শীতজনিত রোগ: পঞ্চগড়ে শিশু-বৃদ্ধ রোগী বাড়ছে

শীতজনিত রোগ: পঞ্চগড়ে শিশু-বৃদ্ধ রোগী বাড়ছে

পঞ্চগড় জেলার ৫ উপজেলার হাসপাতালগুলোতে গত এক সপ্তাহে শীতজনিত রোগে প্রায় ২ হাজার শিশু ও বয়স্ক রোগী চিকিৎসা সেবার জন্য ভর্তি হয়েছে। শীর্তাতদের সহযোগিতায় এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন সচেতন মানুষ।
পঞ্চগড়ে তাপমাত্রা কিছুটা বেড়েছে। বুধবার সকাল ৬টা ও সকাল ৯টা পর্যন্ত তেতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে ৭ দশমিক ০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের পর্যবেক্ষক ফজলে রহমান এ তথ্য জানিয়েছেন।
সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত গোটা জেলা কুয়াশার চাদরে ঢাকা থাকে। দুপুরের পর সূর্য দেখা গেলেও হিমেল হাওয়ার কারণে ঠাণ্ডা কমছে না। ফলে পঞ্চগড়ের শীতার্ত মানুষ দুর্ভোগে পড়েছে। বাড়ছে শিশু ও বৃদ্ধ রোগীর সংখ্যা।
পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আফরোজা বেগম রীনা জানান, পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে গত এক সপ্তাহে মোট ৮৮জন শিশু ভর্তি হয়েছে। বুধবার ভর্তি হয়েছে ৩৬জন। ৫২জন বয়স্ক রোগী ভর্তি রয়েছে। এছাড়া গত এক সপ্তাহে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের বহির্বিভাগে ৩২৬জন শিশু ও বয়স্ক রোগী চিকিৎসা সেবা নিয়েছে।
বোদা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. এসআইএম রাজিউল করিম রাজু জানান, গত এক সপ্তাহে মোট ৫০০জন শিশু ও বয়স্ক রোগী চিকিৎসা সেবা নিয়েছে। গত এক সপ্তাহে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৯৮জন রোগী। এরমধ্যে ৭৩জন বয়স্ক ও ২৫জন শিশু।
তেতুলিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রেজাউল বারী জানান, গত এক সপ্তাহে মোট ৭৭৯জন শিশু ও বয়স্ক রোগী চিকিৎসা সেবা নিয়েছে। হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ১৪৬জন রোগী। এরমধ্যে ১০৪জন বয়স্ক ও ৪২ জন শিশু।
আটোয়ারী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. হুমায়ুন কবির জানান, তেতুলিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রেজাউল বারী জানান, গত এক সপ্তাহে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৪৪জন রোগী। এরমধ্যে ২০জন বয়স্ক ও ২৪জন শিশু।
দেবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. হাসিনুর রহমান জানান, দেবীগঞ্জ হাসপাতালে গত এক সপ্তাহে শীত ও শীতজনিত রোগে ৪জন রোগী চিকিৎসা সেবা নিয়েছে।
পঞ্চগড়ের সিভিল সার্জন ডা. মো. সাইফুল ইসলাম জানান, পঞ্চগড় শীত প্রবণ এলাকা। এখানকার মানুষ শীত মোকাবেলায় সক্ষম এবং অভিজ্ঞ। তারপরও জেলার বিভিন্ন হাসপাতালগুলোতে শীত ও শীতজনিত রোগে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হয়েছেন। তবে সবকিছুই স্বাভাবিক রয়েছে। আমরা শীত ও শীতজনিত রোগে আক্রান্ত রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছি। পর্যাপ্ত ওষুধ পথ্যসহ প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র মজুদ রয়েছে। আমরা যে কোন পরিস্থিতি মোকাবেলায় সর্বদা প্রস্তুত আছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com