মুক্তিযুদ্ধে বিদেশি বন্ধু তারকা

মুক্তিযুদ্ধে বিদেশি বন্ধু তারকা

http://lokaloy24.com/

মুক্তিযুদ্ধে অনেকে অংশ নিয়েছেন সরাসরি, অনেকে পরোক্ষভাবে। আমাদের এই যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছেন দেশের অনেক নাটক, সিনেমা, গানের তারকা। পরোক্ষভাবে যুদ্ধের সময় সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন দেশের বাইরের তারকারাও। আমাদের আজকের আয়োজন সেসব তারকাকে নিয়ে।

প্রতিটি আন্দোলনের সঙ্গেই জড়িয়ে থাকে গান। তেমনি যুদ্ধের দিনগুলোতে মুক্তিকামী মানুষকে জাগিয়ে তুলতে অনেক গান রচিত হয়েছে, প্রকাশও পেয়েছে। স্বাধীন বাংলা বেতারের সংগীতসংশ্লিষ্টরা মুক্তিযোদ্ধাদের প্রেরণা জুগিয়েছিলেন। সে সময় দেশের শিল্পীদের পাশাপাশি গান গেয়ে সবাইকে উজ্জীবিত করেছেন অনেক বিদেশি শিল্পী। কলকাতার শিল্পী অংশুমান রায়ের গাওয়া ‘শোন একটি মুজিবরের থেকে’, বাপ্পী লাহিড়ীর সুরে আবদুল জব্বারের গাওয়া ‘হাজার বছর পরে’ এবং ‘সাড়ে সাত কোটি মানুষের আরেকটি নাম’- গানগুলো খুব জনপ্রিয় ছিল। এ ছাড়া হেমন্ত মুখোপাধ্যায়, লতা মুঙ্গেশকর, সলিল চৌধুরী, আশা ভোঁসলে, সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়, প-িত রবি শঙ্কর, ওস্তাদ আলী আকবর খান, ওস্তাদ আল্লারাখা খান, বনশ্রী সেনগুপ্ত, দ্বিজেন, শ্যামল, মানবেন্দ্র, সত্যব্রত দত্ত, ভুপেন হাজারিকা, নির্মলা মিশ্র, রাহুল দেববর্মণ, দেবব্রত বিশ্বাস, ললিতা ধর চৌধুরী, প্রতিমা বন্দ্যোপাধ্যায়, নির্মলেন্দু চৌধুরী, শচীন দেববর্মণসহ অনেক শিল্পীই আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধের সংগীত সৈনিক ছিলেন।

স্বাধীন বাংলা বেতারের পাশাপাশি শরণার্থী শিবিরগুলোতে সংগীত পরিবেশন করেন অনেক ভারতীয় শিল্পী। পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন স্থানে সংগীত পরিবেশন করে তা থেকে যে অর্থ উপার্জিত হতো, তা তুলে দেওয়া হতো অস্থায়ী বাংলাদেশ সরকারের হাতে। কনসার্টের মাধ্যমে আমাদের সংগ্রামের কথা বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দিয়েছিলেন অনেক শিল্পী। ভারতের প্রখ্যাত সেতারশিল্পী প-িত রবি শঙ্করের অনুরোধে বাংলাদেশের মানুষদের সহায়তা করার জন্য জর্জ হ্যারিসন আয়োজন করেন দ্য কনসার্ট ফর বাংলাদেশ। ১৯৭১ সালের ১ আগস্ট নিউইয়র্কের ম্যাডিসন স্কয়ারে আয়োজিত এই কনসার্টে যোগ দিয়েছিলেন স্পেনের রিংগো স্টার ও লিওন রাসেল, পপ গায়ক বব ডিলান, যুদ্ধবিরোধী আন্দোলনের গায়িকা জোয়ান বায়াজ, জার্মান সংগীতশিল্পী ক্লাউস ভুরম্যান, এরিক ক্ল্যাপটন, ভারতের সরোদশিল্পী ওস্তাদ আলী আকবর খান ও তবলাশিল্পী ওস্তাদ আল্লারাখা। শিল্পী জোয়ান বায়াজ সরাসরি অংশ নিতে না পারলেও কনসার্টের জন্য লিখেছিলেন বাংলাদেশ বাংলাদেশ গানটি। এ ছাড়া গানের আসর বসেছিল লন্ডনের অ্যালবার্ট হলে এবং বার্লিনের আলেকজান্ডার প্লাজায়। ১৯৭১ সালের নভেম্বরে ইংল্যান্ডের ৭টি শহরে আয়োজন করা হয় কনসার্ট ইন সিমপ্যাথি। বাংলাদেশ, ভারত এবং ইংল্যান্ডের নামি সব শিল্পী অংশগ্রহণ করেন এই কনসার্টে।

 

বাংলাদেশের স্বাধীনতাপ্রত্যাশীদের সাহায্যের জন্য লতা মুঙ্গেশকর, ওয়াহিদা রেহমান এবং শর্মিলা ঠাকুরের আয়োজনে কনসার্ট স্ট্রিংস অ্যান্ড স্টারসে ক্রাই ফর হেল্প অনুষ্ঠিত হয়। এই কনসার্টে অংশগ্রহণ করেন অশোক কুমার, আশা পারেখ, অমিতাভ বচ্চন, সুনিল দত্ত, নার্গিস, অরুনা ইরানীসহ অনেক বলিউড তারকা। ২৫ মার্চ রাতের গণহত্যায় মন খারাপ হয়েছিল বলিউডের সেই সময়ের অনেক তারকার। জনপ্রিয় অভিনেত্রী ওয়াহিদা রেহমান সেই সময়ে মুম্বাইয়ের বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী ও চলচ্চিত্র তারকাদের সঙ্গে দেখা করে বাংলাদেশের পক্ষে জনমত তৈরি করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com