সংবাদ শিরোনাম :
‘হাওয়া’ ছবিতে বন্য প্রাণী আইন লঙ্ঘিত হয়েছে, দাবি বন্য প্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের আগামীতে সিলেট-নিউইয়র্ক সরাসরি ফ্লাইট: বিমান প্রতিমন্ত্রী কাতার বিশ্বকাপ একদিন এগিয়ে আনলো ফিফা ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত সমুদ্রবন্দরে, বৃষ্টির পূর্বাভাস শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সাপ্তাহিক ছুটি বাড়ানোর বিষয়ে ভাবছে সরকার : শিক্ষামন্ত্রী অটোরিকশা থেকে লাফ দিয়ে পড়ে মারা গেলেন শায়েস্তাগঞ্জে স্কুল শিক্ষিকা সুপ্তা বৈশ্বিক মন্দায়ও অন্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশ ভালো আছে : সিলেটে পররাষ্ট্রমন্ত্রী পদ্মা সেতু হয়ে টুঙ্গিপাড়ায় গেলেন প্রধানমন্ত্রী নবীগঞ্জে গ্রামীণফোনের নেটওয়ার্ক বিড়ম্বনায় গ্রাহকরা মাকে খুন করে লাশের পাশেই রাত কাটালেন ছেলে
মগবাজারে ভয়াবহ বিস্ফোরণ : যা জানা গেল

মগবাজারে ভয়াবহ বিস্ফোরণ : যা জানা গেল

http://lokaloy24.com/

লোকালয় ডেস্ক:রাজধানীর মগবাজার ওয়ারলেস গেট এলাকায় ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনায় সবশেষ তথ্য অনুযায়ী সাতজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এছাড়া পাঁচটি হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা ও গুরুতর আহতসহ মোট চিকিৎসা নিচ্ছেন পাঁচ শতাধিক মানুষ। গতকাল রোববার সন্ধ্যায় বড় মগবাজার এলাকার আউটার সার্কুলার রোডের ৭৯ নম্বর ভবনে এই বিস্ফোরণ ঘটে।

এ ঘটনায় আহতদের পার্শ্ববর্তী ঢাকা কমিউনিটি হাসপাতাল, আদ-দ্বীন হাসপাতাল ও হলিফ্যামিলি রেডক্রিসেন্ট হাসপাতালে নেওয়া হয়। গুরুতর আহতদের পাঠানো হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট হাসপাতালে।

ঢাকা কমিউনিটি হাসপাতালের আউটডোর ইনচার্জ আ জ ম রহমতউল্লাহ সবুজ বলেন, আহতদের অনেককেই এই হাসপাতালে আনা হয়। তাদের সংখ্যা তিনশর কাছাকাছি। এই হাসপাতালে আসা বেশিরভাগেরই শরীরের বিভিন্ন জায়গায় কাটাছেঁড়া, মাথায় আঘাত ছিল। দুজন হাসপাতালে আনার পরই মারা গেছেন। চারজনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ঘটনাস্থলের পার্শ্ববর্তী অপর হাসপাতাল আদ-দ্বীনের পরিচালক অধ্যাপক ডা. নাহিদ ইয়াসমিন জানান, দুর্ঘটনার পর ৪০ থেকে ৫০ জনের মতো রোগী হাসপাতালটির জরুরি বিভাগে ছুটে আসেন। আহতদের বেশিরভাগই শরীর পোড়া অথবা মাথায় আঘাত নিয়ে এসেছিলেন। একজন হাসপাতালের আনার সঙ্গে সঙ্গেই মারা যান। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে অন্যান্য হাসপাতালে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

হলিফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে ১০ জনকে। তাদের মধ্যে হাসপাতালে ভর্তি আছেন ৪ জন। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের একজন চিকিৎসক জানান, মাথায় আঘাত নিয়েই এসেছেন বেশিরভাগ রোগী।

আর আগুনে পুড়ে যাওয়া এবং গুরুতর আহত রোগীদের নেওয়া হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে। শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের প্রধান সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন জানিয়েছেন, বিস্ফোরণের ঘটনায় সেখানে ১৭ জন রোগী এসেছে। তাদের মধ্যে দুইজনকে মৃত অবস্থায় নেওয়া হয়।

এদিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাজমুল হক জানিয়েছেন, মগবাজার বিস্ফোরণের ঘটনায় আহতদের ৪৪ জন ঢাকা মেডিকেলে এসেছেন। তাদের মধ্যে একজনের মৃত্যু হয়েছে। আহতদের মধ্যে অনেকের অবস্থা গুরুতর।

পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস যা বলছে-

ঘটনার ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম বলেন, ‌মগবাজারের ঘটনায় এখন পর্যন্ত সাত জন মারা গেছেন। আমরা ধারণা করছি, ভবনের নিচে যে শর্মা হাউজ ছিল, সেখানে জমে থাকা গ্যাস থেকে এই বিস্ফোরণ ঘটতে পারে। তবে ঘটনার প্রকৃত কারণ জানতে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, তদন্তে বিস্ফোরণের প্রকৃত কারণ বেরিয়ে আসবে।

এদিকে, ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সও ধারণা করছে মগবাজারে গ্যাস থেকেই বিস্ফোরণের সূত্রপাত হতে পারে। ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক সাজ্জাদ হোসেন বলেন, আমরা পরীক্ষা করছি। গ্যাস জাতীয় কিছু থেকে বিস্ফোরণ হতে পারে।

তিনি আরও বলেন, তিনতলা ভবনের নিচতলায় ফাস্টফুডের দোকান, দ্বিতীয় তলায় সিঙ্গারের একটি গোডাউন ছিল। বিস্ফোরণের কারণে ব্লাস্ট ওয়েভ ও সাউন্ড ওয়েভ সৃষ্টি হয়। এতে আশপাশের ভবনগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই ভবনের সব পিলার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ‘আমি বলতে পারি এই ভবন বসবাসের অনুপযুক্ত হয়ে গেছে’।

ঘটনার পর তিতাস গ্যাসের কর্মকর্তারাও ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে শর্মা হাউজে দুটি এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন। এই ঘটনা খতিয়ে দেখতে তিন সদস্যের একটি কমিটিও গঠন করেছেন। তবে তারা সরাসরি গ্যাসের লিকেজ থেকে বিস্ফোরণের বিষয়টি নাকচ করে দিয়েছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com