শাওয়াল মাসের ৬ রোজা রাখার নিয়ম ও ফজিলত

শাওয়াল মাসের ৬ রোজা রাখার নিয়ম ও ফজিলত

শাওয়াল মাসের ৬ রোজা রাখার নিয়ম ও ফজিলত
শাওয়াল মাসের ৬ রোজা রাখার নিয়ম ও ফজিলত

ইসলাম সংবাদঃ রমজানের এক মাস সিয়াম-সাধনার পর শাওয়াল মাসের প্রথম দিনটি আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহর জন্য আনন্দের দিন হিসেবে সাব্যস্ত করেছেন। যে দিনে আমরা ঈদ-উল-ফিতর উদযাপন করে থাকি। এ দিনে রোজা রাখা হারাম। ঈদ পরবর্তী সময়ে শাওয়ালের ছয় রোজা পালনে রয়েছে অনেক ফজিলত।

রোজা রাখার নিয়ম ও ফজিলত

শাওয়াল মাসের যেকোনো সময় এই রোজা আদায় করা যায়। ধারাবাহিকভাবে বা মাঝে মাঝে বিরতি দিয়েও আদায় করা যায়। রমজান ও ঈদ পরবর্তী সময়ে রোজায় পালনে রয়েছে নেক আমলের প্রতি ধাবিত হওয়ার প্রমাণ। আর এ কথাই রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন – যে ব্যক্তি রমজানের রোজা রাখার পরে- শাওয়াল মাসে ছয়টি রোজা পালন করে। তবে সে যেন সারা বছরই সিয়াম বা রোজা পালন করল। (তিরমিজি)

এ হাদিসের উপর ভিত্তি করেই একদল আলেম এই ছয় দিনের রোজাকে মোস্তাহাব বলেছেন। তাছাড়া হজরত আবদুল্লাহ ইবনে মুবারাক বলেন, প্রতি মাসের তিন দিন (আইয়্যামে বিজের) রোজা রাখার মতো শাওয়ালের ছয় দিন রোজা রাখাও উত্তম আমল।

জানা থাকা ভাল –

যাদের রমজানের রোজার কাজা আছে, তাদের জন্য শাওয়ালের রোজা রাখা জরুরি নয়। যেমন কাফফারার রোজা না করে শাওয়ালের রোজা রাখা চলে না। তাই আগে রমজানের রোজার কাজা আদায় করা। অতঃপর সম্ভব হলে শাওয়ালের রোজা আদায় করা।

উল্লেখ্য, রমজান মাসে ফরজ রোজা ছাড়া অন্য সব রোজার নিয়ত সাহরির সময়ের মধ্যেই করতে হবে। ঘুমানোর আগে বা তারও আগে যদি এই দিনের রোজার পাক্কা ইচ্ছা বা দৃঢ় সংকল্প থাকে, তাহলে নতুন নিয়ত না হলেও চলবে এবং সাহরি না খেতে পারলেও রোজা হবে।

পরিশেষে …
আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে শাওয়াল মাসের রোজা পালনের মাধ্যমে সারা বছর রোজা রাখার ফজিলত অর্জন করার জন্য তাওফিক দান করুন। আল্লাহ তাআলাই উত্তম ফজিলত দানকারী। তার কাছেই যাবতীয় কল্যাণ লাভে মুমিন বান্দার বিনীত আবেদন।

আমিন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com