সংবাদ শিরোনাম :
নতুন ব্রিজ থেকে ৪ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক বিক্রেতা গ্রেফতার নতুন ব্রিজ থেকে ৪ কেজি গাঁজাসহ দুই মাদক বিক্রেতা গ্রেফতার চোরচক্রের গডফাদার রিপন ও তার সহযোগিকে সনাক্ত করা হয়েছে চীফ জুডিসিয়াল আদালতের সামন থেকে আরও একটি মোটর সাইকেল চুরি আজমিরীগঞ্জে সিএনজি স্ট্যান্ড দখল নিয়ে দুই দলের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া আজমিরীগঞ্জে গাঁজাসহ টমটম চালক আটক লাখাইয়ে ডাকাতি মামলার আসামি চট্টগ্রামে গ্রেপ্তার বানিয়াচংয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে পাখি শিকার ও পাচারের লিখিত অভিযোগ অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ল অর্ধশতাধিক ছাত্রী! হবিগঞ্জে স্কুল মাঠে পুকুর খনন নিয়ে ফেসবুকে উত্তাপ, অবস্থান জানাল প্রশাসন লোকাল জার্সিকে অ্যাডিডাসের বলে বিক্রি করার দায়ে ইজি ফ্যাশনকে ভ্রাম্যমান আদালতে জরিমানা
শরীফ স্টোরের মালিকের বিরুদ্ধে পরিবেশ দূষণের অভিযোগ

শরীফ স্টোরের মালিকের বিরুদ্ধে পরিবেশ দূষণের অভিযোগ

হবিগঞ্জ বানিজ্যিক এলাকার মের্সাস শরীফ ষ্টোরের অবৈধ মসলাকল, চিনি ভাঙ্গার কল, বেকারী ও কবুতরের ফার্মের কবুতরের বৃষ্টা, পোড়া মবিল ও ডিজেলের গন্ধে এলাকায় পরিবেশ দূষন হচ্ছে। দীর্ঘদিন যাবৎ অবৈধভাবে আবাসিক এলাকায় কলকারখানা  স্থাপনের  কোন অনুমোদনও নেই। নেই কলকারখানা উপ – মহা- পরিদর্শক শ্রীমংগল দপ্তরের কোন অনুমতিও।
বি এস টি আই র মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের অদৃশ্য আর্শিবাদেই মের্সাস শরীফ ষ্টোরের নিম্নমানের ফাষ্টফুড পুরো জেলায় দেদারছে বিক্রী হচ্ছে। ভোক্তা অধিকার হবিগঞ্জ শাখারও নেই কোন কার্যকর পদক্ষেপ বা উদ্যোগ।
আহসানিয়া মিশন বানিজ্যিক এলাকার বাসিন্দাগন পরিবেশ দূষনের হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য গত ২০২০ সাল থেকে পরিবেশ অধিদপ্তর,হবিগঞ্জ, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, সিলেট বি এস টি আইর বিভাগীয় কার্যালয়,  সিলেট বিভাগীয় পরিবেশ অধিদপ্তরে একাধিকবার অভিযোগ দিয়ে ও কোন প্রতিকার পাওয়া যায়নি।
আহসানিয়া মিশন আবাসিক এলাকাবাসীর পক্ষে সাঈদ চৌধুরী স্বশরীরে সিলেট বিভাগীয় পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা, বিভাগীয় বি এস টি আই কর্মকর্তার সাথে দেখা করে লিখিত অভিযোগ দিলেও কোন কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। সাঈদ চৌধুরী অভিযোগ করে বলেন, শরীফ ষ্টোরের মালিক হাজী শফিকুল ইসলাম অত্যন্ত ধনবান এবং প্রভাবশালী হওয়ায় এলাকার কারো কথার পাত্তা দেন না। সাঈদ চৌধুরীর শৌচাগারেরর জমিও ভরাট করে জোরপূর্বক দখল করে নিয়েছেন হাজী শফিকুল ইসলাম শফিক।
শরীফ বেকারী,  মসলাকল, চিনি গুড়া করার কাজে  দেড় থেকে দু’ শ শ্রমিক সেখানে কাজ করেন। তাদের হৈহুল্লোড়, ও শ্রমিকদের অশ্রাব্য গালাগাল, কথোপকথন, এলাকার বাসিন্দারা অতিষ্ট। আবাসিক এলাকার কচিকাঁচা শিশু সহ মহিলারাও এক বিব্রতকর অবস্থায় দিনাতিপাত করতে হচ্ছে।
 কারখানা শ্রমিকদের মলমূত্র,বেকারী ও মসলাকল, চিনি ভাঙ্গার কল, কবুতরের বৃষ্টা ও উচ্ছিষ্ট খাবারের দূর্গন্ধ এলাকার বাতাস ভারী করে তুলছে। এ ছাড়া আমার এক বড়ভাই দীর্ঘদিন  যাবৎ প্যারালাইসড রোগী। আবাসিক এলাকার বাসিন্দারা শব্দ দূষন ও পরিবেশ দূষনের হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছেন না।  বেকারী, মসলাকল, চিনিগুড়ো, কবুতরের বৃষ্ষ্টা ও উচ্ছিষ্ট খাবার,  শ্রমিকদের ব্যবহারের ময়লা আবর্জনা দূর্গন্ধযুক্ত পানি সাঈদ চৌধুরীর পুকুরে প্রবেশ করে মাছ সহ জলজপ্রাণীও মারা যাচ্ছে।
সাঈদ চৌধুরী আরো অভিযোগ করে বলেন, ২০২০ সাল থেকে তিনি সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলোতে একাধিকবার অভিযোগ করলেও কোন কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। গত ১৫ জুন২০২২ তারিখ জেলা প্রশাসক হবিগঞ্জ, বি এস টি আই সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ের প্রধান কর্মকর্তা, পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেট বিভাগীয় কর্মকর্তার কাছে ১৩ জুন ২২ইং অভিযোগ দায়ের করেন। কিন্তু রহস্যজনক কারনে আজ পর্যন্ত কোন তদন্তই করা হয়নি।
কলকারখানা আঞ্চলিক অধিদপ্তর, শ্রীমংগল, মৌলভী বাজারের  উপ – মহাপরিদর্শক জানান, শরীফ ষ্টোর, বেকারী বা মসলা কারখানা, চিনি ভাঙ্গার কারখানার কোন অনুমোদন নেই, আবাসিক এলাকায় যে কোন কারখানা প্রতিষ্টার অনুমোদন ও দেয়া  হয়  না, হবে ও না।
হবিগঞ্জ পৌরসভার বানিজ্যিক এলাকার গণ জনবসতিপূর্ণ এলাকায় শরীফ ষ্টোর এন্ড বেকারী, মসলা কল,  চিনিগুড়ো করার যন্ত্রপাতি, শ্রমিকদের কোলাহল ও অশ্রাব্য আচরনে স্থানীয় বাসিন্দাদের জীবনমান নিয়ে বেঁচে থাকাই দায় হয়ে দেখা দিয়েছে। সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তর সমূহে একাধিকবার লিখিত অভিযোগ ও ধর্ণা দিয়েও কোন প্রতিকার মেলেনি। আবাসিক এলাকায় কলকারখানা স্থাপন ও প্রতিষ্টা করা আইন বহির্ভূত হলেও হাজী শফিকুল ইসলাম আইনের প্রতি বৃদ্ধাংগুলি প্রর্দশন করে ধরাকে সরা ঞ্জান করে অবলীলায় পরিবেশ দূষন,  নিম্নমানের ফাষ্টফুড বাজারজাত করে সাধারন মানুষের জীবনকে হুমকির মুখে ঠেলে দিচ্ছেন। প্রবাদে আছে কাগুজে নোটও নাকি অনেক সময় কথা বলে। এই নোটই হাজী শফিকুল ইসলামের কূটির জোর?

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com