স্বামী ঘরে যাবে না জেলে!

স্বামী ঘরে যাবে না জেলে!

বিচারকের দৌলতে এজলাসে পুনর্মিলন নবদম্পতির

পার্থসারথী সেনের প্রশ্ন শুনে লজ্জায় লাল হয়ে উঠল অহনা৷ অস্ফূটে বললেন, ‘‘বালাইষাট! জেলে কেনে যাবে, আমি তো ওর সঙ্গেই ঘরে ফিরতে চাই!’’ বাবা-মা, শ্বশুর শাশুড়ির সামনে লজ্জার মাথা খেয়ে আবেগতাড়িত গৌতম বারবার নিজের স্ত্রী থুড়ি প্রেমিকাকে জরিপ করছিলেন!

লক্ষ্মীবারের দুপুরে এমনই ‘যদিদং হৃদয়ং তব, তদিদং হৃদয়ং মম’-র সাক্ষী থাকল বীরভূম আদালতের জেলা ও দায়রা বিচারকের এজলাস৷

এহেন দৃশ্য দেখে কঠোর বিচারকও রসিকতার সুরে বলে উঠলেন, ‘বাহ্, আমিও তো এটাই চেয়েছিলাম৷ দুষ্টু মিষ্টি করে তোমরা সারাটা জীবন একসঙ্গে, এভাবে কাটাও৷’’ খানিক থেমে যোগ করলেন, ‘‘স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে একটু ঝগড়া না হলে কি প্রেমটা জমে!’’ টেনে আনলেন ‘থ্রি ইডিয়েট’ সিনেমার প্রসঙ্গ -‘সাহস করে নিজের মনের কথা মুখ ফুটে বলতে হয়৷’

বীরভূমের গৌতমের সঙ্গে নদীয়ার অহনার পরিচয় ফেসবুকে৷ গত বছরের ২ মার্চ অগ্নিকে সাক্ষী রেখে চারহাত এক হয়েছিল৷ ৩দিন আগেও ছবিটা ছিল একেবারে উল্টো৷ ‘বেয়াড়া’ স্বামীকে জেলে ভরতে চার দেওয়ালের ব্যক্তিগত ঝগড়াকে আদালত পর্যন্ত টেনে এনেছিলেন অহনা৷ বিচারকের পরামর্শে হোটেলের বন্ধঘরে একসঙ্গে তিনরাত কাটানোর পর ঝগড়া উবে আরও জমাট হয়েছে প্রেমটা৷

স্বভাবতই তৃপ্ত বিচারক বললেন, ‘‘তিনদিন আগে তোমরা দু’জনে আমাদের পরামর্শ না শুনলে চলার পথে বছর ২৫ পর কোথাও তোমাদের দেখা হত৷ তখন দু’জনেই আফশোস করতে৷ মনে পড়ত- জজসাহেব সুযোগ দিয়েছিলেন, হাতে সময়ও ছিল৷ শুধু মুখ ফুটে দু’জন দু’জনকে কাছে টেনে নিতে পারিনি৷ তাই এই পরিণতি৷’’ – তবে সেটা না হওয়ায় তিনি যে ভীষণ খুশি হয়েছেন-তা প্রকাশ করে বিচারক বললেন, ‘‘কি হ্যাপি এন্ডিং হলো তো!’’ একসঙ্গে ঘাড় নেড়ে সম্মতি জানাল গৌতম-অহনা সিউড়ি বাসস্ট্যাণ্ড সংলগ্ন ২০৫ নম্বর রুমের বাসিন্দারা এদিন একটি বেলা করেই ঘুম থেকে উঠেছিলেন৷ পৌনে এগারোটা নাগাদ রিকশা চড়ে তাঁরা পৌঁছন সিউড়ি আদালত চত্বরে৷ আগে থেকেই সেখানে উপস্থিত ছিলেন গৌতমের বাবা সুভাষ দাস, মা শোভনা আর অহনার বাবা অরুপ দাস ও মা নারায়ণী৷ পরনে ছিল লালশাড়ি- লালচাদর ও নীল সার্ট-নীল জিন্স৷ তাড়াহুড়োতে হোটেলের ঘরে সিঁদুর পড়তে ভুলে গিয়েছিলেন অহনা৷ বিচারকের কক্ষে বসে তাই মায়ের কাছ থেকে সিঁদুরের কৌটা চেয়ে নিলেন তিনি৷ স্ত্রীর হাত থেকে সেই কৌটো নিয়ে নিজের হাতে প্রায় একবছর পর সহধর্মিনীকে ফের সিঁদুর পরালেন গৌতম!

যা দেখে আদালত কক্ষেই অনেকে ফিসফিস করে বলছিলেন- সিঁদুরদানই বটে! বিচারক এমন পরামর্শ না দিলে বিয়েটাই তো ভাঙতে বসেছিল! ১১টা ১০ মিনিটে এজলাসে এলেন জেলা ও দায়রা বিচারক পার্থসারথী সেন৷ দু’জনকে নিজের সামনে ডেকে নিলেন৷ বললেন-‘দু’জনে দু’জনের হাত ধরো৷ হাত ধরে প্রতিজ্ঞা করো- তোমরা এই হাত কোনওদিন ছাড়বে না৷’’

এরপরই বিচারক অহনার কাছে জানতে চান- স্বামী ঘরে যাবে না জেলে! এদিন আদালত কক্ষে গৌতম বিচারককে কিছু বলতে চেয়েছিলেন৷ কপট রাগ দেখিয়ে তাঁকে থামিয়ে দেন বিচারক- ‘‘আজ আর আমার সঙ্গে তোমার কোনও কথা নয়৷ আজ শুধু তোমরা দু’জন দু’জনের সঙ্গে কথা বলবে!’’

সরকারি আইনজীবী রঞ্জিৎ গঙ্গোপাধ্যায় বিচারককে জানান-, ‘‘স্যার, আপনার এই উদ্যোগের প্রশংসা করেছে কলকাতা পুলিশ ও সিআইডি৷ ওরা আমাকে ফোন করে বলছে- এই উদ্যোগের জন্য ওরা আমাদের স্যালুট জানাচ্ছে৷’’ যা শুনে বিনয়ী বিচারক বলে ওঠেন- ‘‘স্যালুট আমাদের নয়, ওটা অহনা-গৌতমের প্রাপ্য৷’’

যে এজলাসে অনেক বড় বড় অপরাধীর বিচার হয়েছে, সেই এজলাসই এদিন যেন হয়ে উঠেছিল প্রেমের ক্লাসরুম৷ নবদম্পতির প্রেমকে আরও ঘন করতে রীতিমতো ক্লাস টিচারের ভঙ্গিমায় বিচারক বলতে থাকেন, ‘‘গোলাপ তুলতে গেলে কাঁটা লাগে হাতে৷ তা বলে কি কেউ গোলাপ তোলে না?’’ সস্নেহে যোগ করেন, ‘‘শোনো জীবনটাই হল স্যাক্রিফায়েস, অ্যাডজাস্টমেন্ট৷ সেটা দু’জনকেই সমানভাবে করতে হবে৷’’

এরপরই দুতরফের বাবা মা ও দম্পতিকে সামনে হাজির করিয়ে বিচারক বলে ওঠেন- ‘কি হ্যাপি এন্ডিং তো!’ মেয়ের মায়ের চোখ দিয়ে তখন গড়াচ্ছে আনন্দাশ্রু-‘‘আমি প্রচণ্ড খুশী৷ আরেকটু হলে আমার মেয়েটার সংসার ভাঙতে বসেছিল!’’ গৌতমের বাবা সুভাষবাবু যোগ করেন- ‘বিচারকের এই নজিরবিহীন সিদ্ধান্তের জন্যই আমার ছেলে-বৌ আবার কাছাকাছি এলো!’’

সরকারি আইনজীবীর উদ্যোগে মিষ্টিমুখও হল৷ শেষ এমন ঘটনা কবে দেখেছেন মনে করতে পারছেন না আদালতের প্রবীন আইজীবীরাও৷ বলছেন- শুধু মালাটাই ছিল না৷ তা বাদ দিয়ে চারহাত এক করতে যা যা প্রয়োজন- সবই ছিল৷

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com