লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিতে শরীরি সৌন্দর্যই তাদের অস্ত্র!

লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিতে শরীরি সৌন্দর্যই তাদের অস্ত্র!

লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিতে শরীরি সৌন্দর্যই তাদের অস্ত্র!
লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিতে শরীরি সৌন্দর্যই তাদের অস্ত্র!

চট্টগ্রাম : চট্টগ্রাম নগরীতে এক ব্যবসায়ীকে কৌশলে একটি বাসায় নিয়ে জিম্মি করে মুক্তিপণের টাকা আদায়ের সময় ৪ অপরাধীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার পর্যন্ত দুইদিনে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা।

তাদের কেউ ‘ডিবি পুলিশ’, কেউ ‘সাংবাদিক’। নারী সদস্যরা পাতে ‘প্রেমের’ ফাঁদ। ওই ফাঁদে ফেলা হয় ধনাঢ্য ব্যক্তি, উঠতি ব্যবসায়ীদের। জিম্মি করে আদায় করা হয় মোটা অংকের টাকা। এ চক্রের সর্বশেষ শিকার নগরীর আছদগঞ্জের এক ধনাঢ্য ব্যবসায়ী।

ডিবি পরিচয়ে তুলে নিয়ে ফাঁদে আটকে চার লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায়ের সময় পাকড়াও করা হয় ওই চক্রের চার সদস্যকে। যাদের মধ্যে দুইজনই নারী। পুলিশ বলছে গত কয়েক বছরে অন্তত অর্ধশত ব্যক্তিকে এভাবে ফাঁদে আটকে কোটি কোটি টাকা আদায় করেছে এ ভয়ঙ্কর অপরাধী চক্রটি।

গ্রেফতাররা হলেন- নাসির উদ্দিন (৩৫), প্রদীপ দাশ (৩৫), হাসিনা আক্তার প্রকাশ মুক্তা (৪৫) ও ছালেহা আক্তার (৪০)।

কোতোয়ালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. কামরুজ্জামান বলেন, বিকাশ এজেন্টের কাছে মুক্তিপণের টাকা আনতে গেলে প্রথমে হাসিনা আক্তারকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর তথ্য অনুযায়ী পর্যায়ক্রমে সবাইকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সোমবার আছাদগঞ্জ শুটকি পট্টি এলাকার ব্যবসায়ী আলতাফ হোসেন (৫০) অপহরণ হন। ব্যবসায়ীকে চামড়ার গুদাম এলাকা থেকে নাসির, প্রদীপসহ তিনজন জোর করে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় তুলে নিয়ে চান্দগাঁও এলাকায় যায়। সেখান থেকে আলতাফ হোসেনকে নগরীর চান্দগাঁও থানার শরাফত উল্লাহ পেট্রল পাম্পের পাশে নূর মঞ্জিল নামে একটি ভবনের তৃতীয় তলার ফ্ল্যাটে নেওয়া হয়। এরপর নারীদের সাথে ব্যবসায়ীর আপত্তিকর ছবি তোলা হয়। অপহরণকারীরা ৪ লাখ টাকা না দেওয়া হলে ছবিগুলো সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দেওয়ার হুমকি দেয়। পরে ভাইয়ের মাধ্যমে বিকাশে টাকা পাঠানো হলে উক্ত ঠিকানায় টাকা তুলতে গেলে পুলিশ প্রথমে হাসিনাকে গ্রেফতার করে। এরপর তার তথ্যের ভিত্তিতে সবাইকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ জানায়, এরা মূলত একটি অপহরণকারী সংঘবদ্ধ চক্র। চক্রটি বিগত ৫ বছর ধরে মহানগরীর বিভিন্ন এলাকার বিত্তশালী ব্যবসায়ীদের অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায় করে আসছিলো। তারা স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় বাসা ভাড়া নেয়। বাসার ড্রইং রুমটি হালকা আসবাবপত্রে সুন্দর পরিপাটি করে সাজানো হয়। পুরুষ সদস্যরা মহানগরী ঘুরে বিভিন্ন বিত্তশালী লোক, ব্যবসায়ী, চাকুরিজীবীদের মোবাইল নম্বরসহ তথ্য সংগ্রহ করে।

চক্রের মহিলা সদস্যরা মোবাইলে প্রথমে টার্গেকৃতদের সাথে কথা বলে ‘প্রেমের’ প্রস্তাব দেয়। এরপর ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের সাথে সখ্যতা গড়ে তোলে।

এক পর্যায়ে তাদের বাসায় আসার আহ্বান জানানো হয়। বাসায় আসলে তাদের আটক করে নারী সদস্যদের সাথে অশ্লিল ছবি তুলে সেটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে টাকা আদায় করা হয়। আবার যারা বাসায় আসতে রাজি হয় না তাদের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করা হয়। পরে সুযোগ বুঝে এ চক্রের পুরুষ সদস্যরা নিজেদের ডিবি পরিচয়ে তাদের তুলে আনে। নারীদের সাথে ছবি তুলে টাকা দাবি করা হয়। টাকা দিতে রাজি না হলে তাদের হাতে ইয়াবাসহ মাদক ধরিয়ে দেয়। চক্রের কেউ এ সময় সাংবাদিক সেজে মাদকসহ ওই ব্যক্তির ছবি তুলে। আর তা পত্রিকায় প্রকাশ করার হুমকি দেয়।

এভাবে ব্যবসায়ীদের জিম্মি রেখে বিকাশের মাধ্যমে টাকা আদায় করে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়। ৮-১০টি অপহরণ করার পর চক্রের সদস্যরা ফের বাসা বদল করে।

কোতোয়ালী থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন জানান, গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে নগরীর বিভিন্ন থানায় একটি মামলা রয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তবে হাসিনা আক্তার দাবি করেন, আলতাফ হোসেনের সাথে তার ২০০৭ সাল থেকে পরিচয়। সেই পরিচয়ের সূত্র ধরে হাসিনা তাকে ফোন করলে আলতাফ চান্দগাঁওয়ের ওই ফ্ল্যাটে যান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com