সংবাদ শিরোনাম :
নবীগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে গরু রাখাল খুন ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ যুব সমাজ চুনারুঘাটের আহম্মদাবাদ ইউনিয়নজুড়ে জুয়া ও মাদকের ছড়াছড়ি মাধবপুরে মালিকানার জোর দেখিয়ে পথচলায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি!  চুনারুঘাটে শিক্ষা ব্যবস্থায় ধস, ক্ষুব্ধ অভিভাবকরা লাখাইয়ে ডাকাতদলের সদস্য গ্রেপ্তার শায়েস্তাগঞ্জে পচাঁবাসি খাবার বিক্রির অভিযোগে ফার্দিন মার্দিন রেষ্টুরেন্টকে জরিমানা চুনারুঘাটে ৮ বছরের শিশু ধর্ষণের শিকার অনিয়মের দায়ে এয়ার লিংক ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ককে জরিমানা বানিয়াচংয়ে এক নারীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার হবিগঞ্জে অকৃতকার্য বেড়েছে ৩ গুণের বেশি
মহাষষ্ঠীর মধ্যদিয়ে শারদীয় দুর্গোৎসব শুরু

মহাষষ্ঠীর মধ্যদিয়ে শারদীয় দুর্গোৎসব শুরু

এসেছে আবারও ঢাকের বোল, কাঁসর ঘণ্টা ও শাখের ধ্বনিতে মুখর হয়ে উঠার সময়। পঞ্জিকা মতে আজ শনিবার ষষ্টী পূজার মধ্য দিয়ে মহা ধুমধামে জেলা জুড়ে শুরু হতে যাচ্ছে পাঁচ দিনব্যাপী সনাতন ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় মহা-উৎসব শারদীয় দূর্গা পূজা। বছরঘুরে দেবীর আগমনী বার্তায় উৎসবের আমেজ এখন হিন্দু সম্প্রদায়ের ঘরে ঘরে।
এবার জেলার ৯টি উপজেলায় ৬৯৩টি মন্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর মধ্যে সার্বজনীন ৬৭১ ও ব্যক্তিগত বাসা-বাড়িতে ২২টি পূজা অনুষ্ঠিত হবে। যা আগামী ৫ অক্টোবর দেবী বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এই মহা উৎসবের।
এদিকে, জেলার প্রত্যেকটি পূজা মন্ঠপে সরকারী ভাবে ৫শ কেজি করে চাল দিয়ে সহযোগিতা করা হয়েছে।
ইতোমধ্যে জেলার মÐপগুলোতে পূজার সবধরণের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। সবগুলো মন্দির ও মন্ডপে প্রতিমা তৈরি, স্থাপন ও আলোকসজ্জার কাজ শেষ করা হয়েছে। আজ ভোর থেকে মন্দিরে মন্দিরে বেজে উঠবে কাঁসর ঘণ্টা। ভক্ত অনুরাগীরাও পূজা অর্চনায় হাজির হবেন মন্দিরে মন্দিরে।
জানা যায়, আজ শনিবার মহা ষষ্ঠী উৎসবের মধ্যদিয়ে ৫দিনব্যাপী দুর্গাপুজা উৎসর শুরু হচ্ছে। ষষ্ঠী থেকে দশমী প্রতিদিনই নানান আয়োজনে জেলা জুড়ে চলবে পূজা উৎসব। দশমীর দিন বিকেলে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার মাধ্যমে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেবী দুর্গাকে বিসর্জন দেয়া হবে।
গতকাল শুক্রবার শহরের কয়েকটি মন্দিরে গিয়ে দেখা যায়, মঞ্চ তৈরির কাজে ব্যস্ত মৃৎশিল্পীরা। প্রতিমাকে শেষবারের জন্য সুন্দর করে সাজিয়ে নিচ্ছেন তারা। মন্দিরের চারপাশও সাজানো হয়েছে বাহারি নকশায়। মন্দিরের প্রধান গেটসহ অন্যান্য জায়গাগুলোও বর্ণিল হয়ে সেজে উঠেছে।
তাছাড়া কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা যাতে না ঘটে সে জন্য কাজ করছে আইশৃঙ্খলা বাহিনীর বেশ কয়েটি টিম। পূজার নিরাপত্তায় জেলায় সাড়ে ৭শ জন পুলিশ ও ৩ হাজার ৬শ আনসার সদস্য কাজ করবে। তাছাড়া র‌্যাব, বিজিবির সদস্যরাও মাঠে থাকবে।
এদিকে, শুধু প্রতিমা আর আলোকসজ্জাতেই নয়, পূজার এই আনন্দকে উপভোগ করতে জেলা শহরের বিপনী বিতানগুলোতেও শেষ সময়ে কেনাকাটায় ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত চলছে ধুমধাম কেনা বেচা। গত বছর করোনার কারণে তেমন বড় পরিসরে পালিত হয়নি পূজা। তবে এবার করেনার তেমন প্রভাব না থাকায় আনন্দগণ পরিবেশে পূজা উৎযাপিত হবে বলে প্রত্যাশা ভক্তদের।
হবিগঞ্জ জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শঙ্খ শুভ্র রায় জানান, এবার জেলায় ৬৯৩টি মন্ডপে পূজা উদযাপিত হবে। এর মধ্যে সার্বজনীন ৬৭১ ও ব্যক্তিগত বাসা-বাড়িতে ২২টি পূজা অনুষ্ঠিত হবে। এর আগে সরকারী ভাবে প্রত্যেকটি পূজা মÐপে ৫শ কেজি করে চাল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে পূজার সকল আয়োজন সফল করতে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের সাথে মত বিনিময় করেছেন পূজা উদযাপন পরিষদ নেতৃবৃন্দ। যে কোন অপতৎপরতা রক্ষায় পুলিশ বাহিনী তৎপর রয়েছে বলে জানান তিনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com