মা-ছেলেকে অপহরণ: সিআইডির ২ সদস্য সাময়িক বরখাস্ত

মা-ছেলেকে অপহরণ: সিআইডির ২ সদস্য সাময়িক বরখাস্ত

http://lokaloy24.com/
http://lokaloy24.com/

লোকালয় ডেস্ক:দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে মা-ছেলেকে অপহরণের পর মুক্তিপণ নিতে এসে আটক হওয়া রংপুর সিআইডির তিন সদস্যের মধ্যে দুজনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তারা হলেন সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) হাসিনুর রহমান ও কনস্টেবল আহসানুল হক।

পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) রংপুর কার্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার (এসপি) আতাউর রহমান দুই সিআইডি সদস্যকে বরখাস্তের বিষয়ে গতকাল শনিবার বলেন, ‘তাদের বরখাস্তের কথা আমি মৌখিকভাবে শুনেছি, তবে এখন পর্যন্ত কোনো ধরনের কাগজপত্র হাতে পাইনি। কাগজপত্র হাতে পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

মুক্তিপণের টাকা নিতে গিয়ে সাময়িক বরখাস্ত হওয়া দুই সিআইডি সদস্যের সঙ্গে আটক হন সংস্থাটির একই কার্যালয়ের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) সারোয়ার কবির। তার বিরুদ্ধে কোনো বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে কি না জানতে চাইলে আতাউর রহমান বলেন, ‘এএসপি সারোয়ার কবিরের ব্যাপারে আমি কিছু জানি না।’

এদিকে মা-ছেলেকে অপহরণের ঘটনায় হওয়া মামলার অন্য আসামি ও জড়িতদের গ্রেপ্তারে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) অভিযান চালাচ্ছে বলে জানা গেছে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে দিনাজপুর ডিবির ওসি মোস্তাফিজুর রহমান দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘নতুন করে কাউকে আটক করা হয়নি। তবে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।’

গত মঙ্গলবার বিকেলে দিনাজপুর সদর উপজেলার দশমাইল মোড় থেকে সিআইডির এএসপি সারোয়ার কবির, এএসআই হাসিনুর রহমান, কনস্টেবল আহসানুল হক ও গাড়িচালক হাবিবুর রহমানকে পুলিশের সহায়তায় ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা আটক করেন। এরপর নিমনগর বালুবাড়ী এলাকার এনামুল হকের ছেলে ফসিহ উল আলম পলাশকে আটক করা হয়। পরদিন বুধবার সন্ধ্যায় দিনাজপুরের আমলি আদালত-৪-এর বিচারক শিশির কুমার বসুর আদালতে আটকদের হাজির করা হলে বিচারক পাঁচজনকেই কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এছাড়া ওইদিন রাতে গ্রেপ্তার হওয়া পলাশ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। পাশাপাশি উদ্ধার হওয়া মা-ছেলের জবানবন্দি নথিভুক্ত করা হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com