার বিকেল ৪টার সময় অপহরণকারীরা +০০৯৬৩৮৮৮৮৭৬৩ মোবাইল নাম্বার থেকে অপহৃতের চাচার মোবাইল ফোনে কল দিয়ে বলে, মায়মুনকে জীবিত পেতে হলে দশ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দিতে হবে। মাওলানা আব্দুল্লাহ মায়মুন অপহরণকারীদের কাছে আছে বলেও জানায়। এবং আব্দুল্লাহ মায়মুনের সাথে থাকা মোবাইল ০১৭১২ ০৪৫৫০৬ নাম্বার থেকেও তারা কল দিয়ে টাকা দাবী করে। পরদিন ভিক্টিমের পরিবার সেই কলের ভয়েস রেকর্ড ও নাম্বার সহ বিস্তারিত তথ্য জানাতে নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ এর অফিসে যান। সেখানে অফিসার ইনচার্জকে না পেয়ে তদন্ত অফিসার ইনচার্জ এর কাছে অভিযোগ করেন। তদন্ত অফিসার এ ব্যাপারে কোন সহযোগীতা করতে পারবেন না জানিয়ে, অফিসার ইনচার্জ এর সাথে যোগাযোগ করতে পরামর্শ দেন। পরে অফিসার ইনচার্জকে থানায় না পেয়ে ফোন করলে তিনিও এ ব্যাপারে কোন সহযোগিতা করতে পারবেন না বলে জানান। অবশেষে বাধ্য হয়ে গত ১৪ মার্চ অপহৃত বড় ভাই আব্দুল্লাহ আল মুস্তাফিজ সিলেট রেঞ্জ এর ডিআইজি বরাবার একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এবং রবিবার সংবাদ সম্মেলন করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়সহ সরকারের উর্ধ্বতন মহলের সহযোগিতা কামনা করেছে মায়মুনের পরিবার। এদিকে, স্বামীকে খোঁজে না পেয়ে লন্ডনী স্ত্রী সরিফা নুসরাত তৈয়্যিবাও ভেঙ্গে পড়েছেন। এবং পবিারের অন্যান্য স্বজনরা বিভিন্ন স্থানে খুঁজতে খুঁজতে নিরূপায় হয়ে পড়েছেন। কিন্তু ঘটনার ১৫দিন অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত অপহৃত বা অপহরণকারী কাউকে পুলিশ উদ্ধার বা গ্রেফতার করতে না পারায় তাদের পরিবারের লোকজন দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। তারা প্রশাসনের উর্দ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে আকুল আবেদন জানান যে, আব্দুল্লাহ আল মাইমুন ও কার চালককে সুস্থ্য শরীরের তাদের মাঝে ফিরে পেতে। এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত এ ঘটনার মোটিভ এখন পর্যন্ত উৎঘাঠিত হয়নি এবং অপহৃতদের কোনো সন্ধানও পাওয়া যায়নি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com