হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার শিবজয়নগর গ্রাম, সাবাস-জলিলের অত্যাচারে কয়েকটি পরিবার নিঃস্ব হতে চলেছে

 হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার শিবজয়নগর গ্রাম, সাবাস-জলিলের অত্যাচারে কয়েকটি পরিবার নিঃস্ব হতে চলেছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একটি প্রভাবশালী স্বার্থানেষী চক্রের রোষাণলে পড়ে একই গ্রামের অপর একটি গোষ্টির লোকজন নিঃস্ব হতে চলেছে।

বাড়িঘরে হামলা, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গুড়িয়ে দেয়া এমনকি যখন তখন মারধোর করে কয়েকজনকে পঙ্গু করে দেয়া হয়েছে। লুট করে নেয়া হয়েছে স্বর্ণ, নগদ অর্থসহ মূল্যবান সামগ্রী। দীর্ঘ কয়েক বছর এহেন সন্ত্রাসী কার্যক্রম চলে আসছে। আইনী আশ্রয় নেয়া হয়েছে। কিন্তু আইনী দীর্ঘসূত্রিতার কারণে ওই অপরাধ চক্রটি ধরাকে সরা জ্ঞান করে দিনের পর দিন তাদের অন্যায় অত্যাচার চালিয়ে যাচ্ছে। এ চক্রটি ইতোপূর্বে আরো জঘন্যতম খুনের মতো ঘটনা ঘটিয়েছে।

ঘটনাস্থল ঃ হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর উপজেলার বাঘাসুরা ইউপির শিববিজয়নগর গ্রাম। এই গ্রামের মৃত হুকুম আলীর পুত্র সাবাস আলী, মৃত আব্দুল ওয়াহাবাদের পুত্র আব্দুল জলিলসহ তাদের দুষ্কর্মের সহযোগীরা একই গ্রামের নিরীহ মলাই মিয়ার পুত্র বাহার মিয়াকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। এতে বাহার মিয়ার ডান পা’র হাটুর উপরের হাড় কেটে যায়। ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসা নিলেও তার পা আর স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসার সম্ভাবনা ক্ষীণ হয়ে আসছে। বাহার হয়ত তার এই পা’ টা হারাতেই হবে। এ ব্যাপারে বাহারের চাচাত ভাই আলমগীর হোসেন বাদি হয়ে আব্দুল জলিলসহ ৮ জনের নাম উল্লেখ করে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কগনিজেন্স-৬ আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং-৩০/২১। ঘটনার তারিখ ও সময় ১১/১/২০২১ইং সকাল ১১টা। ঘটনাস্থাল প্রধান আসামি আব্দুল জলিলের বসতবাড়ির সামনের রাস্তায়।
ঘটনার পূর্বাপর ঃ শিবজয়নগর গ্রামের সাবাস আলী, আব্দুল জলিল ও তাদের সংঘবদ্ধ দাঙ্গাবাজ চক্র ২০০৫ইং সাল থেকেই বাহার মিয়া ও তার আত্মীয় স্বজনের সাথে মারদাঙ্গা, ভূমি দখলসহ বাড়ি ঘরে আক্রমণ করে আসছে। এ নিয়ে সামাজিকভাবে তা নিরসনের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু সাবাস আলী ও তার সংঘবদ্ধ দলের গোয়ার্তুমীর কারণে তা সুষ্ঠু সমাধানে আসেনি। এ নিয়ে মামলা মোকদ্দমা চলতে থাকে। মাধবপুর থানায় মামলা নং-৪ (১০) ০৫ইং উদ্ভুত জিআর ২২৫/০৫৪ দায়রা মোকদ্দমা নং ২১৬/২০০৭ইং। জিআর মামলা নং ২৩/২০১২। মাধবপুর থানার জিডি নং-৭০৬, তারিখ-০৯/০৪/২০১৬। এসব পূর্ব বিরোধের জের ধরে কুখ্যাত সাবাস আলী ও তার সংঘবদ্ধ সন্ত্রাসী চক্র একটি শিশুর মৃত্যুর ঘটনাকে ইস্যু করে বাহার মিয়া ও তার আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে অর্তকিত হামলা চালায় এবং লুটপাট করে। স্বর্ণ, মূল্যবান সামগ্রী, গরু বাছুর পর্যন্ত লুট করে নিয়ে যায়। বাড়িঘরের লোকজনকে বেধড়ক মারপিট করে। এমনকি সন্তান সম্ভাবা এক গৃহবধূর পেটে লাথি মেরে অনাগত সন্তানটিও নষ্ট করে দেয়। এ ব্যাপারে বাহার মিয়ার অপর আত্মীয় তাউছ মিয়া বাদি হয়ে সাবাস আলীসহ ১৪ জনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলাটি থানা পুলিশ তদন্ত করে প্রতিবেদন দিলেও পরে আদালতের নির্দেশে মামলা জেলা গোয়েন্দা সংস্থা তদন্ত করে ২৫/০৩/২০১৮ইং তারিখে চার্জশীট দাখিল করে। সিআর মামলা নং ৪২/১৮। মামলার বাদী মৃত কদর আলীর পুত্র তাউছ মিয়া।
মামলায় স্বর্ণসহ মূল্যবান সামগ্রী লুট হওয়ার মূল্য ৩০ লাখ ৭৬ হাজার টাকা। ২০২০ইং সনের ২১ অক্টোবর সকাল পৌণে ৯টায় আব্দুল জলিলসহ তার সংঘবদ্ধ দাঙ্গাবাজ চক্র বাহার ও তার আত্মীয় স্বজনদের বাড়ি ঘরে হামলা চালিয়ে মারপিট ও লুটপাট করে। এ ব্যাপারে বাহার মিয়ার আত্মীয় মারাজ মিয়া বাদি হয়ে ৪৯ জনকে আসামি করে থানায় মামলা করেন। এ মামলাটিও জেলা গোয়েন্দা অফিস তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করে। জিআর ৩৪১/২০ (মাধব)। শিবজয়নগর গ্রামের এই সন্ত্রাসী সাবাস-জলিল গংদের বিরুদ্ধে আইনের আশ্রয় নিয়ে নির্যাতিত পরিবারগুলো স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারছে না। বাড়িঘর ভাংচুর, লুটপাট এমনকি দোকানঘর ভেঙ্গে মালামাল এমনকি টিনসহ ইট পর্যন্ত নিয়ে গেছে। ধারালো অস্ত্র দিয়ে বাহার মিয়াকে এমনভাবে উপর্যুপুরি আঘাত করেছে তাকে জীবনের মতো পঙ্গু করে দিয়েছে। আইনের দীর্ঘসূত্রিতা এবং স্থানীয় একটি কুচক্রি চক্রের সহায়তায় সাবাস-জলিল চক্র দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠছে। চালাচ্ছে অমানবিক নির্যাতন, জুলুম আর লুটপাটের মতো ঘটনা।
তদন্তকারী কর্মকর্তার বক্তব্য ঃ এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই ইসমাইল হোসেন বলেন, এমসির অপেক্ষায় আছি। একজনকে ধৃত করেছি। অপর আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com