সব সমস্যা সমাধানের নামে প্রতারণায় ‘জিনের বাদশা’

সব সমস্যা সমাধানের নামে প্রতারণায় ‘জিনের বাদশা’

http://lokaloy24.com
http://lokaloy24.com

লোকালয় ডেস্ক:

আল-আমিন, রাসেল ও সোহাগ। এরা তিন বন্ধু। তাদের সকলের বাড়ি ভোলায়। এক সময় কাজের সন্ধানে তারা আসে রাজধানী ঢাকায়। শুরুটা তাদের ইলেকট্রিশিয়ানের সহযোগী হিসেবে। পরবর্তীকালে তারা নিজেরাই ইলেকট্রিশিয়ান বনে যান। এরপর বিভিন্ন বাসাবাড়িতে কাজ করতে গিয়ে তাদের ইচ্ছা জাগে দ্রুত প্রচুর টাকার মালিক হওয়ার।

যেই চিন্তা, সেই কাজ। এ সময় বিভিন্ন ব্যক্তির কাছে পরামর্শ নিতে শুরু করে। প্রথমে তারা একটি বেসরকারি টিভিসহ বিভিন্ন অনলাইন প্ল্যাটফরমে বিভিন্ন দুরারোগ্য রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া সংক্রান্ত বিজ্ঞাপন দেওয়া শুরু করে। বিজ্ঞাপনে দেওয়া হতো একটি মোবাইল ফোন নম্বর। সেই নম্বরে ফোন দিলে একজন ফোন রিসিভ করে ফোনদাতার কাছ থেকে বিস্তারিত তথ্য নিত। পরে ঐ ফোনদাতাকে বলা হতো তারা যেভাবে কাজ করছেন, তাদের সঙ্গে গরিব মানুষকে একবেলা খাবার দিতে হবে। সে জন্য ৯৯৯ টাকা বা ১১১১ টাকা পাঠাতে হবে। টাকা পেয়ে দেওয়া হতো একটি মোবাইল ফোন নম্বর। বলা হতো রাত ২টা থেকে ৩টার মধ্যে ঐ নম্বরে ফোন করলে জিনের বাদশা কথা বলবেন।

টাকা লেনদেনের পরবর্তী ধাপে ঐ নম্বরে ভুক্তভোগী ফোন করলে একজন পুরুষ ফোন রিসিভ করেন। সালাম বিনিময়ের পর পরিবারের ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য নেন। পরবর্তীকালে জিন-পরীর মায়ের সঙ্গে কথা বলিয়ে দেওয়ার মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দেওয়া হয়। এর মধ্যে চট্টগ্রামের এক নারীর স্বামী বিদেশ থাকেন। তার ছিল দুরারোগ্য ব্যাধি। স্বামীর রোগ মুক্তির আশায় টেলিভিশনে চটকদার বিজ্ঞাপন দেখে কথিত জিনের বাদশাকে ফোন করলে ঐ নারীকে বলা হয়, তার সমস্যার সমাধান করা হবে।

জিনের বাদশা নামধারী চক্রটি ঐ নারীকে ফাঁদে আনার জন্য প্রথমে ৯৯৯ টাকা নেয়। তবে এই টাকা গরিব মানুষদের খাওয়ানো হবে বলে জানানো হয়। এরপর ধাপে ধাপে ‘জিনের বাদশা’র সঙ্গে কথা বলে দুরারোগ্য ব্যাধি থেকে মুক্তি পাওয়ার আশায় প্রায় ২২ লাখ টাকা খোয়ান ঐ নারী। গত ছয় মাসে চক্রটি বিভিন্ন জনের কাছ থেকে ৬০ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। সম্প্রতি সিআইডি পুলিশ আল-আমিন, রাসেল ও সোহাগকে গ্রেফতার করে। বর্তমানে সিআইডি পুলিশ তাদের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে। সিআইডি পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে এ তথ্যই জানিয়েছে গ্রেফতারকৃতরা। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার মুক্তা ধর।

মুক্তা ধর আরও বলেন, আপাতত তাদের জব্দ করা ব্যাংক হিসাবে ১২ লাখ টাকা পাওয়া গেছে। বিস্তারিত তদন্তে টাকার পরিমাণ কয়েক কোটি টাকা হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, প্রতারক চক্রের সঙ্গে জড়িতদের শনাক্ত ও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com