সংবাদ শিরোনাম :
নতুন ব্রিজ থেকে ৪ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক বিক্রেতা গ্রেফতার নতুন ব্রিজ থেকে ৪ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক বিক্রেতা গ্রেফতার চোরচক্রের গডফাদার রিপন ও তার সহযোগিকে সনাক্ত করা হয়েছে চীফ জুডিসিয়াল আদালতের সামন থেকে আরও একটি মোটর সাইকেল চুরি আজমিরীগঞ্জে সিএনজি স্ট্যান্ড দখল নিয়ে দুই দলের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া আজমিরীগঞ্জে গাঁজাসহ টমটম চালক আটক লাখাইয়ে ডাকাতি মামলার আসামি চট্টগ্রামে গ্রেপ্তার বানিয়াচংয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে পাখি শিকার ও পাচারের লিখিত অভিযোগ অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ল অর্ধশতাধিক ছাত্রী! হবিগঞ্জে স্কুল মাঠে পুকুর খনন নিয়ে ফেসবুকে উত্তাপ, অবস্থান জানাল প্রশাসন লোকাল জার্সিকে অ্যাডিডাসের বলে বিক্রি করার দায়ে ইজি ফ্যাশনকে ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা
শিশুটির তিন দফায় ডাক্তারি পরীক্ষা!

শিশুটির তিন দফায় ডাক্তারি পরীক্ষা!

নাটোর প্রতিনিধি: নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলায় ‘ধর্ষণের’ শিকার শিশুকে তৃতীয় দফায় ডাক্তারি পরীক্ষা করা হয়েছে। আজ বুধবার দুপুরে নাটোর সদর হাসপাতালে তিন সদস্যের মেডিকেল বোর্ড শিশুটির পরীক্ষা-নিরীক্ষা সম্পন্ন করেছে।

জানা যায়, গত ২৪ জানুয়ারি দুপুরে শিশুটিকে নির্যাতনের পর ওই দিন বড়াইগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তার ডাক্তারি পরীক্ষা করানো হয়।

প্রতিবেদনে শিশুটি ধর্ষিত হয়নি বলে উল্লেখ করা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে শিশুটির বাবা গত ১৪ ফেব্রুয়ারি জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম খোরশেদ আলমের আদালতে পুনরায় শিশুটির ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য আবেদন করেন। তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ১৯ ফেব্রুয়ারি আদালত পুনরায় ডাক্তারি পরীক্ষা করানোর নির্দেশ দেন। এরপর ২১ ফেব্রুয়ারি শিশুটিকে দ্বিতীয় দফায় ডাক্তারি পরীক্ষায় পাঠানো হয়। কিন্তু চিকিৎসক দ্বিতীয় দফা পরীক্ষার প্রতিবেদেন না দেওয়ায় আজ বুধবার তৃতীয় দফায় ফের শিশুটির ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়। এ বিষয়ে নাটোর সদর হাসপাতালের আরএমও  ডা.মাহবুবুর রহমান জানান, দ্বিতীয় দফায় শিশুটির পরীক্ষার সময় তার পরিবারের সদস্যরা ডা. ইসমত নাসরিনকে সহযোগিতা করেননি। যার কারণে তিনি রিপোর্ট দেননি। এ কারণে  হাসপাতালের গাইনী বিভাগের জুনিয়র কনসালটেন্ট (সার্জারি) ডা. সালমা আক্তারকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়।যারা তৃতীয় দফায় শিশুটির পরীক্ষা সম্পন্ন করেন।

টিমের অন্য দুই সদস্য হলেন- হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. সুফিয়া বিলকিস ও সিনিয়র স্টাফ নার্স মুসলিমা আক্তার। তবে নির্যাতিত শিশুটির পরিবারের অভিযোগ, ২১ ফেব্রুয়ারি সদর হাসপাতালে শিশুটির ডাক্তারি পরীক্ষার সময় চিকিৎসক তাদের লাঞ্ছিত করেন। মামলা তদন্ত কর্মকর্তা ও বড়াইগ্রাম থানার উপপরিদর্শক (এসআই ) তহসেন হোসন জানান, এ নিয়ে তিন দফায় পরীক্ষার করা হলো। রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

গত ২৪ জানুয়ারি দুপুরে শিশুটিকে চকলেট দেওয়ার কথা বলে তার চাচা মাহবুব ঘরে ডেকে নিয়ে মুখ বেঁধে শিশুটিকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ ওঠে। এ ঘটনায় শিশুটির বাবা ওই দিন বাদী হয়ে মাহবুবের বিরুদ্ধে বড়াইগ্রাম থানায় মামলা করেন। পুলিশ ওই রাতেই মাহবুবকে আটক করে আদালতে সোর্পদ করে। মাহবুব এসএসসি পরীক্ষার্থী হওয়ায় গত ৩০ জানুয়ারি জামিন পায়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com