সাংবাদিকদের পরিবারের সদস্য হিসেবে সহযোগিতা কামনা করেছেন এমপি আবু জাহির

সাংবাদিকদের পরিবারের সদস্য হিসেবে সহযোগিতা কামনা করেছেন এমপি আবু জাহির

সাংবাদিকদের পরিবারের সদস্য হিসেবে সহযোগিতা কামনা করেছেন এমপি আবু জাহির
সাংবাদিকদের পরিবারের সদস্য হিসেবে সহযোগিতা কামনা করেছেন এমপি আবু জাহির

নিজস্ব প্রতিনিধি, হবিগঞ্জঃ হবিগঞ্জ-৩ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট মোঃ আবু জাহির এমপি বলেছেন, এক সময় হবিগঞ্জ ছিল অবহেলিত। সাংবাদিক বন্ধুরা বিষয়টি নিয়ে নিয়মিত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছেন। বিগত ১০ বছর আমি এমপি থাকার পর এই পরিস্থিতি বদলে গিয়ে এখন আলোকিত হবিগঞ্জে পরিণত হয়েছে।

সাংবাদিকদের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে আমি হবিগঞ্জের সম্ভাবনা নিয়ে প্রতিবেদন তুলে ধরার জন্য বারবার অনুরোধ করেছি। আপনারাও এতে এগিয়ে এসেছেন বলেই আজ হবিগঞ্জ আলোকিত হয়েছে। আমি জেলা সদরের এমপি হওয়ায় সমগ্র জেলার মানুষ আমাকে তাদের মানুষ মনে করে এবং হবিগঞ্জে যে উন্নয়ন হয়; তার সুফলও ভোগ করেন পুরো জেলাবাসী। শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ, আড়াইশ’ শয্যার হাসপাতাল, সরকারি বৃন্দাবন কলেজে অনার্স-মাস্টার্স, আধুনিক স্টেডিয়াম এবং জুডিসিয়াল ভবনের উপকারিতা পুরো জেলা ভোগ করছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি আরো বলেন, এক শ্রেণির মানুষ সুযোগ পেলেই আমার পিছনে লাগে। দীর্ঘদিন যাবৎ আমি আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী হিসেবে মাঠে থাকার পরও কিছু ফেসবুক প্রার্থী গুজব ছড়িয়েছে। যারা আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার করেছে তারা কোনও সময়ই আমাকে ভোট দেয় না। আমি নির্বাচনে না আসলে তাদের প্রার্থীর জয়ের সুযোগ হবে, এই আশায় গুজব ছড়ায় তারা।

কিন্তু মনে রাখতে হবে- কুকুরের কামড়, হাঠুর নিচে। আমি কর্মে বিশ্বাস করি এবং আল্লাহর উপর বিশ্বাস ছিল হবিগঞ্জের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে আবারো মনোনয়ন দিবেন। আর সকলেই জানেন, শেখ হাসিনা টাকার বিনিময়ে মনোনয়ন বাণিজ্য করেন না। যে কাজ করে, তাকেই তিনি মনোনয়ন দেন। যেহেতু আমি ভাল কাজ করেছি, তাই মনোনয়ন পাওয়া নিয়ে আমার কোনও সংসয় ছিল না।

এমপি আবু জাহির বলেন, সাংবাদিকদের যে কোনও বিষয়ে আমি পাশে ছিলাম। সাংবাদিকরাও আমাকে আপন করে হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের অজীবন সদস্য পদ দিয়েছেন। আমি এই পরিবারের একজন হিসেবে বলতে চাই, বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিল, তখন তারা টেন্ডারবাজী করেছে। আওয়ামী লীগের কেউ টেন্ডারে গেলে জেলে যেতে হয়েছে। কিন্তু আমার এই ১০ বছরের সময়ে ছাত্রদল, যুবদলের লোকজন অবাধে টেন্ডারে গেছে। আগামী দিনে নির্বাচনে আমি সাংবাদিকদের সহযোগিতা কামনা করছি। এ সময় সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের উন্নয়ন এবং সাংবাদিকদের বিরোধ নিরসনে এমপি আবু জাহিরের ভূমিকার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে শতাধিক সাংবাদিক হাত তুলে আগামী নির্বাচনে তাকে সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

মতবিনিময় সভায় হবিগঞ্জ জেলা শহর ছাড়াও লাখাই এবং শায়েস্তাগঞ্জের সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

মতবিনিময়কালে আরো বক্তৃতা করেন হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি মোহাম্মদ শাবান মিয়া, সাধারণ সম্পাদক রাসেল চৌধুরী, সাবেক সভাপতি এডভোকেট মনসুর উদ্দিন আহমেদ ইকবাল, শফিকুর রহমান চৌধুরী, এডভোকেট রুহুল হাসান শরীফ, হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সহ সভাপতি মোঃ ইসমাইল হোসেন, হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি হারুনুর রশিদ চৌধুরী, শোয়েব চৌধুরী, শায়েস্তাগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মঈনুল ইসলাম রতন, প্রমুখ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com