ভোগান্তির শেষ ছিল না দিনভর

ভোগান্তির শেষ ছিল না দিনভর

http://lokaloy24.com
http://lokaloy24.com

লোকালয় ডেস্ক:দেশের সর্বাধিক ব্যবহৃত জ্বালানি ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির জের হিসেবে গণপরিবহন খাতের আকস্মিক ধর্মঘটে সীমাহীন ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ যাত্রীরা। গতকাল ছুটির দিনেও রাস্তায় নেমে লাখ লাখ মানুষ বিপাকে পড়েন। দূরপাল্লার বাস বন্ধ থাকায় রাজধানীর সঙ্গে প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে সারা দেশ। চাকরিপ্রার্থী অসংখ্য তরুণ নির্ধারিত পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেননি। পরিবহন মালিক-শ্রমিক নেতাদের জনজীবন জিম্মি করার এমন অপকৌশলে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন অসংখ্য মানুষ। পণ্য পরিবহন ব্যবস্থা ভেঙে পড়ায় সমুদ্রবন্দর, স্থলবন্দরের কার্যক্রম ব্যাহত হয়। রাজধানীতে যাত্রীবাহী বাস বন্ধ থাকায় কয়েক গুণ বেশি ভাড়া দিয়ে সিএনজি অটোরিকশা ও মোটরসাইকেলে গন্তব্যে পৌঁছেছেন অনেকে। সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ বিবেচনায় ধর্মঘট প্রত্যাহার করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আগামীকাল মন্ত্রণালয়ে পরিবহন ভাড়া সমন্বয়সংক্রান্ত একটি সভা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। গতকাল সকাল থেকে রাজধানীর আবদুল্লাহপুর, উত্তরা হাউস বিল্ডিং, জসীমউদ্দীন, বিমানবন্দর বাসস্ট্যান্ড, খিলক্ষেত, কুড়িল, বনানী, মহাখালীসহ বিভিন্ন স্থানে যাত্রীদের ভোগান্তি দেখা গেছে। সড়কে গণপরিবহন চলাচল না করলেও অটোরিকশা, রিকশা ও প্রাইভেট কারের পাশাপাশি সরকারি বিআরটিসি বাস চলেছে। ডিজেলের দাম বাড়ার পরদিনই পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা যেভাবে সারা দেশে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দিয়ে ভোগান্তির সৃষ্টি করেছেন, তাতে ক্ষোভ ঝরেছে পথে নেমে পর্যুদস্ত হওয়া সাধারণ মানুষের কণ্ঠে। গতকাল সকালে কাজে যাওয়ার জন্য রাস্তায় বেরিয়ে বিপাকে পড়া মিরপুরের একটি শপিং মলের বিক্রয়কর্মী তরিকুল ইসলাম বললেন, ‘এভাবে হুটহাট বাস বন্ধ করে দেওয়া তো ঠিক না। সমস্যা হলে তারা আলোচনা করে সমাধান করুক, আমাদের জিম্মি করছে কেন?’ বাস বন্ধ থাকায় তরিকুলের মতো অসংখ্য মানুষকে বহুগুণ বেশি ভাড়া দিয়ে রিকশায় কর্মস্থলে যেতে হয়েছে, সেটি তাদের বড় ক্ষোভের কারণ। কিন্তু পরিবহন মালিক-শ্রমিকরা তাদের দাবি আদায় করতে যেভাবে হুট করে মানুষকে বিপদে ফেলে দিলেন, সেটা নিয়েই তাদের মূল আপত্তি। ডিজেলের দাম বাড়ায় যানবাহনের ভাড়ার পাশাপাশি নিত্যপণ্যের দামও যে বাড়বে তা নিয়ে অনেকে উদ্বিগ্ন। সরকার বুধবার মধ্যরাত থেকে ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়ানোর পর বৃহস্পতিবার ধর্মঘটে যাওয়ার ঘোষণা আসে পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের পক্ষ থেকে। গতকাল সকাল থেকে তারা যাত্রীবাহী বাস বা পণ্যবাহী গাড়ি বের করছেন না। গতকাল সরকারি ছুটির দিন হলেও জরুরি প্রয়োজনে অনেকেই ঘরের বাইরে বেরিয়ে ভোগান্তির শিকার হয়েছেন। যাদের অন্য জেলায় যাওয়ার প্রয়োজন ছিল তাদের ফিরে যেতে হয়েছে বাস টার্মিনাল থেকে। এ সুযোগে ভাড়া বাড়িয়ে দিয়েছেন রিকশা, অটোরিকশা আর ভাড়ার মোটরসাইকেল চালকরা। সকালে মিরপুরের কালশী মোড়ে গাড়ির অপেক্ষায় থাকা শিবলী আহমেদ বললেন, ‘পূরবী থেকে রিকশা নিয়ে এখানে এলাম। মগবাজারে যেতে মোটরসাইকেলে অনেক টাকা ভাড়া চাইছে। ভাবছি কয়েকজন মিলে অটোরিকশায় যদি যাওয়া যায়।’

লঞ্চযাত্রীদের ভোগান্তি : লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক থাকলেও বাড়তি ভাড়া নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। চাঁদপুর থেকে সোনারতরী-২ লঞ্চে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সদরঘাটে আসেন সুমন পাটোয়ারী, সঙ্গে তার স্ত্রী। তিনি স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য যাবেন মিরপুরে ছোট ভাইয়ের বাসায়। বাস বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছেন। টার্মিনালে অনেক অটোরিকশা থাকলেও মিরপুর যেতে ভাড়া চাইছে ৮০০ থেকে ১ হাজার টাকা। তিনি বলেন, সঙ্গে টাকাপয়সা তেমন নেই। বাস চললে দুজনের যেতে ১০০ টাকাও লাগত না।
পরিবহন ধর্মঘট চললেও লঞ্চের যাত্রীর সংখ্যা তেমন কমেনি বলে জানান বিআইডব্লিউটিএর পরিবহন পরিদর্শক দীনেশ কুমার সাহা। তিনি বলেন, দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে সদরঘাটে আজ (শুক্রবার) সকালে ৫২টি লঞ্চ এসেছে, আর ছেড়ে গেছে ২০টি। তবে সদরঘাটে নেমেই বিপাকে পড়েছেন হাজার হাজার যাত্রী।

বাসের ভিড় কমলাপুর স্টেশনে : জ্বালানি তেলের দাম লিটারে ১৫ টাকা বাড়ানোর প্রতিবাদে গতকাল সকাল ৬টা থেকে সারা দেশে ধর্মঘট পালন করছে বাস-ট্রাক-কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতি। আনুষ্ঠানিক ঘোষণা ছাড়াই তাদের এ অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট শুরু হয়। গতকাল বিভিন্ন চাকরির পরীক্ষা ছিল। কিন্তু গণপরিবহন বন্ধ থাকায় ভোগান্তিতে পড়েন তারা। পরীক্ষা শেষে তারা বাড়ি ফিরতে ভিড় করেন কমলাপুর রেলস্টেশনে। স্টেশনে দায়িত্বরত এক আনসার সদস্য গণমাধ্যমকে বলেন, বাস বন্ধ থাকায় সব মানুষ ট্রেনে গন্তব্যে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। এজন্য সকাল থেকেই কমলাপুরে মানুষের উপচে পড়া ভিড় ছিল। তবে টিকিট না পেয়ে অনেকেই ফিরে গেছেন।

পরীক্ষার্থীদের বিক্ষোভ : সাভারে ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করে কলেজে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ও নিয়োগ পরীক্ষার্থীরা সকালে বিক্ষোভ করেছেন। পরিবহন সংকটে আটকে পড়ায় বিক্ষোভ করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) অধিভুক্ত রাজধানীর সরকারি সাত কলেজের স্নাতক শ্রেণির ভর্তিচ্ছু পরীক্ষার্থীরা। পরিবহন শ্রমিক-মালিকদের ডাকা ধর্মঘটে পরীক্ষার্থীরা সকাল থেকেই বিপাকে পড়েন। এতে মহাসড়কে ব্যক্তিগত যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। সড়কের দুই পাশে আটকে পড়ে যানবাহন। ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা জানান, ভোরবেলায় ভর্তি পরীক্ষার উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়ে দীর্ঘ সময় যানবাহনের জন্য অপেক্ষা করেন তারা। একপর্যায়ে ক্ষোভে মহাসড়ক অবরোধ শুরু করেন। সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী মাইনুল ইসলাম বলেন, পরিবহন বন্ধের ডাকে আটকে পড়েছেন ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ও সরকারি নিয়োগ পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারীরা। শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন বাসে তুলে দিয়ে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

কেন বাড়ল ডিজেলের দাম : আন্তর্জাতিক বাজারে চলতি বছরের শুরু থেকেই জ্বালানি তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি) লোকসান নিয়মিতভাইে বেড়ে যাচ্ছিল। জুনে লিটারপ্রতি ২.৯৭ টাকা, জুলাইয়ে ৩.৭০ টাকা, আগস্টে ১.৫৮ টাকা, সেপ্টেম্বরে ৫.৬২ টাকা এবং অক্টোবরে প্রতি লিটার ডিজেলে ১৩.০১ টাকা লোকসান দেয় বিপিসি। এ পাঁচ মাসে সর্বাধিক ব্যবহৃত ডিজেলের ক্ষেত্রে বিপিসির মোট লোকসানের পরিমাণ দাঁড়ায় ১১৪৭.৬০ কোটি টাকা। সূত্র জানান, সাধারণত আন্তর্জাতিক বাজারে ডিজেলের সিআইএফ মূল্য ৭৩.৭৬ ডলার/ব্যারেল হলে বিপিসি ব্রেক-ইভেনে (না লাভ না লোকসান) থাকে। এ ক্ষেত্রে অক্টোবরে ডিজেলের সিআইএফ মূল্য ৯৬.০৭ ডলারে উন্নীত হয়। এটি পাঁচ বছরের মধ্যে সর্বাধিক। একই সঙ্গে টাকা-ডলার বিনিময় হার এপ্রিলে ৭৯ টাকা থেকে নভেম্বরে ৮৫.৭৫ টাকায় উন্নীত হয়। অর্থাৎ প্রতি মার্কিন ডলারের সঙ্গে বাংলাদেশি ৬.৭৫ টাকা অবমূল্যায়িত হয়।

অন্যদিকে সর্বশেষ ৩ নভেম্বর ভারতের কলকাতায় প্রতি লিটার ডিজেলের মূল্য নির্ধারণ করা হয় ১০১.৫৩ টাকা। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ১২৪ টাকা। এতে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের ডিজেলের মূল্য পার্থক্য দাঁড়ায় লিটারপ্রতি প্রায় ৫৯ টাকা, যা দ্বিগুণের কাছাকাছি। ফলে বাংলাদেশ থেকে ভারতে ডিজেল পাচারের আশঙ্কা দেখা দেয়।

পণ্য পরিবহন ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে : পরিবহন ধর্মঘটের কারণে সারা দেশে যাত্রী ও পণ্য পরিবহন ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। নিজস্ব প্রতিবেদক ও জেলা প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

চট্টগ্রাম : জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে চট্টগ্রামে বন্ধ রয়েছে গণপরিবহন। টার্মিনাল থেকে ছেড়ে যায়নি দূরপাল্লার কোনো পরিবহন। ফলে ভোগান্তিতে পড়েন মহানগর ও আশপাশের বিভিন্ন উপজেলার মানুষ।

বন্দরের কনটেইনার খালাস ও ডিপোয় আসা-যাওয়া স্বাভাবিক থাকলেও কনটেইনার পরিবহন পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেছে। আশঙ্কা দেখা দিয়েছে কনটেইনার-জট তৈরির। বন্দরের সচিব ওমর ফারুক বলেন, ‘দু-তিন দিন ডেলিভারি বন্ধ থাকলে ইয়ার্ডে বড় ধরনের জট তৈরি হবে।’

বাগেরহাট : ধর্মঘটের প্রথম দিনে মোংলা আন্তর্জাতিক সমুদ্রবন্দরে বড় কোনো প্রভাব পড়েনি। মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল এম মুসা জানান, পরিবহন ধর্মঘটের প্রথম দিন মোংলা বন্দরের কার্যক্রম স্বাভাবিক ছিল। মোংলা ইপিজেডের মহাব্যবস্থাপক মাহবুব আহমেদ সিদ্দিক বলেন, ‘পরিবহন ধর্মঘট অব্যাহত থাকলে প্রভাব পড়বে মোংলা ইপিজেডে।’

সিলেট : সকাল থেকে সব আঞ্চলিক ও মহাসড়কে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় টার্মিনালে গিয়ে ফিরে এসেছেন যাত্রীরা। গতকাল সকালে সিলেট কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল ও কুমারগাঁও টার্মিনালে গিয়ে দেখা গেছে বাসের সব কাউন্টার বন্ধ। যাত্রীরা কাউন্টারে এসে ফিরে যাচ্ছেন।

খুলনা : হঠাৎ ট্রাক, বাস চলাচল বন্ধ হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন যাত্রীরা। খুলনা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি কাজী মো. নুরুল ইসলাম বেবী জানান, তেলের দামে অনুপাতে বাসভাড়া না বাড়ানোর কারণে অনেকের গাড়ি ভাড়াও উঠবে না।

কুমিল্লা : ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে কোথাও গণপরিবহন চলাচলের দৃশ্য চোখে না পড়লেও দেখা গেছে পণ্যবাহী যানবাহনের চলাচল। অনেক যাত্রীই ভিড় করেছেন বিভিন্ন বাস টার্মিনাল ও মহাসড়কের পাশে বাসস্ট্যান্ডগুলোয়। বাস না পেয়ে অধিক ভাড়া গুনতে হয়েছে যাত্রীদের।

বগুড়া : বগুড়ায় সকাল থেকে অভ্যন্তরীণ রুটের সব বাস চলাচল বন্ধ থাকায় অলস সময় কাটিয়েছেন শ্রমিকরা। দুর্ভোগে পড়েন সাধারণ যাত্রীরা।

রংপুর : রংপুরে পরিবহন ধর্মঘটের কারণে পণ্যের বাজারে নেতিবাচক প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। বৃহস্পতিবার রাতে রংপুর মোটর মালিক সমিতির এক বৈঠক শেষে সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি, রংপুর জেলা মোটর মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও জাতীয় সংসদে বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা সাংবাদিকদের প্রশ্নর উত্তরে বলেছেন, ‘কেরোসিন ও ডিজেলের দাম বাড়ানো সরকারের আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত।’

রাজশাহী : রাজশাহীতে পরিবহন ধর্মঘটের কারণে গতকাল যাত্রীরা বিভিন্ন উপায়ে অটোরিকশা, থ্রি হুইলার ও হিউম্যান হলারে গন্তব্যে গেছেন। এ ছাড়া সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েন চাকরিপ্রার্থীরা। এদিন ছিল খাদ্য অধিদফতরের নিয়োগ পরীক্ষা।

রাজশাহী রেলস্টেশনে গিয়ে দেখা যায়, বাস চলাচল বন্ধ থাকায় চাপ বেড়েছে ট্রেনে। এদিন সকাল থেকে যেসব ট্রেন ছেড়ে গেছে সবকটিতে অতিরিক্ত ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।

চাঁদপুর : চাঁদপুর বাস টার্মিনাল থেকে তিন রুটে প্রায় ২ হাজার বাস অনির্দিষ্টকালের জন্য চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গতকাল সকালে দূরপাল্লার কয়েকটি বাস গন্তব্যের উদ্দেশে ছেড়ে গেলেও দুপুর থেকে বাস চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়।

সিরাজগঞ্জ : পণ্যবাহী ট্রাক-কাভার্ড ভ্যান ও যাত্রীবাহী বাস চলাচল বন্ধ থাকায় অচল হয়ে পড়েছে সিরাজগঞ্জ। এতে ধর্মঘটে বিপাকে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। বিকল্প পরিবহনে গন্তব্যে পৌঁছতে অতিরিক্ত ব্যয় হচ্ছে।

মাদারীপুর : মাদারীপুরে বন্ধ রাখা হয়েছে বাস, ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান, পিকআপ। গতকাল ভোর ৬টা থেকে সারা দেশের সঙ্গে পরিবহন যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

পটুয়াখালী : পটুয়াখালীতে বাস বন্ধ থাকায় ভোগান্তিতে পড়েছেন কুয়াকাটাগামী পর্যটকসহ দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ।

নাটোর : নাটোরে দুর্ভোগে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। ছোট ছোট ব্যাটারিচালিত যানবাহনে গন্তব্যে যাচ্ছেন তারা। তবে দ্বিগুণ ভাড়া আদায়ের অভিযোগ যাত্রীদের।

সাাতক্ষীরা : লিটারে ডিজেলের মূল্য ১৫ টাকা বৃদ্ধির প্রতিবাদে গণপরিবহন বন্ধ রয়েছে। ফলে দুর্ভোগে পড়েছেন সাধারণ মানুষ ও পরিবহন শ্রমিকরা।

লক্ষ্মীপুর : গণপরিহন চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় লক্ষ্মীপুরে অচল হয়ে পড়েছে যোগাযোগব্যবস্থা। সব যানবাহনের কাউন্টারও বন্ধ ছিল।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ : চাঁপাইনবাবগঞ্জে বাস ও ট্রাক চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে যাত্রীরা পড়েছেন ভোগান্তিতে।

গাজীপুর : গাজীপুরেও পরিবহন ধর্মঘট পালিত হচ্ছে। ঢাকা-টাঙ্গাইল, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কসহ অন্যান্য আঞ্চলিক সড়কে দু-একটি পণ্যবাহী যানবাহন ছাড়া কোনো ধরনের গণপরিবহন চলতে দেখা যায়নি। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা।

দিনাজপুর : দিনাজপুরে বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। চলছে না ট্রাক ও ট্যাংকলরি। এত যাত্রীরা চরম বিপাকে পড়েছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com