সৌদিতে নির্যাতনের শিকার আজমিরিগঞ্জের হুসনার দেশে ফেরার আঁকুতি

সৌদিতে নির্যাতনের শিকার আজমিরিগঞ্জের হুসনার দেশে ফেরার আঁকুতি

সৌদিতে নির্যাতনের শিকার আজমিরিগঞ্জের হুসনার দেশে ফেরার আঁকুতি
সৌদিতে নির্যাতনের শিকার আজমিরিগঞ্জের হুসনার দেশে ফেরার আঁকুতি

নিজস্ব প্রতিনিধি, হবিগঞ্জ: সৌদি আরবে নিয়োগকর্তার নির্যাতনের শিকার বাংলাদেশী নারীকর্মী সুমি আক্তার রেশ কাটতে না কাটতেই আরেক নির্যাতনের শিকার নারীকর্মী ভিডিও বার্তা পাঠিয়েছেন দেশবাসীর কাছে।

হবিগঞ্জের আজমিরিগঞ্জ উপজেলার হুসনা আক্তার (২৪) তার ভিডিও বার্তায় বলেন, ‘আমি মোছা. হুসনা আক্তার। আমার দালালে ভালা কথা কইয়া আমারে পাঠাইছে সৌদি। নিজরাল (নাজরান) এলাকায় আমি কাজ করি। আমি আইসা দেখি ভালা না। ওরা আমার উপর অত্যাচার করে। আমি বাক্কা দিন (১০/১২ দিন) হইছে আছি। এখন এরার অত্যাচার আমি সহ্য করতে পারি না দেইক্কা কইছি আমি যাইমু গা। এই কথা বলায় ওরা আরোও বেশি অত্যাচার করে। আমি এজেন্সির অফিসে ফোন দিছি। অফিসের এরা আমার সাথে খারাপ ব্যবহার করে। আমি আর পারতাছি না। তোমরা যেভাবে ভাবো পারো আমারে বাঁচাও। এরা আমারে বাংলাদেশ পাঠাইতো চায় না। এরা আমারে ইতা করতাছে। আমারে ভালা কামের কথা কইয়া পাঠাইছে দালালে। আমারে ইতা করতাছে ওরা। আমি আর পারতাছি না সহ্য করতাম। তোমরা যেভাবে পারো আমারে নেও।’

হবিগঞ্জের আজমিরিগঞ্জ উপজেলার হুসনা আক্তার (২৪) আর্থিক সচ্ছলতার জন্য গৃহকর্মীর কাজ নিয়ে ১৭দিন আগে ‘আরব ওর্য়াল্ড ডিস্টিভিউশন’ নামে একটি এজেন্সির মাধ্যমে সৌদি আরব যান। সেখানে গৃহকর্তার নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে প্রথমে স্বামী শফিউল্লাকে ভিডিও বার্তা পাঠান।

হুসনার স্বামী ‘আরব ওর্য়াল্ড ডিস্টিভিউশন’ এজেন্সিতে গিয়ে এসব কথা জানালে এজেন্সির সংশ্লিষ্টরা তার কাছে ১ লক্ষ টাকা দাবী করেন। এবং হুসনা সম্পর্কে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করেন। আর্থিক অসচ্চল শফিউল্লা কোনো উপায় না পেয়ে স্ত্রীকে বাঁচানোর জন্য ওই ভিডিও তার এক ভাইয়ের মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করান।

হুসনার পরিবার সূত্রে জানা যায়, হুসনার বাবার পরিবার দরিদ্র তাই বিয়ের তিন মাসের মাথায় বাবা মাকে আর্থিক সহযোগিতা করার জন্য সৌদি যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন তিনি। ১৭ দিন আগে হবিগঞ্জের শাহিন নামে একজন দালাল ‘আরব ওর্য়াল্ড ডিস্টিভিউশন’ নামে একটি এজেন্সির মাধ্যমে গৃহকর্মীর কাজে সৌদি যান হুসনা। এজেন্সি থেকে বলা হয় বাসা বাড়ির কাজ করতে হবে। এবং তাকে ২২ হাজার টাকা বেতন দেওয়া হবে। তবে সৌদি গিয়ে কাজে যোগদানের পরই আর্থিক সচ্ছল হওয়ার স্বপ্ন ভঙ্গ হয় হুসনার। কিন্তু সৌদি গিয়ে বিপাকে পরেন তিনি। অতিরিক্ত কাজের চাপ ও গৃহকর্তার নির্যাতনে শারিরীক ভাবে অসুস্থ হয়ে পরেন হুসনা।

সৌদি যাওয়ার এক সপ্তাহ পরই সেখানে নির্যাতনের কথা স্বামীকে জানান। স্বামী বলেন ফিরে আসার জন্য। তাই তিনি সৌদি আরবের এজেন্সির অফিসে কল করেন। কিন্তু সৌদি আরবের এজেন্সির লোকজন তাকে বাংলাদেশে পাঠাতে অপারগতা প্রকাশ করে এবং তাকে অকথ্য ভাষায় গালাগালি করে। ২ বছরের মধ্যে তাকে দেশে পাঠানো যাবে না বলে জানিয়ে দেয় সৌদি আরবেরর এজেন্সির দায়িত্বরতরা।

এদিকে কোনো উপায় না দেখে দালাল শাহিনকে কল করে সব জানান হুসনার স্বামী শফিউল। তিনি শাহিনকে বলেন আর স্ক্রীকে ফিরিয়ে আনতে। কিন্তু শাহিন স্ত্রীকে ফেরত আনার বদলে তার কাছে ২ লক্ষ টাকা দাবী করেন এবং তার স্ত্রীর নামে খারপ মন্তব্য করেন। পরে তিনি ঢাকায় ‘আরব ওর্য়াল্ড ডিস্টিভিউশন’ এর অফিসে সরাসরি গিয়ে সব কিছু বলেন। শাহিন ২ লক্ষ টাকা চাইছে সেটাও বলেন। কিন্তু সেখানেও কোনো লাভ হয়নি। ওই এজেন্সির কর্তব্যরতরা বলেন, ২ বছরের জন্য তাকে পাঠানো হয়েছে। এর আগে আনা যাবে না। এর আগে দেশে আনতে হলে ১ লক্ষ টাকা এজেন্সিকে দিতে হবে।

হুসনার স্বামী শফিউল্লাহ বলেন, আমার স্ত্রী সৌদি যাওয়ার এক সপ্তাহ পরই আমাকে কল দিয়ে নির্যাতনের কথা জানায়। আমি তাকে ফিরে আসার জন্য বলি। কিন্তু এজেন্সির লোকজন তাকে আসতে দিচ্ছে না। এজেন্সিতে কল দিয়ে নির্যাতনের কথা জানিয়ে দেশে ফেরার কথা বললে আমার স্ত্রীকে অকথ্য ভাষায় গালি দেয় এজেন্সির লোকজন। আমার স্ত্রী বলেছে যেখানে কাজ করে সেখান থেকে এজেন্সিতে গেলে এজেন্সির লোকজন গায়ে হাত তোলো মারাত্মক নির্যাতন করে। এখন কি করবো বুঝতেছি না।

তিনি বলেন, তিন মাস আগে আমাদের বিয়ে হয়। বিয়ের পর ২ মাস সে নেত্রকোনায় আমার বাড়িতে ছিল। এরপর আমার শশুড়বাড়ি হবিগঞ্জের আজমিরিগঞ্জ উপজেলার আনন্দপুরে যাই। সেখানে হুসনার বাবা মা তাকে বিদেশ পাঠানোর কথা বলেন। তারা বাবা মার কথার উপর ভরসা করে আমি ও আমার পরিবারের লোকজন বিদেশে যাওয়ার সম্মতি দেই। এখন মনে হচ্ছে সৌদি পাঠানো ভুল হয়েছে।

শফিউল্লাহ বলেন, স্ত্রীকে দেশে ফেরানোর জন্য মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরছি। যে যেখানে বলছে যাচ্ছি। দালাল শাহিনকে কল দিলে সে আমার স্ত্রী সম্পর্কে অনেক খারপ কথা বলে, টাকা চায়। এখন আমিতো আমার স্ত্রীকে ফেলতে পারবো না। আমি আমার মাকে সব বলেছি। তিনি হুসনার সাথে ফোনে কথা বলেছেন। তাকে দেশে ফিরে এসে তার কাছে থাকতে বলেছন।

এ ব্যপারে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান বলেন, নির্যাতনের শিকার নারীর নাম ঠিকানা ও সৌদিতে কোন জায়গায় আছেন সেটা আমাকে জানাতে হবে। তখন আমি মন্ত্রনালয়ে কথা বলে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করবো। এক্ষত্রে তার পরিবারের কেউ যদি এ তথ্য নিয়ে আসেন আমি তাকে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য সার্বিক সহযোগিতা করবো।

প্রবাসে কর্মরত নারীদের নির্যাতন হওয়া নিয়ে ব্র্যাকের তথ্য কর্মকর্তা আল আমিন নয়ন বলেন, সৌদি আরবে কাজ করতে গিয়ে আমাদের দেশের নারী কর্মীরা নানা ভাবে নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। সৌদিতে গৃহকর্মী কাজে নিয়োজিত নারীদের একাংশ গৃহকর্তা কর্তৃক নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। শুধু গৃহকর্তা নয় সৌদির যে এজেন্সিগুলো (মক্তব) নারীকর্মীদের বিভিন্ন বাসায় নিয়োগ দেয় সেই এজেন্সিতেও নারীরা নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। এ বিষয়ে অবশ্যই আমাদের দেশের সরকারের পক্ষ থেকে পদক্ষেপ নেওয়া দরকার। দূতাবাসের মাধ্যমে নির্যাতনকারী নিয়োগকর্তাদের তালিকাভুক্ত করে ব্লাক লিস্টেড তাদের এখানে গৃহকর্মী পাঠানো বন্ধ করা প্রয়োজন। এটা করলে তারা গৃহকর্মীদের প্রয়োজনীয়তা বুঝবেন এবং অন্যান নিয়োগকর্তারা সর্থক হবেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com