সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
হবিগঞ্জে কয়েন লেনদেনে অনীহা ব্যবসায়ীদের : উঠে যাচ্ছে ১-২ টাকার কয়েন

হবিগঞ্জে কয়েন লেনদেনে অনীহা ব্যবসায়ীদের : উঠে যাচ্ছে ১-২ টাকার কয়েন

স্টাফ রিপোর্টার : হবিগঞ্জ জেলা শহর সহ মফস্বল এলাকাজুড়ে ২৫ ও ৫০ পয়সার কয়েন দোকানীরা রাখেন না। এ কয়েনগুলো তাদের কাছে অথচ। অথচ সারা দেশ জুড়েই ২৫ ও ৫০ পয়সার কয়েনে বেচা – বিক্রী চলছে।একশ্রেণীর ব্যবসায়ী কাষ্টমারদের ঠকানোর হীন মানসিকতায়ই উল্লেখিত কয়েন না রাখা বা প্রচলন বন্ধ করে দিয়েছেন। কাষ্টমার বা খরিদদার এই কয়েন বাজারজাত করেনি। করেছে সরকার। পাশ্ববর্তী জেলা সমূহে এর ব্যবহার থাকলেও হবিগঞ্জে একটি অসাধু সিন্ডিকেট ২৫ ও ৫০ পয়সার কয়েনে কোন পণ্য বিক্রী করেনা। বিষয়টি হালকাভাবে দেখার কোনো সুযোগ নেই। ক্রেতার পকেট কাটার এই প্রক্রিয়া বলে মনে করেন অনেকে। যেমন ৭ টাকা বা ১৩ টাকার কোন পণ্য কিনলে দোকানী ৭টাকার স্থলে ৮ টাকা,  ১৩ টাকার স্থলে ১৪ টাকাই রেখেদেন। কেউ ফেরত চাইলে একটি চকলেট অথবা একটি দিয়াশলাই ধরিয়ে দেন। ১ টাকা বা দুই টাকার কয়েন দিলে দোকানীরা তা অচল বলে রাখেনা। হবিগঞ্জে একশ্রেণীর অসৎ,  অতি মোনাফাখোর এই ব্যবসায়ীদের পাতা ফাঁদ বলে ভুক্তভোগীদের অভিযোগ। সাধারন পান দোকানী থেকে মনোহারী দোকানগুলো ওই সিন্ডিকেটের নির্দেশনা মতই ক্রেতা সাধারনের পকেট কাটার এই হীন কর্ম চালিয়ে যাচ্ছে। ১ ও ২ টাকার কয়েন যদি অচল হয়ে থাকে তাহলে সরকার তা বন্ধ করবে। হবিগঞ্জের ব্যবসায়ীরা কেন এই বে আইনী কর্মকান্ড চালিয়ে সাধারন মানুষের পকেট কাটবে? প্রতিদিন একটি পান দোকানে বা মনোহারী দোকানে ১ শ জনের কাছ থেকে ১ টাকা করে অতিরিক্ত আদায় করলে ১ শ টাকা দাড়ায়।  এভাবে জেলা শহর সহ জেলার ৯ উপজেলা সদর সহ অসংখ্য গ্রামীন বাজারে প্রতিদিন বিপুল সংখ্যক সাধারন ক্রেতা দোকানী ও ব্যাবসায়ীদের কাছে প্রতারিত হচ্ছেন। এজন্য সরকারী ও বানিজ্যিক ব্যাংকগুলোর কোন দায়দায়িত্ব আছে কিনা তা খতিয়ে দেখা দরকার। জনা কয়েক বয়বসায়ী জানান, এসব খুচরো পয়সা হবিগঞ্জের ব্যাংকগুলো গ্রহন করে না। এসব খুচরো কয়েন গুনতে নাকি তাদের সময় ব্যায় হয়ে যায়। যে কারনে দোকানীরা ২৫ ও ৫০ পয়সার কয়েন রাখেন না। একজন ক্রেতা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন,  এভাবে ১ টাকা ২ টাকা রেখেই নাকি অনেকে কোটিপতি বনে যান। এটা ক্রেতা ঠকানোর এক অভিনব কৌশল বলে তিনি মনে করেন। তিনি আরো বলেন, কখন আবার ৫ টাকার কয়েন ও ওই চক্র না রাখার চক্রান্তে লিপ্ত হয়ে যায়, এ বলা যায় না। ঢাকা – চট্রগ্রাম – সিলেট সহ সব বড় বড় শহরে  ২৫ ও ৫০ পয়সার কয়েনের চলাচল আছে। শুধু হবিগঞ্জ জেলার সর্বত্র এই বেআইনী প্রথা কে বা কারা চালু করে সাধারন মানুষের পকেট কাটার হীন চক্রান্তে লিপ্ত হচ্ছে,  তা খতিয়ে দেখতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সহ প্রশাসনের প্রতি জোর দাবী ভূক্তভোগী মানুষের।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com