রাজনৈতিক আশ্রয়ে মাদক ব্যবসা করে সোহেল ও জাহেদ

রাজনৈতিক আশ্রয়ে মাদক ব্যবসা করে সোহেল ও জাহেদ

স্টাফ রিপোর্টার : র‌্যাব-৯, সিপিসি-১, হবিগঞ্জ ক্যাম্প এর অভিযানে হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল থানাধীন এলাকা হতে ১০ (দশ) কেজি গাঁজাসহ দুইজন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার।
(৩০ নভেম্বর) মঙ্গলবার রাত অনুমান ০২.০০ ঘটিকার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-০৯, সিপিসি-১, হবিগঞ্জ এর একটি আভিযানিক দল লেঃ কমান্ডার মোহাম্মদ নাহিদ হাসান ও এএসপি-আব্দুল্লাহ-আল-নোমান এর নেতৃত্বে হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল থানাধীন ৬নং মিরপুর ইউনিয়নের মিরপুর বাজারস্থ জনৈক মোঃ সাজিদুর রহমান (৩৫) এর সততা বানিজ্যালয় কাঁচা পাকা মালের আড়তের সামনে মিরপুর শ্রীমঙ্গল গামী পাকা রাস্তার উপর হইতে ১০ কেজি গাঁজাসহ দুইজন মাদক ব্যবসায়ী ১। মোঃ মতিউর রহমান সোহেল (৩১), পিতা-মৃত তুরাব আলী, সাং-সাটিয়াজুরী ২। মোঃ রমজান আহমেদ জাহেদ (৩২), পিতা-মৃত রজব আলী ফকির, সাং-দুধপাতিল, উভয় থানা-চুনারুঘাট কে গ্রেফতার করা হয়। পরবর্তীতে উদ্ধারকৃত আলামত ও গ্রেফতারকৃত আসামীদ্বয়’কে বাহুবল থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮ এর ৩৬ (১) এর ১৯ (খ)/৪১ ধারামূলে হস্তান্তর প্রক্রিয়া চলমান।
আটক জাহিদ গাজিপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের সেক্রেটারী। সে স্থানীয় চেয়ারম্যান হুমায়ূন খান ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক ও আহম্মদাবাদ ইউনিয়নের জনপ্রিয় চেয়ারম্যান আবেদ হাসনাত চৌধুরী সনজু’র মদদে চলাফেরা করে। বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, সনজু চৌধুরীর সহযোগিতায় চুনারুঘাটের দক্ষিণ অঞ্চলে মাদকের রমরমা ব্যবসা চলছে।
মতিউর সোহেল সার্টিয়াজুরী ইউনিয়ন যুবলীগের সেক্রেটারী পদপ্রার্থী।
তাদের কে আটকের খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে স্বস্তি নেমে আসে এবং অনেকেই মিষ্টি বিতরণ করেন।
এবিষয়ে আবেদ হাসনাত চৌধুরী সনজু বলেন, “তার সাথে আমার ব্যক্তিগত সম্পর্ক ভাল না। সে যে মাদক ব্যবসা করে তাও আমি জানিনা। আজ বিষয়টি জানাজানি হলে আমরা সেচ্ছাসেবক লীগ থেকে তাকে অব্যহতি দেই।”
উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক কেএম আনোয়ার হোসেন বলেন, “মতিউর সোহেল আমাদের দলের কেউ না। সার্টিয়াজুরী ইউনিয়ন যুবলীগের সেক্রেটারী পদপ্রার্থী আমি শুনেছি। যুবলীগ একটি বড় সংগঠন, সবার খুজ খবর আমাদের রাখা সম্ভব হয় না। তবে কোন মাদক ব্যবসায়ী যুবলীগের পাদ-পদবী আসতে পারবেনা। ভাল ঘরের সন্তানদের নিয়ে আমরা মূলত যুবলীগের কমিটি গঠন করে থাকি।”
এবিষয়ে গাজীপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হুমায়ূন খান মুঠোফোনে বলেন, “ঐ ছেলেটা যে মাদক ব্যবসায়ী আমার জানা ছিলোনা। আমি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি। তাই অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের সাথে সম্পর্ক থাকবেই। আমি কিন্তু বরাবরই মাদক বিরোধী। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মাদককে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছেন। অতএব অবশ্যই মাদকের বিপক্ষেই আমার অবস্থান। আমি যখন মাদক বিরুদ্ধে কথা বলি। আমাদের দলের সাংগঠনিক সম্পাদক শোয়েব চৌধুরী মাদক বিক্রেতারদের পক্ষে কথা বলেন। আমি মাদকের কাছে কোন ভাবেই মাথা নত করবোনা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com