সাধারণ সম্পাদক পদ হারাতে পারেন ওবায়দুল কাদের!

সাধারণ সম্পাদক পদ হারাতে পারেন ওবায়দুল কাদের!

সাধারণ সম্পাদক পদ হারাতে পারেন ওবায়দুল কাদের!
সাধারণ সম্পাদক পদ হারাতে পারেন ওবায়দুল কাদের!

দেশের ঐতিহ্যবাহী সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ২১ তম জাতীয় সম্মেলন আগামী ২০ ও ২১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। তিন বছর পর পর আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন হয়।

আওয়ামী লীগের সর্বশেষ জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৬ সালের ২২ ও ২৩ অক্টোবর। সে হিসাবে আগামী অক্টোবরের ২৩ তারিখে শেষ হচ্ছে ত্রিবার্ষিক কমিটির মেয়াদ।

ইতোমধ্যেই সম্মেলনের সব প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। আগামী সম্মেলনে দলের সাধারণ সম্পাদক পদে পরিবর্তন আসবে কি না- এ নিয়েও শুরু হয়েছে জোর আলোচনা। বর্তমান সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এ পদে আরেক দফা থাকছেন, না নতুন মুখ আসছে- তা নিয়েও দলের ভেতরে জোর আলোচনা শুরু হয়েছে।

তবে দলের সভাপতি পদ নিয়ে কোনো আলোচনা নেই। এটা নিশ্চিত সভাপতি হিসেবে দলের বর্তমান সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই থাকছেন। টানা আট বার তিনি এ পদে থেকে দলকে সফলভাবে নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

২০ তম জাতীয় সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন ওবায়দুল কাদের। এর আগে এ পদে ছিলেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। জীবনের শেষ দিকে তিনি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে এ পদে অন্যজনকে বিবেচনা করা হয়। অনেকেই আলোচনায় থাকলেও শেষ পর্যন্ত ওবায়দুল কাদেরকে বেছে নেন সভানেত্রী।

সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম চলতি বছরের ৩ জানুয়ারি মৃত্যুবরণ করেন। চলতি বছরের মার্চেই ওবায়দুল কাদেরও স্টোক করলে বাঁচার সম্ভাবনাই ছিল না। শেষ পর্যন্ত সিঙ্গাপুরের ১ মাস চিকিৎসাধীন থাকার পর সুস্থ হন তিনি। গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ায় আগামী সম্মেলনে তিনি সাধারণ সম্পাদক পদে আসতে পারবেন কিনা এ নিয়ে সন্দিহান দলের শীর্ষ অনেক নেতা।

এ বিষয়ে ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভিকে দেয়া এক মন্তব্যে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরুল্লাহ বলেন, শেখ হাসিনা এখন থেকেই দলের জন্য প্লানিং শুরু করেছেন, আগামী পাঁচ-দশ বছর পর কারা দলের নেতৃত্ব দেবে। এভাবে তিনি যুগোপযোগী সিদ্ধান্তে তিনি যাবেন।

তিনি বলেন, নতুনদের জায়গা করে দিতে তো পুরনোদের কাউকে কাউকে জায়গা ছেড়ে দিতে হবে। এটা শিউরলি হবে।

সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে নিয়ে তিনি বলেন, সেক্রেটারি হিসেবে আমাদের ওবায়দুল কাদের সাহেব আছেন। গত মার্চে তিনি মারাত্মক হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হন। প্রধানমন্ত্রী যদি মনে করেন তার জন্য এ দায়িত্ব চাপ হবে তাহলে নতুন নেতৃত্ব আসবে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী সব সময় মানবিক দিক বিবেচনা করেন। কারো উপর চাপ হোক তা তিনি কখনোই চান না। তাই সাধারণ সম্পাদক পদে পরিবর্তন আসতে পারে।

আদর্শে বিশ্বাসী নয় কিন্তু সুবিধা নেয়ার জন্য দলে অনুপ্রবেশ করেছেন এরকম লোকদের কমিটিতে জায়গা হবে না বলেও জানালেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর আরেক সদস্য কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক।

তিনি বলেন, যারা সুবিধাবাদী, অনুপ্রবেশকারী, কারো লেজুরবৃত্তি করে বা অন্য দলের আদর্শ ছেড়ে এখানে এসেছে তাদের বিরুদ্ধে আমরা অবশ্যই কঠোর হবো।

একই ধরনের কথা বর্তমান সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরও বলেছেন। তিনি জানান, দলে শুদ্ধি অভিযান চলছে। বিতর্কিত ও অনুপ্রবেশকারীরা কোনোভাবেই কমিটিতে স্থান পাবে না। এমনকি দলেও তাদের জায়গা হবে না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com