ভিসির একদিনের চায়ের বিল ৪০ হাজার টাকা!

ভিসির একদিনের চায়ের বিল ৪০ হাজার টাকা!

ভিসির একদিনের চায়ের বিল ৪০ হাজার টাকা!
ভিসির একদিনের চায়ের বিল ৪০ হাজার টাকা!

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে উত্তাল গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি)। বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা হলেও ভিসি খোন্দকার নাসির উদ্দিনের পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলন করে যাচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীরা।

গত ১১ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে ফেসবুকে লেখার জেরে ১১ সেপ্টেম্বর আইন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ফাতেমা-তুজ-জিনিয়াকে সাময়িক বহিষ্কার করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এ নিয়ে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে বশেমুরবিপ্রবির ক্যাম্পাস।

ভিসির বিরুদ্ধে দুর্নীতি, নারী কেলেঙ্কারি, বাজেটের অর্থ আত্মসাৎসহ বিশ্বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের স্বাধীনভাবে কথা বলার অধিকার ক্ষুণ্ন করার অভিযোগ এনে তার পদত্যাগের দাবি নিয়ে আন্দোলনে নামেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা।

এরই মধ্যে ভিসি খোন্দকার নাসির উদ্দিনের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ শোনা যাচ্ছে।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, গ্রামবাসীর সঙ্গে ছাত্রদের এক বিরোধের সময় ছয়-সাতজনকে চা আপ্যায়ন বাবদ ৪০ হাজার টাকা ব্যয় দেখিয়েছেন ভিসি!

শনিবার দুপুরে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে খুলনা প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়টির সাবেক শিক্ষার্থীদের ফোরাম।

ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন পালনের পর প্রেসক্লাবের হুমায়ুন কবির বালু মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন করেন বিশ্ববিদ্যালয়টির সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা।

ওই সংবাদ সম্মেলনে এক লিখিত বক্তব্যে বশেমুরবিপ্রবির শিক্ষার্থীদের মুখপাত্র সম্রাট বিশ্বাস অভিযোগ করেন, বশেমুরবিপ্রবির ভিসি খোন্দকার নাসির উদ্দিন দুর্নীতিবাজ ও বিভিন্ন লুটপাটসহ নারী কেলেঙ্কারির সঙ্গে যুক্ত।

তার এসব দুর্নীতি নিয়ে যে শিক্ষার্থীই মুখ খুলেছেন তাকেই বহিষ্কার করেছেন ভিসি।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর পূণ্যভূমিতে বিএনপি-জামায়াতপন্থি শিক্ষক ড. খোন্দকার নাসির উদ্দিন বশেমুরবিপ্রবির ভিসি পদে রয়েছেন। বিগত পাঁচবছর ধরে নিয়োগ বাণিজ্য, ভর্তি বাণিজ্য, বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের টাকা লুটপাট, ভিসি কোটা চালু, নারী কেলেঙ্কারিসহ নানা কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িয়ে গেছেন তিনি। যা বিভিন্ন সময় গণমাধ্যমেও প্রকাশিত হয়েছে।

দুইবছরে দুর্নীতির কথা প্রকাশ করতে চাইলে ৩৪জন শিক্ষার্থীকে অপ্রাসঙ্গিক কারণ দেখিয়ে বহিষ্কার করেছেন ভিসি নাসির উদ্দিন। সাধারণ শিক্ষার্থীদের জামায়াত-শিবির, সরকার বিরোধী অপবাদ দিয়ে বাকরুদ্ধ করে রাখেন এবং অকথ্য ভাষায় গালাগালি করারও অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। বঙ্গবন্ধুর পূণ্যভূমিতে সাম্প্রদায়িকতা সৃষ্টি করে ছাত্র-ছাত্রীর ক্ষতিসাধন ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করছেন তিনি।’

সম্রাট বিশ্বাসের অভিযোগ, সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মরত একটি জাতীয় দৈনিকের প্রতিনিধি ফাতেমা-তুজ-জিনিয়া এবং এর আগে তারেক লিটুকে বহিষ্কার করেছেন এই দুর্নীতিবাজ ভিসি। তাদের মানসিকভাবে নির্যাতনও করেছেন তিনি। বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্নীতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ে সামগ্রিক কর্মকাণ্ড নিয়ে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ার অভিযোগে জিনিয়াকে বহিষ্কার করা হয়। এ ঘটনায় এই বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র অর্ঘ্য বিশ্বাসকে জীবন দিতে হয়েছে। তিনি ফেসবুকে অন্যায়ের প্রতিবাদ করেছিলেন। কিন্তু তাকে বহিষ্কার করা হয়। অর্ঘ্যের বাবা বহিষ্কার আদেশ তুলে নিতে অনুরোধ করলে তাকে অপমান করে বের করে দেওয়া হয়। বাবার অপমান সহ্য করতে না পেরে অর্ঘ্য আত্মহত্যা করেন।

ভিসির দুর্নীতির প্রমাণ হিসেবে সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করা হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল ও শহীদ মিনার স্থাপনের জন্য দুই কোটি ৪০ লাখ টাকা ব্যয় দেখানো হয়েছে। অথচ বাস্তবে এ ম্যুরাল এখনো তৈরিই হয়নি। বিশ্ববিদ্যালয়ে এমন কোনো ম্যুরালের অস্তিত্ব নেই।

সম্রাট বিশ্বাস আরও অভিযোগ করেন, গ্রামবাসীর সঙ্গে ছাত্রদের বিরোধের সময় ছয়-সাতজনকে চা আপ্যায়ন বাবদ ৪০ হাজার টাকা ব্যয় দেখানো হয়েছে। একইভাবে ছাত্রকল্যাণ ফান্ড থেকে এক লাখ টাকা অ্যাপায়ন বিল দেখানো হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com