সংবাদ শিরোনাম :
আজমিরিগঞ্জ কালনী কুশিয়ারা নদীতে ব্যাপক ভাঙ্গন বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের নয়া কমিটির অভিষেক ও পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত  ঠাকুরগাঁওয়ে জ্বালানি তেল  সংকট! পীরগঞ্জে ম্যাটস্ এন্ড নার্সিং ইনস্টিটিউটের উদ্বোধন করেন–বিচারপতি মোঃ নজরুল ইসলাম তালুকদার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মালদ্বীপ প্রবাসীদের ক্যাপ্টেন এ বি তাজুল ইসলাম (অব.) এম পি’র জন্মদিন পালন  সায়হাম গ্রুপের উদ্যোগে ২০ হাজার দরিদ্রের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরনের উদ্যোগ বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যেকূটনীতি এবং মানবাধিকার সংস্থার নেতা নির্বাচিত হলেন সিলেটের রাকিব রুহেল ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় ৩ ছাত্রের উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় হামলা ব্র্যাথওয়েট হতে পারলেন না ‘ট্র্যাজিক হিরো’ পাওয়েল জলবায়ু অর্থ চুক্তিতে বাধা হতে পারে ভূরাজনীতি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
মাধবপুরে শিবু হত্যার দায় স্বীকার ঘাতকের

মাধবপুরে শিবু হত্যার দায় স্বীকার ঘাতকের

মাধবপুরে শিবু হত্যার দায় স্বীকার ঘাতকের
মাধবপুরে শিবু হত্যার দায় স্বীকার ঘাতকের

মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের মাধবপুর সুরমা গ্রামে শিবু সরকার হত্যার মামলার অন্যতম আসামী বিল্লাল মিয়া (২২) কে গাজীপুর থেকে গ্রেফতার করেছে পিবিআই। গ্রেফতারকৃত বিল্লাল মিয়া সুরমা গ্রামের চেরাগ আলী ছেলে। গ্রেফতারের পর আদালতে হাজির করলেও হত্যাকান্ডের স্বীকারোক্তি মুলক জবানবন্দি দিয়েছে ঘাতক বিলাল।

তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে শুক্রবার রাত ৪টার দিকে পিবিআই’র হবিগঞ্জের দায়িত্বপ্রাপ্ত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিয়া কুতুবুর রহমান চৌধুরী নির্দেশনায় ইন্সেপেক্টর শাহজাহান সিরাজের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঢাকার গাজীপুর জেলার জয়দেবপুর থানার মনিপুর নামক এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে।

শনিবার (২৭ জুলাই) দুপুরে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুলতান উদ্দিন প্রদানের আদালতে গ্রেফতারকৃত বিল্লাল মিয়াকে হাজির করা হয়। আদালতে বিলাল মিয়া হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি প্রদান করে।

পিবিআইয়ের ইন্সেপেক্টর শাহজাহান সিরাজ জানান, স্বীকারোক্তিতে বিলাল জানান, নিহত শিবু সরকার ও তার ব্যবসায়ী পার্টনার শিপন মিয়া এর মধ্যে হিসাব-নিকাশ নিয়ে মনোমালিন্যতা সৃষ্টি হয়। এ সুযোগে শিপন পরিকল্পনা করেন শিবুকে সরিয়ে ফেললে সিএনজি অটোরিক্সা মেরামতের দোকানটি তার একা হয়ে যাবে। তার পরিকল্পনার অংশ হিসেবে গ্রেফতারকৃত বিলাল মিয়া, শিপন মিয়াসহ তাদের আরো ৪/৫জন সহযোগিরা একত্রিত হয়ে শিবু সরকারকে ২০১৬ সালের ৫জুলাই রাত মেয়েকে নিয়ে আমোদ-ফুর্তি করার ইচ্ছা প্রকাশ করে।

ঘাতকরাসহ শিবু সমবয়সী হওয়ায় তাদের পরোচনা বুঝতে না পেরে সে ঘাতকদের সাথে সুরমা-আন্দিউড়া রাস্তার ব্রীজে যায়। সেখানে কিছু সময় কাটানোর পর ঘাতকরা শিবুকে কুপিয়ে হত্যা করে। পরে লাশ ঘুম করার জন্য কালেঙ্গা বিলের পাশের হাওরে নিয়ে কাদা মাটিতে শিবু’র লাশ পুতে রাখে। পরে ঘাতকরা ঠান্ডা মাথায় যার যার বাড়িতে চলে যায়। এ ঘটনার পর দিন শিবু সরকারের পরিবারের লোকজন বিভিন্ন স্থানে তাকে খোঁজাখুজি করে কোন সন্ধ্যান পাননি।

এ প্রেক্ষিতে ৭ জুলাই শিবুর ভাই নিবু সকার মাধবপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়রি (জিডি) করেন। ৯ জুলাই হাওরে অজ্ঞাত মরদেহ দেখে পুলিশে খবর দেন স্থানীয় লোকজন। এ খবর পেয়ে শিবুর স্বজনরা ঘটনাস্থলে গিয়ে শিবুর লাশ সনাক্ত করেন।

এ ব্যাপারে শিবুর ভাই নিবু বাদি হয়ে সাবেক ইউপি সদস্য দিলিপ পালসহ ৮ জনের নাম উল্লেখ করে মাধবপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলার দায়ের পর তৎকালীন তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আশীষ কুমার মৈত্র মামলার এজাহার নামীয় ৪ আসামীকে ধরে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করেও কোন ক্লো পাননি।

পরবর্তীতে শিবুর ব্যবহৃত মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে ঢাকা থেকে জাহাঙ্গীর আলম নামে এক যুবককে আটক করে তদন্ত কর্মকর্তা ব্যাপক জিজ্ঞসাবাদে জাহাঙ্গীর আলম জানায়, শিবুর ব্যবসায়ীক পার্টনার শিপন ও জানে আলমের কাছ থেকে মোবাইলটি ৫শ’ টাকায় ক্রয় করেছে সে। তার দেয়া জবানবন্দির ভিত্তিতে পুলিশ সুরমা গ্রামের ইদ্রিস মিয়ার ছেলে জানে আলম ও আনোয়ার মিয়ার ছেলে শিপন মিয়াকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা হত্যার দায় স্বীকার করে।

পরবর্তীতে মামলার অধিক তদন্তের জন্য পিবিআইকে দায়িত্ব দেয়া হয়। পিবিআই মামলাটির পূণরায় তদন্ত করা অবস্থায় তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে পুলিশ ঢাকার গাজীপুর জেলার জয়দেবপুর থানার মনিপুর নামক এলাকা থেকে বিলাল মিয়া গ্রেফতার করে। সে ঘটনার পর থেকে পলাতক থেকে সেখানে একটি গার্মেন্টেসে কাজ করতো।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com