সৈনিক-মুক্তিযোদ্ধা হত্যায় জিয়া সরাসরি জড়িত : প্রধানমন্ত্রী

সৈনিক-মুক্তিযোদ্ধা হত্যায় জিয়া সরাসরি জড়িত : প্রধানমন্ত্রী

http://lokaloy24.com/

‘পঁচাত্তর পরবর্তী সময়ে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের আমলে সামরিক ক্যুসহ বিভিন্নভাবে ঘটানো হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে সরকার ব্যবস্থা নেবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা এ ব্যাপারে অবশ্যই, আমি মনে করি আমাদের সাংবাদিক বন্ধুদেরও এ ব্যাপারে উদ্যোগ নেয়া উচিত। আপনারা যখন বলেছেন আমি সরকারের পক্ষ থেকে অন্তত ফাঁসি কাদের দেয়া হলো, যেগুলো জেলখানায় হয়েছে সেগুলোর হয়তো তথ্য পাওয়া যাবে। কিন্তু ফায়ারিং স্কোয়ার্ডে যাদের মারা হয়েছে কোট মার্শাল করে, তাদের সবার তথ্য পাওয়া কিন্তু মুশকিল। জানি না পাওয়া যাবে কি-না। তবে আমরা এটা খবর নেবো, খোঁজ নেবো, এ ব্যাপারে আমরা দেখবো।

এসময় জিয়ার আমলে হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি সামনে আসার প্রশংসা করে তিনি বলেন, বহুদিন পরে হলেও অন্তত মানুষের মনে এই প্রশ্নটা জেগেছে। গতকাল বুধবার গণভবনে যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সে তার ১৪ দিনের সরকারি সফর সম্পর্কে গণমাধ্যমকে অবহিত করার উদ্দেশে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। গণভবন ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে (পিএমও) বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পঁচাত্তরে জাতির পিতাকে হত্যার পর ১৯টি ক্যু হয়।

আর প্রতিটি ক্যুর পর সেনাবাহিনীর হাজার হাজার সৈনিক, অফিসার, বিশেষ করে মুক্তিযোদ্ধাদের নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। দুর্ভাগ্যের বিষয় হলো— এই হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত ছিলো জিয়াউর রহমান সরাসরি নিজে। তারই নির্দেশে।

তিনি আরও বলেন, সে (জিয়াউর রহমান) নিজে সরাসরি এই মৃত্যুদণ্ড দিতো। প্রহসনমূলক বিচার এবং এটা শুধু ফাঁসি দেয়া না। বলতে গেলে সামরিক আদালতে বিচার, কোর্ট মার্শাল এবং কোট মার্শালের পরে তাদের নির্মমভাবে হত্যা করে।

জিয়ার আমলে কত মানুষ হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছে, তা এখনো অজানা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, একেকটা ক্যু হয়েছে, কত মানুষ মারা গেছে, প্রতিটি কারাগারে যে কত মানুষকে ফাঁসি দেয়া হলো। সেই হিসাবটাও কেউ বের করেনি। কোনো সাংবাদিক বা কেউ এটা নিয়ে আজ পর্যন্ত তদন্ত করেননি।

তিনি বলেন, প্রকৃতপক্ষে কত মানুষ মারা গেছে, কত পরিবার তাদের আপনজনের লাশ পায়নি, এই ব্যাপারটা কেউ কখনো সেভাবে তুলে ধরেনি। তো এত কাল পরে হলেও যে বিষয়টি সামনে এসেছে, এটাই হচ্ছে সবচেয়ে বড় কথা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, টেলিভিশনের যে চারজনকে হত্যা করা হয়, সেখানে আমার একজন ফুফাতো ভাইও ছিলো। তাদের হত্যা করে বস্তাবন্দি করে সেখানে…খানা ছিলো, পানি ছিলো, বিল ছিলো— ওখানে ফেলে রাখে। তাদের কাপড় ছোপড় দেখে তাদের চারজনকে চিহ্নিত করা হয়। … এভাবে এই হত্যাকাণ্ডগুলো ঘটেছে।

শেখ হাসিনা বলেন, এখন আমরা গুম-খুনের কথা শুনি, আমাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার অনেক কিছু হচ্ছে। কিন্তু ‘পঁচাত্তরের পর থেকে যে এই ঘটনাগুলো শুরু এবং এত হাজার হাজার মানুষের মৃত্যু, আমি ধন্যবাদ জানাই অন্তত আপনাদের এ ব্যাপারে কিছুটা হলেও চেতনা ফিরেছে এবং আপনারা কথাটা তুলেছেন। আমি আশা করি আরও তথ্য সংগ্রহ হবে। কিভাবে নির্বিচারে এ দেশের মানুষকে জিয়াউর রহমান হত্যা করে গেছে, সেটা বের হবে।

একজন নাগরিক হিসেবে নিজেও বাবা-মায়ের হত্যার বিচার চাইতে পারেননি জানিয়ে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, আমরা তো নিজেরাই ভুক্তভোগী, আমি একজন নাগরিক হিসেবে আমার বাবা-মা, ভাইয়ের হত্যার বিচার পাইনি, মামলা করতে পারিনি। ’৮১ সালে ফিরে আসার পর আমাকে অপেক্ষা করতে হয়েছে। যখন আমি ক্ষমতায় আসতে পেরেছি, তখনই ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স বাতিল করে তারপর সে মামলা করতে সক্ষম হয়েছি। তার আগে কিন্তু মামলা করতে দেয়া হয়নি।

বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার সুযোগ প্রসঙ্গে করা এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে আমার অথরিটিতে বাসায় থাকতে দিয়েছি। বাকিটা আইনের ব্যাপার। অমানবিক একজনকে আমি মানবতা দেখিয়ে বাসায় থাকতে দিয়েছি। আমার কাছে আর কত চান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমার মনে হয় এই প্রশ্ন করার জন্য আপনাদের লজ্জা হওয়া দরকার। যারা আমার বাপ-মা, ভাই, আমার ছোট রাসেলকে পর্যন্ত হত্যা করিয়েছে। তারপরও আমরা অমানুষ না। অমানুষ না দেখেই তাকে (খালেদা জিয়া) তার বাসায় থাকার ব্যবস্থাটুকু আমার এক্সিকিউটিভ অথরিটিতে, আমার হাতে যতটুকু আছে, সেটুকু দিয়ে তার বাসায় থাকার ব্যবস্থা করে দিয়েছি।’

তিনি আরও বলেন, গ্রেনেড হামলার পর আমাদের এতজন আহত। ২২ জন মারা গেছে। একদিনও পার্লামেন্টে সেটার ওপর আলোচনা করতে দেয়নি। যে এত বড় অমানবিকতাকেও আমরা মানবতা দেখিয়েছি। সাম্প্রতিক সময়ে ডিজেলে দাম বৃদ্ধির বিষয়ে সরকার প্রধান বলেন, ডিজেলের দাম বাড়লেও বর্ধিত দামে কৃষকদের ডিজেল কিনতে হবে না। কৃষককে ডিজেল কেনায় ভর্তুকি দেয়া হবে। এতে করে কৃষকরা স্বল্পমূল্যে ডিজেল কিনতে পারবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, অনেকেই ডিজেলের দাম বৃদ্ধির কারণে ক্ষোভ জানাচ্ছেন। কিন্তু আপনারা বলুন সরকারের আয়টা আসবে কোথা থেকে? আমাদের আয়ের উৎস কী? দাম বৃদ্ধির সময়ে বিদেশে ছিলাম বলে যোগাযোগ ছিলো না তা কিন্তু না।

তিনি আরও বলেন, আমার সাথে আলোচনা করেই দাম যৌক্তিক পর্যায়ে নেয়া হয়েছে। করোনা মহামারির পরে বিশ্বের অনেক দেশে খাদ্য নিয়ে হাহাকার রয়েছে, আমাদের দেশে কিন্তু তেমনটা হয়নি। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের প্রাকৃতিক সম্পদ আর কী আছে বলেন? গ্যাসে দেশ নাকি ভাসে। তাই গ্যাস বিক্রি করতে হবে। আমি সেটা করতে চাইনি। গ্যাস বিক্রিতে রাজি হইনি বলে সেবার ক্ষমতায় আসতে পারিনি। আপনারা ভর্তুকির কথা বলছেন। তাহলে বাজেটের সব টাকা ভর্তুকিতেই দিয়ে দেই? এরপর দেশের কিন্তু আর উন্নতি হবে না। কারণ উন্নয়নের সব টাকা চলে যাবে ভর্তুকিতে।

সাংবাদিকদের কাছে প্রধানমন্ত্রী প্রশ্ন রেখে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কত টাকা ভর্তুকি দিতে হয় ডিজেলে? পরে নিজেই উত্তরে বলেন, ‘২৩ হাজার কোটি টাকা। বিদ্যুৎসহ সব মিলিয়ে ৫৩ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিয়ে থাকি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, কৃষকদের জন্য সারের দাম কমিয়েছি। যে সার ৯০ টাকা ছিলো তা ১৫-১৬ টাকা করেছি। কৃষিতে প্রতিটি ক্ষেত্রে সহায়তা দিয়েছি। কার্ড করে দিয়েছি। এখন কৃষক ১০ টাকায় অ্যাকাউন্ট খুলতে পারে। যার মাধ্যমে ভর্তুকির টাকা সরাসরি তাদের কাছে যায়।

তিনি বলেন, করোনার সময় ব্যবসায়ীদের বিশেষ প্রণোদনা দিয়েছি। সুদের হার কমিয়ে অর্ধেক সরকারের পক্ষ থেকে দেয়ার ব্যবস্থা করেছি। শ্রমিকরা যাতে বেতন পায় সে ব্যবস্থা করেছি।

অনেক উন্নত দেশ খাদ্যের জন্য হাহাকার করছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, লন্ডনের সুপার মার্কেটে সাপ্লাই নেই। খাবার জিনিস পর্যন্ত পাওয়া যায় না। বাংলাদেশে খাদ্যের জন্য হাহাকার নেই।

সবাই টাকা উপার্জন করে, ট্যাক্স কতজন দেয়?’ সাংবাদিকদের প্রতি এমন প্রশ্ন ছুড়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের চাল, ডাল, বাড়ি-গাড়ি সবই আছে। তারপরও ট্যাক্স ফাঁকি দেয়ার দিকে নজর, এটাই বাস্তবতা। সরকারের টাকা আসবে কোথা থেকে? এখন বিদ্যুৎ সবার ঘরে ঘরে। এখানেও ভর্তুকি দিতে হচ্ছে। কিন্তু উৎপাদন খরচ তুলতে পারছি না।’

গ্যাসের সঙ্কট মেটাতে সরকার এলএনজি আমদানি করছে এবং সেখানেও বড় অংকের ভর্তুকি দিতে হচ্ছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। স্থানীয় নির্বাচনে দলীয় প্রতীক তুলে নেয়া সংক্রান্তে প্রশ্নে দলীয় প্রার্থিতা উন্মুক্ত করে দেয়ার সম্ভাবনা নাকচ করে সহিংসতার জন্য বিএনপিকে দায়ী করেছেন আওয়ামী লীগ। তিনি বলেন, মুশকিল হচ্ছে এখানে আমরা শুধু চেয়ারম্যান পদে প্রতীক দিচ্ছি, কিন্তু মেম্বার পদে কোনো প্রতীক নেই। তাদের কোনো প্রতীক থাকে না। আপনারা যদি ঘটনাগুলো দেখেন, মেম্বারদের মধ্যেও গোলমাল, তাদের মধ্যেও কাটাকাটি। শুধু যে চেয়ারম্যান প্রতীক দিচ্ছি দেখেই মারামারি তা কিন্তু না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে নির্বাচনি সহিংসতা অনেক কমিয়ে আনা হয়েছে, তবে এটা ঠিক, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সহিংসতা আগেও হয়েছে। এখনো হোক সেটা চাই না। একটা হানাহানি, ভোট দিতে গিয়ে মানুষের প্রাণ যাবে এটা কখনো গ্রহণযোগ্য নয়। বিএনপিসহ বিভিন্ন দল দলীয়ভাবে নির্বাচন না করলেও তাদের নেতারা যে অনেক জায়গায় স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচন করছে, সে বিষয়টি তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, তৃণমূলে দেখা যায় একজনকে নমিনেশন দেয়া হয়েছে, অনেকের আকাঙ্ক্ষা থাকে। নির্বাচন তো সবাই করছে, আমরা যেমন আওয়ামী লীগের নামে করছি, বিএনপি নাম ছাড়া করছে, অন্যান্য দলও করছে। এই যে হানাহানি মারামারি, কোথায় কোথায়, কাদের মধ্যে হচ্ছে— সেটা আপনারা দেখেন। আমাদের দলের মধ্যে যেগুলো হবে, আমরা অবশ্যই ব্যবস্থা নেবো।

‘শুধু ব্যবস্থা না, আমারা যাদের মনোনয়ন দিয়েছি, তাদের বাইরে গিয়ে যারা নির্বাচন করেছে, যতই ভালো প্রার্থী হোক যারাই দলের বাইরে গিয়ে কাজ করেছে, আমরা কিন্তু যথাযথ ব্যবস্থা নেবো। আমরা কিন্তু ছাড়ব না। কিন্তু এদের (আওয়ামী লীগ ও বিদ্রোহী) বাইরে যারা নির্বাচনে হানাহানি করলো, এখন তো তারা দলীয়ভাবে নির্বাচনে আসছে না, সে দিক দিয়ে তারা চালাকিটা ভালোই করলো। নির্বাচনও করছে মারামারিও করছে। উস্কেও দিচ্ছে, আবার বিজয়ীকে সমর্থন দিয়ে আরেকটা মারামারি বাঁধিয়ে দিচ্ছে। কাজেই সেটাও দেখতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, কোনো প্রাণহানি হোক, এটা আমরা কখনো চাই না। এটা হওয়া উচিত না। এটা যেখানে যেখানে ঘটেছে সেখানে আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি। আমাদের যে নির্বাচনি প্রতিশ্রুতি, সেটা কিন্তু আমরা রক্ষা করে যাচ্ছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জনগণের প্রতি যে দায়িত্ববোধ, তা নিয়ে আমরা সবসময় সচেতন। করোনাকালে গ্রাম পর্যায়ে কৃষক থেকে শুরু করে কোনো শ্রেণিপেশার মানুষ নেই যাদের অর্থ দিয়ে সাহায্য করিনি। জিনিসপত্রের দাম যাতে নিয়ন্ত্রণে থাকে, সেই ব্যবস্থা নিয়েছি। উৎপাদন বাড়ানোর ব্যবস্থা নিয়েছি।’

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পরই ক্রিকেট দল নিয়ে নানা সমালোচনা হয়েছে। দলের মধ্যেকার সমন্বয়সহ ক্রিকেট বোর্ড বিসিবির ভূমিকা নিয়েও অনেক আলোচনা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেও ক্রিকেটের একনিষ্ঠ দর্শক। সংবাদ সম্মেলনে তাই একজন সাংবাদিক প্রধানমন্ত্রীর কাছে জানতে চান, ক্রিকেট দলের বিশ্বকাপ পারফরম্যান্স নিয়ে কোনো মন্তব্য করবেন কি-না।

এমন প্রশ্নের জবাবেই প্রধানমন্ত্রী পাল্টা প্রশ্ন করে বসেন, আপনারা এত হতাশ হন কেন? তিনি বলেন, কয়েকটি খেলা তো চমৎকার খেলেছে। বাংলাদেশ দল বিশ্বকাপ খেলেছে, কয়েকটি দেশকে হারাতে পেরেছে, এটিই তো বড় কথা। দল যেটুকু পেরেছে, সেটিই বড় কথা। শেখ হাসিনা বলেন, এ নিয়ে হতাশ হওয়ার কিছু নেই। বরং ক্রিকেটারদের আরও বেশি প্র্যাকটিস করা ও মনোযোগী হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন ধৈর্য ধরতে।

সবসময় সবকিছু পরিকল্পনা অনুযায়ী হয় না এ বিষয়টি তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, আপনি কখনো ক্রিকেট খেলেছেন? কখনো মাঠে গেছেন? ব্যাট-বল ধরেছেন? কখন যে ব্যাট-বলের সংযোগ ঘটবে, ছক্কা হবে— সবসময় সব কিছু অঙ্কে মেলে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, হ্যাঁ, যেটুকু আশা করেছিলাম, সেরকম হয়নি। কিন্তু আমি কাউকে হতাশ বলি না। আমি বলি, আরও ভালো খেলো। আরও মনোযোগী হও, আরও প্র্যাকটিস করো। ছেলেরা কিন্তু করোনার কারণে প্র্যাকটিস করতে পারেনি। তারপরও ছেলেরা ভালো খেলেছে। আরও ভালো করবে। নতুন কিছু ছেলে এসেছে। এরাও ভালো করছে।

কথায় কথায় হতাশ হওয়া ঠিক না— এমন মন্তব্য করেছে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কিছু একটা হলেই হতাশ হওয়া এক ধরনের মানসিক রোগ। একটুতেই হতাশ হওয়া, একটুতেই উৎফুল্ল হয়ে যাওয়া ভালো কথা নয়। ধৈর্য ধরে থাকুন। এর আগে সংবাদ সম্মেলনের শুরুতে সফরকালের নানা দিক তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, কপ-২৬ সম্মেলনে ঢাকা-গ্লাসগো ঘোষণা গৃহীত হওয়া বাংলাদেশের জলবায়ুু কূটনীতিতে অগ্রণী ভূমিকা পালনের ফলাফল। আমি বিশ্বাস করি, বাংলাদেশের নেতৃত্বে সবচেয়ে বেশি ৪৮টি জলবায়ুু ঝুঁকিপূর্ণ দেশের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানদের দ্বারা ঢাকা-গ্লাসগো ঘোষণা গৃহীত হওয়া জলবায়ু কূটনীতিতে আমাদের দেশের অগ্রণী ভূমিকার ফল শেখ হাসিনা বলেন, কপ-২৬-এর প্রধান কৃতিত্ব হলো বিশ্বের রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানরা প্যারিস চুক্তি এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার (এসডিজি) সাথে সামঞ্জস্য রেখে প্রতি বছর ১০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বরাদ্দসহ জলবায়ু তহবিল প্রক্রিয়াকে আরও ত্বরান্বিত করতে সম্মত হয়েছেন। বাংলাদেশসহ ১৪১টি দেশ ২০৩০ সালের মধ্যে সকল ধরনের অরণ্য নিধন রোধে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়।

যুক্তরাজ্য ভিত্তিক সংবাদ সংস্থা বিবিসি সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে তাকে কপ-২৬-এর পাঁচজন চুক্তি প্রস্তুতকারীর একজন হিসেবে নির্বাচিত করেছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘একে আমি বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক সক্ষমতা অর্জন আমাদের নৈতিক পররাষ্ট্রনীতির প্রতি বিশ্ববাসীর আস্থা হিসেবে বিবেচনা করে সম্মানিত বোধ করি।’

তার সফরের বিস্তারিত অবহিত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সে তার দুই সপ্তাহের সফর এবং স্কটল্যান্ডের গ্লাসগোতে অনুষ্ঠিত জাতিসংঘের কপ-২৬ শেষে গত ১৪ নভেম্বর সকালে তিনি দেশে ফিরেছেন।

তিনি জানান, এবারের সফরের বিভিন্ন পর্যায়ে সিভিএফের থিমেটিক অ্যাম্বাসেডর মিজ সায়মা ওয়াজেদ, পররাষ্ট্রমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রী, বন, পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা, সংসদ সদস্য এবং সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিব ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, রাজনীতিবিদ ও বিশিষ্ট ব্যক্তিরা তার সফরসঙ্গী ছিলেন।

এ ছাড়া, ব্যবসায়ীদের একটি প্রতিনিধিদলও তার সফরসঙ্গী ছিলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, কপ-২৬ সম্মেলনের মূল অংশ বিশ্ব নেতাদের শীর্ষ সম্মেলন এবং সাইড ইভেন্ট মিলিয়ে দুই দিনে তিনি ছয়টি বহুপাক্ষিক সভা ও পাঁচটি দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে অংশ নেন।

তিনি বলেন, কোভিড-পরবর্তী বিশ্ব ব্যবস্থায় ৪৮টি দেশের সংগঠন ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরাম-সিভিএফের বর্তমান সভাপতি হিসেবে কপ-২৬ শীর্ষ সম্মেলনে তার অংশগ্রহণ বাংলাদেশ এবং সিভিএফ সদস্য দেশগুলোর স্বার্থ সংরক্ষণে বেশ গুরুত্বপূর্ণ ছিলো।

সম্মেলনের প্রথম দিন ১ নভেম্বর তিনি সিভিএফের চেয়ার হিসেবে ‘বাংলাদেশ ও কমনওয়েলথের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত সিভিএফ-কমনওয়েলথ হাই-লেভেল প্যানেল ডিসকার্সন’-এ তিনি প্রধান অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করে কমনওয়েলথ ও সিভিএফের মধ্যে কার্যকর অংশীদারিত্ব গড়ে তুলতে পরামর্শ দেন। ওইদিন দুপুরে তিনি কপ-২৬-এর মূল অনুষ্ঠান ‘বিশ্ব নেতাদের শীর্ষ সম্মেলন’ এ বিশ্বের রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানদের উপস্থিতিতে বাংলাদেশের প্রত্যাশা ও দাবি-দাওয়া তুলে ধরে তিনি বক্তব্য রাখেন। বৈশ্বিক কার্বন নিঃসরণে বাংলাদেশের দায় মাত্র ০.৪৭ শতাংশেরও কম হওয়া সত্ত্বেও বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর একটি বলে তিনি তার বক্তব্যে তুলে ধরেন।

এ ছাড়া, তিনি সম্প্রতি ইউএনএফসিসিসির কাছে হালনাগাদকৃত ন্যাশনালি ডিটারমাইন্ড কন্ট্রিবিউশন (এনডিসি) প্রদান, মুজিব ক্লাইমেট প্রসপারিটি প্লান অ্যান্ড বাংলাদেশ ক্লাইমেট চেঞ্জ ট্রাস্ট ফান্ডসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন উদ্যোগের বিষয় অবহিত করেন।

পাশাপাশি, সিভিএফের সভাপতি হিসেবে তিনি ক্লাইমেট ইমারজেন্সি প্যাক্ট  গঠনের প্রয়াসের কথা বিশ্ব নেতাদের সামনে তুলে ধরেন। বিশ্ব নেতৃত্বকে একসাথে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী পাঁচ দফা প্রস্তাব উত্থাপনের কথা উল্লেখ করে বলেন, প্রস্তাবগুলো হচ্ছে— প্রধান প্রধান কার্বন নির্গমনকারী দেশসমূহকে উচ্চাভিলাষী এসডিসি প্রণয়ন, উন্নত দেশগুলোকে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় অভিযোজন ও প্রশমনের জন্য ৫০:৫০ অনুপাতে বছরে ১০০ বিলিয়ন ডলারের প্রতিশ্রুত অর্থায়ন নিশ্চিত করা, পরিবেশবান্ধব উন্নত প্রযুক্তিতে ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করা, ক্ষয়ক্ষতিসহ জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সৃষ্ট উদ্বাস্তু সমস্যার সমাধানে একযোগে কাজ করা এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি বাসযোগ্য পৃথিবী গড়ে তোলা।

প্রধানমন্ত্রী ৩১ অক্টোবর থেকে ১৩ নভেম্বর পর্যন্ত গ্লাসগো, লন্ডন ও প্যারিস সফর করেন। সফরকালে তিনি কপ-২৬ সম্মেলন, বাংলাদেশ বিনিয়োগ শীর্ষ সম্মেলন ২০২১, ইউনেস্কো সদর দপ্তরে সৃজনশীল অর্থনীতির জন্য ইউনেস্কো-বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আন্তর্জাতিক পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান, ইউনেস্কোর ৪১তম সাধারণ সম্মেলন, প্যারিস শান্তি ফোরাম, ইউনেস্কোর ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী এবং অন্যান্য উচ্চ পর্যায়ের অনুষ্ঠানে যোগ দেন। প্রায় দুই সপ্তাহের সফর শেষে ১৪ নভেম্বর দেশে ফেরেন প্রধানমন্ত্রী।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com