সঞ্চয়পত্রে এসেছে পরিবর্তন

সঞ্চয়পত্রে এসেছে পরিবর্তন

http://lokaloy24.com
http://lokaloy24.com

লাখ-লাখ মানুষের ভরসার জায়গা সঞ্চয়পত্র।দেশের সকল শ্রেণী-পেশার মানুষের কাছে সঞ্চয়পত্র বৈধ ও নিশ্চিত,নিরাপদ আয়ের একটি নির্ভরযোগ্য মাধ্যম।ফলে সঞ্চয়পত্র কেনায় বেশি বেশি ঝুঁকছেন বিনিয়োগকারীরা।
সঞ্চয়পত্র থেকে অর্জিত মুনাফা দিয়ে পারিবারিক ব্যয় নির্বাহ করেন এমন লাখ লাখ গ্রাহক রয়েছেন বাংলাদেশে।
সঞ্চয়পত্র ক্রয় করা সাধারণ মানুষের কাছে একটি বিনিয়োগ হলেও সরকারের জন্য এটি ঋণ।এজন্য বিনিয়োগকারীদের নির্দিষ্ট পরিমাণ সুদ পরিশোধ করতে হয় সরকারকে।
২০২১-২২ অর্থবছরের জন্য সরকার সঞ্চয়পত্র বিক্রি করে ৩২ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেবে।
৩ জুন জাতীয় সংসদে ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। প্রস্তাবিত বাজেটে ঘাটতি ধরা হচ্ছে ২ লাখ ১১ হাজার ১৯১ কোটি টাকা।অনুদান ছাড়া ঘাটতির পরিমাণ হচ্ছে ২ লাখ ১৪ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। বাজেটের ঘাটতি পূরণে সঞ্চয়পত্র থেকে ৩২ হাজার কোটি টাকা ঋণ নেওয়ার লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছে। যা চলতি অর্থবছরের (২০২০-২১)চেয়ে ৬০শতাংশ বেশি।
চলতি অর্থবছরের বাজেটে সঞ্চয়পত্র থেকে ঋণের লক্ষ্য ছিল ২০ হাজার কোটি টাকা। তবে চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম নয় মাসেই সঞ্চয়পত্র নিট বিক্রির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩৩ হাজার ২০ কোটি ৬৫ লাখ টাকা। যা লক্ষ্যের চেয়ে অনেক বেশি।
এদিকে সঞ্চয়পত্র বিক্রি বেশি হওয়ায় বিভিন্ন সময় এর লাগাম টেনে ধরতে এবং সেখান থেকে সরকারের আয় বাড়ানোর জন্য গত কয়েক বছরে বেশ কিছু পরিবর্তন এনেছে সরকার। দুই লাখ টাকার বেশি সঞ্চয়পত্র বা পোস্টাল সেভিংস কিনতে হলে    কর শনাক্তকরণ নম্বর (টিআইএন) বাধ্যতামূলক করা হয়েছে এবারের বাজেটে।
সঞ্চয় অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে,
সঞ্চয়পত্রের পরিবর্তন হয়েছে যেমনটা:
দুই লাখ টাকার বেশি সঞ্চয়পত্র বা পোস্টাল সেভিংস কিনতে হলে কর সনাক্তকরণ নম্বর (টিআইএন) বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত বাজেটে অর্থমন্ত্রী এ কথা জানিয়েছেন।
পাঁচ বছর মেয়াদি সঞ্চয়পত্র শুধু বাংলাদেশ জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তরের আওতাধীন সঞ্চয় ব্যুরো থেকে ক্রয় করা যাবে। অন্য কোন বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে এটি ক্রয় করা যাবে না। দুই সপ্তাহ আগে এই পরিবর্তন এনেছে অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ।
ছয় মাস আগে চালু করা নতুন নিয়ম অনুযায়ী একজন ব্যক্তি সব ধরনের সঞ্চয়পত্র মিলিয়ে সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত বিনিয়োগ করতে পারবেন। তবে যেকোনো একটি স্কিমে ৩০ লাখ টাকার বেশি কিনতে পারবেন না।
এর অতিরিক্ত যৌথ নামে আরো ৫০ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র কেনা যাবে। অর্থাৎ সবমিলিয়ে এক কোটি টাকা পর্যন্ত সঞ্চয়পত্র কেনা যাবে।
সঞ্চয়পত্র ক্রয়ের ক্ষেত্রে অনলাইন ব্যবস্থা চালু হবার আগে বিভিন্ন ধরনের সঞ্চয়পত্রে আলাদাভাবে বিনিয়োগ করা যেত।
কারণ কেউ যদি ক্রয়ের সর্বোচ্চ সীমা অতিক্রম করতো তাহলে সেটি চিহ্নিত করার উপায় ছিল না। কিন্তু এখন সেটি করা যাবে না।
পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত সঞ্চয়পত্রে মুনাফার উপর উৎসে কর দিতে হবে ৫ শতাংশ। এর বেশি সঞ্চয়পত্র থাকলে উৎসে ১০ শতাংশ কর দিতে হবে।
প্রায় দুই বছর আগে এই পরিবর্তন এসেছে। এর উদ্দেশ্য হচ্ছে এ খাত থেকে আরো বেশি টাকা সংগ্রহ করা এবং সঞ্চয়পত্র ক্রয় কিছুটা হলেও নিরুৎসাহিত করা।
ব্যাংক হিসেব ছাড়া সঞ্চয়পত্র কেনা যায় না । দুই বছর আগে এই নিয়ম চালু হয়েছে। সঞ্চয়পত্রের মুনাফা এবং মেয়াদ শেষে বিনিয়োগের মূল টাকা সংশ্লিষ্ট ক্রেতার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে সরাসরি চলে যায়।
দেশে বর্তমানে চার ধরনের সঞ্চয়পত্র রয়েছে। এগুলো হচ্ছে :
১. পাঁচ বছর মেয়াদি বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্র।
২. তিন মাস অন্তর মুনাফা-ভিত্তিক সঞ্চয়পত্র।
৩. পরিবার সঞ্চয়পত্র ও
৪. পেনশনার সঞ্চয়পত্র।
পাঁচ বছর মেয়াদি এবং তিন মাস অন্তর মুনাফাভিত্তিক সঞ্চয়পত্র সব শ্রেণী ও পেশার নাগরিক ক্রয় করতে পারবেন।
পরিবার সঞ্চয়পত্র সবার জন্য নয়। ১৮ বছর ও তার চেয়ে বেশি বয়সী যেকোনো নারী এটি কিনতে পারবেন। তবে শারীরিকভাবে প্রতিবন্ধী পুরুষ কিংবা যেসব পুরুষের বয়স ৬৫ বছর এবং তার চেয়ে বেশি তারা পরিবার সঞ্চয়পত্র কিনতে পারবেন।
পেনশনার সঞ্চয়পত্রও সবার জন্য প্রযোজ্য নয়। সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত, আধা-স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা পেনশনার সঞ্চয়পত্র ক্রয় করতে পারবেন। এছাড়া সুপ্রিম কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এবং সশস্ত্র বাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত সদস্যরা এটি ক্রয় করতে পারবেন।
সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ নিরুৎসাহিত করতে সর্বশেষ ২০১৫ সালের মে মাসে সব ধরনের সঞ্চয়পত্রের সুদহার গড়ে ২ শতাংশ করে কমানো হয়েছিল। বর্তমানে পরিবার সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার ১১ দশমিক ৫২ শতাংশ। পাঁচ বছর মেয়াদি বাংলাদেশ সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার ১১ দশমিক ২৮ শতাংশ, তিন মাস অন্তর মুনাফাভিত্তিক সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার ১১ দশমিক ০৪ শতাংশ, পরিবার সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার ১১ দশমিক ৫২ শতাংশ এবং পেনশনার সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার ১১ দশমিক ৭৬ শতাংশ। ২০১৫ সালের ২৩ মে’র পর থেকে এ হার কার্যকর আছে। এর আগে সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার ছিল ১৩ শতাংশেরও বেশি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com