ভুয়া বিক্রেতা বানিয়ে কোটি টাকার জমির দলিল!

ভুয়া বিক্রেতা বানিয়ে কোটি টাকার জমির দলিল!

ভুয়া বিক্রেতা বানিয়ে কোটি টাকার জমির দলিল!
ভুয়া বিক্রেতা বানিয়ে কোটি টাকার জমির দলিল!

নিজস্ব প্রতিনিধি: হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার সাবরেজিস্ট্রার নিতেন্দ্র লাল দাশের বিরুদ্ধে ঘুষ ও দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। সর্বশেষ তিনি একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেটের কাছ থেকে বড় অঙ্কের উৎকোচ নিয়ে দুই চা শ্রমিককে ভুয়া বিক্রেতা সাজিয়ে দলিল সৃষ্টি করে কোটি টাকার সম্পত্তি আত্মসাতের চেষ্টা করেন। ওই জমি নিয়ে আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তিনি এ ব্যাপারে কোনো তোয়াক্কা করেননি। এ নিয়ে চুনারুঘাটে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। পরে চা শ্রমিকরা এই প্রতারণা বুঝতে পেরে এফিডেভিট করে তা স্বীকার করেন এবং সাবরেজিস্ট্রারসহ ১৮ জনের বিরুদ্ধে দুদকে অভিযোগ দায়ের করেন।

এদিকে রোববার জেলা দুর্নীতি দমন কমিশনের উপ-পরিচালক অজয় কুমার সাহা এবং ডিএডি আবদুল মালেক চুনারুঘাট সাবরেজিস্ট্রার অফিস, ভূমি অফিস, সেটেলমেন্ট অফিসে এসে তদন্ত ও বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করেন।

দুদক উপ-পরিচালক অজয় কুমার সাহা বলেন, সারা দিন তথ্য সংগ্রহ এবং তদন্ত করা হয়েছে। এই তদন্তের ভিত্তিতে একটি রিপোর্ট দেয়া হবে। তবে আরও তদন্তের প্রয়োজন রয়েছে। তিনি আরও বলেন, তদন্তে আলোচিত ভূমি ইব্রাহিম কবির গংদের দখলেই আছে বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে। তবে একটি দুর্বলতাও আছে। সেটি হল ১৯৫৬ সালে দলিল করে ওই জায়গা ক্রয় করার পর এখন পর্যন্ত কোনো নামজারি করা হয়নি। আর সাবরেজিস্ট্রারের এ অবস্থায় ভুয়া ক্রেতা দিয়ে দলিল সম্পাদন করাও সঠিক হয়নি।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চুনারুঘাট উপজেলার দেওরগাছ মৌজার ১১৯ নম্বর এসএ খতিয়ানের ১০৭৪ এসএ দাগের ২.৬৪ একর ভূমির এসএ রেকর্ডীয় মালিক ছিলেন দেওরগাছ ইউনিয়নের আমকান্দি গ্রামের মহেশপালের ছেলে হেমন্ত পাল এবং দেবেন্দ্র পালের ছেলে দীগেন্দ পাল। এসএ রেকর্ডের মালিকরা ওই জমি ১৯৫৬ সালে ৭৪০ নম্বর দলিলে বিক্রয় করেন ওই এলাকার মুনছর আহম্মদের কাছে। এসএ রেকর্ডে হেমন্ত পালদের নাম ভুলবশত পালের স্থলে দাস লেখা হয়। চলমান আরএস জরিপে বিষয়টি নজরে আসে এলাকার একটি ভূমিখেকো চক্রের। তারা সেটেলমেন্ট কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে ওই জায়গার বর্তমান মালিক ইব্রাহিম কবির গংদের নাম না দিয়ে এসএ রেকর্ডীয় মালিক হেমন্ত পালদের নাম রেখে দেয়। কিন্তু পাল না দিয়ে সেখানেও দাস উল্লেখ করা হয়। অথচ আমকান্দি গ্রামে কোনো সময় দাস সম্প্রদায়ের লোকের বসবাস ছিল না।

ইব্রাহিম কবির গং বিষয়টি জানতে পেরে আদালতে মামলা দায়ের করলে আদালত এই জমির ওপর ২০১৮ সালের ৩০ আগস্ট অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা প্রদান করেন। ইব্রাহিম কবির উক্ত জমি অবৈধ ব্যক্তির নামে রেজিস্টার না করে দেয়ার জন্য ২০১৮ সালের ৫ সেপ্টেম্বর তারিখে সাবরেজিস্ট্রার বরাবর একটি আবেদন করেন। ফলে বিগত সময়ে সাবরেজিস্ট্রার যারা ছিলেন তারা ওই জায়গার কোনো দলিল সম্পাদন করেননি। চুনারুঘাট উপজেলার একটি প্রভাবশালী চক্র রাজনৈতিক নেতার ছত্রছায়ায়, ভুয়া বিক্রেতা সাজিয়ে দলিল করার চেষ্টা করে। সম্প্রতি এ ব্যাপারে দুটি দলিল দাখিল করা হলেও আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকায় এবং বিষয়টি জানতে পেরে সাবেক সাব রেজিস্ট্রার শংকর কুমার ধর দলিল দু’টি জব্দ করেন।

এদিকে নিতেন্দ্র লাল দাম নতুন সাবরেজিস্ট্রার হিসেবে যোগদান করলে ওই চক্রটি আবারও সক্রিয় হয়। তারা চুনারুঘাট উপজেলার গেলানী ও লস্করপুর চা বাগানের দুই শ্রমিককে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সরকারি ভাতা দেবে বলে মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে সিলেটে নিয়ে যান। সেখানে নিয়ে গিয়ে গেলানী চা বাগানের অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিক বাশুদেব মুড়াকে দিগেন্দ্র চন্দ দাস এবং লস্করপুর চা বাগানের শ্রমিক নিপেন বাকতিকে হেমেন্দ্র চন্দ্র দাস নাম দিয়ে জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করান। গত ১৭ জানুয়ারি আশরাফ আলীসহ তার পক্ষের ১২ জনের নামে ২৪০ নম্বর দলিল সম্পাদন করে দেন তারা। এতে জমির বিক্রয়মূল্য দেখানো হয় এক কোটি ৩৪ লাখ টাকা। দলিল সম্পাদন করার পর সাবরেজিস্ট্রার তা গোপন করে রাখেন। শুধু ক্রেতাদের নকল প্রদান করা হয় যাতে তারা নামজারি করতে পারে। বিষয়টি জানতে পেরে ইব্রাহিম কবির অফিসে যোগাযোগ করলেও তাকে কোনো নকল দেয়া হয়নি এবং এ ধরনের দলিল হয়েছে বলে জানানো হয়নি। ক্রেতা আশরাফ আলী গং ওই দলিলের নকল নিয়ে নামজারি করতে গেলে ইব্রাহিম কবির বাধা দেন এবং উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমির কাছে আবেদন করলে নামজারির আবেদন খারিজ করা হয়।

চা শ্রমিক বাশুদেব মুড়া ও নিপেন বাকতি জানান, তারা লেখাপড়া তেমন জানেন না। চা শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন। সরকারি অনুদান পাওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে অভিযুক্তরা আমাদের নতুন আইডি কার্ড তৈরি করান। আমাদের কার্ড আছে বললেও তারা বলেন নতুন আইডি কার্ড হলে সরকারি অনুদান পেতে সহজ হবে এবং বেশি ভাতা পাবে। আমরা বিশ্বাস করে সিলেটে গিয়ে নাম পরিবর্তন করে নতুন কার্ড তৈরি করি। পরে চানপুর গ্রামে আশরাফ আলীর বাড়িতে রাতে সাবরেজিস্ট্রার নিতেন্দ্র লাল দাম অফিস সহকারী কবির চৌধুরীকে নিয়ে জোরপূর্বক রেজিস্টারি স্ট্যাম্পে দস্তখত নেন। পরে জানতে পেরে হলফনামা প্রদান করি।

জমির মালিক ইব্রাহিম কবির বলেন, আমার পিতা এই জমি এসএ রেকর্ডীয় মালিকের কাছ থেকে ক্রয় করার পর নির্বিবাদে ৬০ বছরেরও অধিককাল যাবৎ ভোগ দখল করে আসছি। বিক্রেতার নামে পালের জায়গায় দাস থাকায় একটি প্রভাবশালী চক্র এই জমি আত্মসাতের চেষ্টা করলে আমি আদালতের আশ্রয় নেই। আদালত নিষেধাজ্ঞা দেয়ার পরও সাবরেজিস্ট্রার নিতেন্দ লাল দাশ ১০ লাখ টাকা উৎকোচ নিয়ে দলিল সম্পাদন করেছেন।

এ ব্যাপারে ক্রেতা আশরাফ আলীর সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তার কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। ক্রেতা মাহফুজ মিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

সাব রেজিস্ট্রার নিতেন্দ লাল দাশের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি উৎকোচ গ্রহণের কথা অস্বীকার করেন এবং আদালতের নিষেধাজ্ঞা ও ইব্রাহিম কবিরের আবেদনের বিষয়টিও তার জানা নেই বলে জানান। পরে তিনি স্বীকার করেন জনৈক রাজনৈতিক নেতার চাপে এই দলিল সম্পাদন করতে বাধ্য হয়েছেন। তবে নেতার নাম বলেননি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com