সংবাদ শিরোনাম :
ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে বাড়িছাড়া হিন্দু পরিবার ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈলে ইয়াবাসহ দুই যুবক আটক হবিগঞ্জে শিকলে বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনায় স্বামী ভিংরাজ গ্রেফতার হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন হবিগঞ্জ শহরে মুন হাসপাতাল এবং চিকিৎসককে জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে ধনীর মেয়েকে বিয়ে করার দায়ে গরিবের ছেলেকে গাছে বেধে নির্যাতন পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি মাফিয়া ওলিউর দু’পুত্র ও সহোদর সহ পর্তুগাল পুলিশের খাঁচায় বন্দী হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার ইসলামে দান-সদকার সওয়াব অপরিসীম ৬ ঘণ্টা নয়, ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন
‘মাটির গান’ বৈচিত্র্যময় তরুণ লোকসংগীত শিল্পী বিউটি

‘মাটির গান’ বৈচিত্র্যময় তরুণ লোকসংগীত শিল্পী বিউটি

লোকসংগীত শিল্পী বিউটি

বিনোদন সংবাদ: ২৪ ফেব্রুয়ারি রাত ১১টা ৩০ মিনিটে আরিফ চৌধুরীর উপস্থাপনায় এনটিভিতে প্রচারিত হলো লোকসংগীতভিত্তিক গানের অনুষ্ঠান ‘মাটির গান’। এবারের শিল্পী ছিলেন বিউটি। বলা বাহুল্য, তরুণ লোকসংগীত শিল্পীদের মধ্যে বিউটি অত্যন্ত প্রতিশ্রুতিশীল ও সুনামখ্যাত। সচরাচর তিনি লোকসংগীত ছাড়া অন্য গান করেন না, যদিও তাঁর পারদর্শিতা রয়েছে। লোকসংগীতের প্রতি তাঁর এই নিবেদনের জন্য প্রথমেই তাঁকে জানাই সাধুবাদ। ‘মাটির গান’ অনুষ্ঠানে তিনি একটানা প্রায় দেড় ঘণ্টা গান করেছেন। লালনের গান ছাড়াও তিনি রাধারমণ, শাহ্ আব্দুল করিম, ইসহাক সরকার প্রমুখ বিখ্যাত লোকসংগীত সাধকের গান পরিবেশন করেছেন এই অনুষ্ঠানে। কাজেই বলা যায়, কেবল লোকসংগীত পরিবেশন করলেও তাঁর গানের নির্বাচন ছিল বৈচিত্র্যময় এবং পরিবেশনা ছিল আকর্ষণীয়। তাঁর পরিবেশিত উল্লেখযোগ্য গানের মধ্যে ছিল লালনের ‘বাড়ির পাশে আরশীনগর’, ইসহাক সরকারের ‘সুখের আশা দিয়া বন্ধু দুঃখ দিয়াছে’, রাধারমণের ‘ভ্রমর কইও গিয়া’, শাহ্ আব্দুল করিমের ‘আমার মাটির পিঞ্জরে সোনা ময়না রে’ ইত্যাদি।

শিল্পী বিউটির কণ্ঠ মিষ্টি এবং পরিবেশনা ধীরস্থির। মরমি শিল্পীদের সব গানই তিনি পরিবেশন করেছেন দরদি ও আবেগী কণ্ঠে। তাঁর পরিবেশিত গানগুলো আমরা প্রায়শই অন্য শিল্পীদের কণ্ঠেও শুনে থাকি, বিউটি চেষ্টা করেছেন উপস্থাপনায় কিছুটা স্বকীয় ও নিজস্ব মাত্রা যুক্ত করার। এখানেই গানগুলো অভিনব ও আকর্ষণীয় হয়ে উঠেছে। কোনো কোনো গানে দু-একটি জায়গায় একটু আধুনিকতার ছোঁয়া লাগলেও সেটি বেমানান মনে হয়নি। তবে বেশ কয়েকবার তিনি তাল ধরতে ভুল করেছেন, এটি না হলে ভালো হতো। সরাসরি গানের অনুষ্ঠানে আরও সজাগ ও সতর্কতা প্রয়োজন।

অনুষ্ঠানে আরেকটি ভালো দিক ছিল সহশিল্পীদের যন্ত্রসংগীতের ফিউশন। বিশেষ করে বাঁশি ও গিটারের ফিউশনটি ছিল বেশ উপভোগ্য। এনটিভিকে ধন্যবাদ কেবল লোকসংগীত নিয়ে এমন সরাসরি গানের অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য। তবে অনুষ্ঠানে সরাসরি দর্শকের অংশগ্রহণ থাকলে আরও ভালো হতো, আশা করি বিষয়টি চ্যানেল কর্তৃপক্ষ ভেবে দেখবে।

২২ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৭টা ৩০ মিনিটে মাছরাঙা টিভিতে প্রচারিত হলো সাপ্তাহিক টেলিছবি চিরকুটের শব্দ। পরিচালনা করেছেন মেহেদি হাসান। অভিনয়ে মিথিলা, সিয়াম প্রমুখ।

গল্পটি সংক্ষেপে এ রকম: বিশ্ববিদ্যালয়ের সহপাঠী মিথিলা ও সিয়াম। দুজন প্রতিদিন একই স্থান থেকে একই গাড়িতে ক্লাসে আসে। মিথিলা হেডফোন কানে দিয়ে ক্লাস করে, সিয়াম সবই খেয়াল করে এবং মুগ্ধ হয়। স্যারের ক্লাসে বসে চিরকুটের মাধ্যমে চলে তাদের ভাবের আদান-প্রদান। এরপর দুজন বাইরে দেখা করে, সেখানেও চিরকুটেই কথা বলে। সিয়াম একদিন সরাসরি কথা বলার জন্য জোরাজুরি করলে মিথিলা জানায়, সে বাক্‌প্রতিবন্ধী। আর কানে হেডফোন দিয়ে সে আসলে গান নয়, সবার কথা শোনে। এসব জেনে সিয়াম কিছুক্ষণ থমকে যায়, তারপর ভালোবাসার হাত বাড়িয়ে দেয় মূক মিথিলার দিকে। মাঝে তাদের আরেক সহপাঠী চক্রান্ত করে মিথিলা সম্পর্কে বাজে কথা বলে সিয়ামকে। পরদিন অচেনা একটি ছেলেকে দিয়ে মিথিলাকে প্রস্তাবও দেয়। দূর থেকে এ দৃশ্য দেখে সিয়াম ভুল বোঝে, আহত হয়, নিজেকে সরিয়ে নেয় দূরে। মিথিলা বুঝতে পেরে জোর করে ভুল ভাঙায় সিয়ামের। তারপর আবার দুজন দুজনের হয়ে ওঠে। এই হলো গল্প।

বাক্‌প্রতিবন্ধী ও দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের নিয়ে নাটক ও টেলিছবি আমরা মাঝেমধ্যেই দেখে থাকি। সে দিক থেকে বিষয়টি অভিনব বলা যায় না। তবে টেলিছবিটির নির্মাণ ছিল পরিচ্ছন্ন। এ কারণে নির্মাতা প্রশংসার দাবিদার। কিছু বিষয় লেখক ও নির্মাতা যুক্তিপূর্ণ করে তুলতে পারেননি। যেমন সহপাঠীরা মিথিলার সঙ্গে দিনের পর দিন ক্লাস করছে, ঘুরছে অথচ কেউই জানে না সে বাক্‌প্রতিবন্ধী, এটা অযৌক্তিক মনে হয়েছে। এ ছাড়া শ্রেণিকক্ষের মধ্যে শিক্ষকের উপস্থিতিতে একের পর এক ছাত্রদের যে আচরণ দেখানো হয়েছে, তা-ও যুক্তিপূর্ণ মনে হয়নি। আর অভিনয়ের কথা বললে মিথিলার অভিনয় অনেক পরিপক্ব মনে হয়েছে। সে তুলনায় সিয়ামের অভিনয় বেশ একঘেয়ে লেগেছে। সিয়াম প্রায় সব সময় কণ্ঠ নিচে নামিয়ে একই স্কেলে সংলাপ দেয়, যার ফলে তাঁর অভিনয় মনে হয় একঘেয়ে। এ থেকে তাঁর উত্তরণ প্রয়োজন।

আমাদের শেষ আলোচনা একুশের বিশেষ নাটক নতুন ফাগুন। মাসুম শাহরিয়ারের রচনা ও আবু হায়াত মাহমুদের পরিচালনায় চ্যানেল আইতে প্রচারিত হলো ২১ শে ফেব্রুয়ারি রাত ৮টায়।

মূলত একটি চরিত্রকে ঘিরে নাটক। সেই চরিত্র বাবা এবং এতে অভিনয় করেছেন হাসান ইমাম। বয়োবৃদ্ধ হাসান ইমাম শহুরে জীবনে বসে মূল্যবোধের পরিবর্তন দেখে ক্রমাগত ব্যথিত ও ক্ষুব্ধ। ছাত্রদের পড়ালেখা, প্রশ্ন ফাঁস—সবই তাঁকে বিক্ষুব্ধ করে। এরই মাঝে গ্রাম থেকে আসা তাঁর ভাতিজার কাছে জানতে পারেন, তাঁর শৈশবের স্কুলের পাশের শিমুলগাছটি কেটে ফেলা হচ্ছে। এটা জানার পর তিনি উত্তেজিত হয়ে পড়েন। অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। বিষয়ের গুরুত্ব বুঝে তাঁর মেয়ে গ্রামে যায় গাছটি রক্ষা করার জন্য। কিন্তু ততক্ষণে সেটা প্রায় কাটা হয়ে গেছে। এরপর ছেলেমেয়ে সবার অনুরোধে বাবা সবাইকে নিয়ে গ্রামে যান। স্কুলে ঢোকার পর সবাই যখন তাঁকে জানায়, গাছটির বয়স হয়েছিল তাই কাটা হয়েছে। পরিবর্তে অনেকগুলো চারাগাছ লাগানো হয়েছে। এরপর চারাগাছগুলো দেখে তিনি আশ্বস্ত হন। এই হলো গল্প।

এক কথায় বললে বলতে হয়, গল্পটি বর্তমান প্রেক্ষাপটে একুশের তাৎপর্যকে স্পর্শ করতে পারেনি। গল্পটি পরিবেশ উন্নয়ন বা বৃক্ষরোপণ উপলক্ষে নির্মিত জীবন্তিকা বা নাটিকার মতো মনে হয়েছে। চিত্রনাট্য, সংলাপ, অভিনয় ভালোই ছিল, নির্মাণও ছিল পরিচ্ছন্ন, কিন্তু একুশের তাৎপর্যের সঙ্গে মানানসই মনে হয়নি।

সমাজে, পরিবারে, পরিপার্শ্বে আমাদের ভাষা, সংস্কৃতি, মূল্যবোধ যেভাবে প্রতিনিয়ত রক্তাক্ত ও ক্ষতবিক্ষত হচ্ছে, আজ সেসবই আমাদের একুশের নাটকের বিষয়বস্তু হওয়া উচিত। বিশেষ দিবসের নাটক হতে হবে তাৎপর্যময়, যা আমাদের বিবেককে নাড়া দিয়ে যাবে। একুশের অঙ্গীকার ও আত্মত্যাগ আজ তরুণ প্রজন্মের কাছে শুধু অবহেলিত নয়, অচেনাও। পাশাপাশি সমাজনীতি, রাজনীতি, শিক্ষাক্ষেত্র কীভাবে আজ আমাদের নিজস্ব ভাষা-সংস্কৃতিবিমুখ, এই বাস্তবতাই যদি না আসে, তাহলে একুশের বিশেষ নাটকের কী প্রয়োজন?

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com