রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়াবে আইওএম

রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়াবে আইওএম

রোহিঙ্গা
রোহিঙ্গা

লোকালয় ডেক্স : বসন্ত গেলেই গ্রীষ্ম-বর্ষা। প্রাকৃতিক দুর্যোগের এই সময়ে কালবৈশাখী, ঘূর্ণিঝড়, সাইক্লোনে লণ্ডভণ্ড হয়ে যায় উপকূলীয় এলাকা। সেইসঙ্গে অতিবৃষ্টি, বন্যা আর ভূমিধ্বস তো রয়েছেই। এসব প্রাকৃতিক দুর্যোগের ফলে বিপর্যয়ের মুখে পড়তে পারে কক্সবাজারের বিভিন্ন শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের জীবন। এ সময় যে কোনো ধরনের পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা-আইওএম।

আগামী মাসগুলোতে রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়াতে প্রশিক্ষিত জনবল প্রস্তুত রাখছে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। তৈরি করা হচ্ছে জরুরি চিকিৎসাকেন্দ্র ও সাহায্যকর্মীদের জন্য ঘাঁটি। এছাড়া আরও শক্তিশালী করে তোলা হচ্ছে রোহিঙ্গা আশ্রয়কেন্দ্রগুলো।

আইওএম জানিয়ছে, বর্তমানে রোহিঙ্গারা উখিয়া ও টেকনাফের বিভিন্ন শরণার্থী শিবিরে একেবারে নড়বড়ে আশ্রয়ে বাস করছে। তাদের ঝুপড়িগুলো ত্রিপল ও কাঠের খুঁটির ওপর তৈরি, যা দুর্যোগ মোকাবিলার জন্য মোটেও শক্তিশালী না। এক্ষেত্রে আইওএম তাদের বাসস্থানগুলো শক্তিশালী করার পরিকল্পনা করছে। এ ছাড়া ঝুঁকি কমানোর জন্য একটি সহযোগী কমিটি গড়ে তোলা হবে, যাদের কাজ হবে দূর্যোগের সময় করণীয় নিয়ে রোহিঙ্গাদের প্রশিক্ষিত করে তোলা।

শরণার্থীবিষয়ক সংস্থাটি জানিয়েছে, কমপক্ষে এক লাখ রোহিঙ্গা ও স্থানীয় বাসিন্দা ভূমিধ্বস ও বন্যা থেকে জীবনের ঝুঁকিতে রয়েছে। এ ছাড়া হাজার হাজার রোহিঙ্গা রয়েছে যাদের কাছে সাহায্য পৌঁছানো হয়তো সম্ভব হবে না, যদি বন্যা তাদেরকে সাহায্যকর্মীদের থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলে।

আগামী ১ মার্চ আইওএমের পক্ষে থেকে এ বিষয়ে এক দিনের মহড়া অনুষ্ঠিত হবে। সেইসঙ্গে আলাদাভাবে কাজ করবে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবক দল, আইসিএসজি, ইউএনএইচসিআরসহ সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থা।

এ বিষয়ে কক্সবাজারে আইওএমের জরুরি অবস্থা বিষয়ক সমন্বয়ক ম্যানুয়েল মারকুয়েস পেরেইরা বলেন, ‘যখন বৃষ্টি শুরু হবে তখন জরুরি অবস্থা এড়ানো সম্ভব হবে না। তাই দুর্যোগের ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনতে তা শুরু হওয়ার আগেই এখন থেকেই আমাদের একসঙ্গে কাজ করতে হবে।’

আইওএমের পরিকল্পনার মধ্যে রাস্তা-ঘাটের উন্নতি, ভূমিধ্বস প্রতিরোধের ব্যবস্থা নেওয়া ও এক লাখ ২০ হাজার বাড়িঘরের অবকাঠামোগত উন্নয়নের মতো বিষয়গুলো রয়েছে বলে জানিয়েছেন ম্যানুয়েল মারকুয়েস পেরেইরা। তবে অধিক শরণার্থীর তুলনায় কম জমির জন্য এ কাজ কঠিন হবে বলে জানান তিনি।

শরণার্থী বিষয়ক এ সংস্থাটি জানায়, ভবিষ্যৎ সংকট মোকাবিলার জন্য এখন থেকে ৬৫০ জনকে প্রশিক্ষিত করছে তারা। এতে সাহায্য করছে বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস ও বেসামরিক প্রতিরক্ষা বিভাগ। গড়ে তোলা হচ্ছে পাঁচটি বিশেষ চিকিৎসাকেন্দ্রও।

চলতি সহিংসতার মধ্যেই গত ২৫ আগস্ট থেকে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নিধনের মুখে পড়ে দেশটির রাখাইন রাজ্য ছেড়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে ৭ লাখের বেশি রোহিঙ্গা। তাদের ফিরিয়ে নিয়ে মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের একটি চুক্তি হয়। তবে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়া এখনো বাস্তবের মুখ দেখেনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com