সংবাদ শিরোনাম :
হবিগঞ্জে প্রশাসনের উদ্যোগে বিশ্ব নদী দিবসে বর্ণাঢ্য র‍্যালি অনুষ্ঠিত বালু উত্তোলনে অস্তিত্ব সংকটে নদী : খোয়াই, করাঙ্গী, সুতাং ও ইছামতী হুমকির মুখে পঞ্চগড়ে নৌকাডুবিতে মৃত্যু বেড়ে ৩১ : স্বজনদের আহাজারি শহরে অবৈধভাবে প্যাকেটজাত সরিষার তেল ও নকল বিড়ি মজুদের দায়ে ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ড ৪২টি চোরাই মোবাইলসহ চোরচক্রের মূলহোতা জগলু নবীগঞ্জে আটক মাধবপুরে বিএনপি নেতা কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে ওসিসহ আহত ১০ : আটক ৩ আগামীকাল রামনাথ বিশ্বাসের বসতভিটা দখলমুক্তের দাবিতে সাইকেল র‍্যালি ওয়াশিংটন ডিসি পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার যুবকের ইশাতের ছবি ব্যবহার করে প্রতারণা আটক করেছে ভোলা জেলা সিআইডি যৌতকের টাকা নিয়ে গৃহবধুকে নির্যাতন: নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন গৃহবধু
ভাইবোনের প্রতিদ্বন্দ্বিতা

ভাইবোনের প্রতিদ্বন্দ্বিতা

ভাইবোনের প্রতিদ্বন্দ্বিতা শৈশবের এক অনিবার্য বাস্তবতা। সুতরাং এটা একটি খুবই স্বাভাবিক বিষয়, প্রাপ্তবয়স্কদের মতো বাচ্চাদের নিজেদের মধ্যে বিবাদ সৃষ্টি হবে। ভাইবোনের প্রতিদ্বন্দ্বিতা কেন হয় এবং কীভাবে এর থেকে পরিত্রাণ পাওয়া যায়, এটা অনেক পরিবারের জন্যই চিন্তার বিষয়। এক্ষেত্রে কেতাবি অনেক কথা নানাজন বলেন, কিন্তু বাস্তব অভিজ্ঞতা অনেকের জন্যই সুখকর নয়।

প্রতিদ্বন্দ্বিতা কমানোর কৌশল : সৌদি আরবের বিখ্যাত শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ জামিল রহমান আল মুসাভি পরিবারের একাধিক সন্তানদের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা কমানোর কৌশল সম্পর্কে বেশ গুরুত্বপূর্ণ কিছু পরামর্শ দিয়েছেন। এর অন্যতম হলো- প্রথম জন্ম নেওয়া সন্তানকে এ কথা বোঝানো, দ্বিতীয় সন্তানটি তাকে ভালোবাসে। সেই সঙ্গে তাকে নতুন শিশু সম্পর্কে এবং তার আগমনের বিষয়ে আনন্দ প্রকাশ করা শেখানো। ফলে তারও শিশুটির প্রতি ভালোবাসা এবং বন্ধন তৈরি হবে। কারণ পরিবারকে ভালোবাসা, ছোট-বড় ভাইবোনের প্রতি মায়া-মহব্বত; এই অনুভূতিগুলো একজন মানুষ হিসেবে সব শিশুর মধ্যেই স্বভাবত থাকে।

নতুন শিশুর জন্মের পর বলুন, ‘দেখো! ও কীভাবে তোমার দিকে তাকিয়ে হাসছে। সে নিশ্চয়ই তোমাকে যতœশীল বড় ভাই-বোন মনে করছে।’ ‘তুমি যখন তাকে চুমু দাও, আদর করো এবং তার হাত ধরো- সে খুব খুশি হয়।’

শিশুর সঙ্গ : সদ্য জন্ম নেওয়া শিশু এবং ছোট বা বড় ভাইবোনের মধ্যে একে অপরকে স্পর্শের মাধ্যমে বন্ধনকে সুন্দর করা যায়। অনেক পিতামাতা সদ্যজাত শিশুর নিরাপত্তার জন্য তাকে অন্য সন্তানদের থেকে দূরে রাখেন, ধরতে দিতে ভয় পান। এর ফলে বড় সন্তান ছোট শিশুর সঙ্গে যোগাযোগ থেকে বঞ্চিত হয়। যা খুব দ্রুত বড় বাচ্চার মধ্যে বিরক্তি তৈরি করে। এই বিরক্তি থেকে বড় বাচ্চারা সুযোগ পেলেই ছোট বাচ্চাকে মারধর করে কিংবা তার দিকে খেলনা ছুড়ে দেয়। সাধারণত এমন আচরণের মূল কারণ হলো- তারা নবজাতক শিশুর সঙ্গ পেতে চায়, তাকে স্পর্শ করতে চায়। এমতাবস্থায় শিশুকে ধরতে না দেওয়ায়; তারা বিরক্ত হয়। এভাবে নবজাতক ও বড় সন্তান বড় হতে থাকলে, একটা সময় তাদের মধ্যে শত্রুতা কিংবা বৈরী মনোভাব তৈরি হয়। শিশুর যোগাযোগ এবং শিশুর স্পর্শ করার ইচ্ছাকে অস্বীকার করা ভাইবোনদের প্রতিদ্বন্দ্বিতাকে লালন করে। এ বিষয়ে সতর্কতা কাম্য।

শিশুর সঙ্গে খেলা : যখন নবজাতক শিশু জেগে থাকে, খাওয়ানো হয় এবং শান্ত মেজাজে থাকে- তখন বড় বাচ্চাকে তার সঙ্গে খেলার সুযোগ করে দেওয়া। এই খেলাধুলার সময়টা হয়তো খুব বেশিক্ষণ হয় না, কিন্তু এটা বড় বাচ্চার মনে দারুণ প্রভাব সৃষ্টি করে। সে বুঝে, তাকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে, সে যেহেতু বড়, তাই তারও কিছু দায়িত্ব আছে। এর ফলে বড়-ছোট বাচ্চার প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ মনোভাব কমে আসে। এই ছোট ছোট কাজের চর্চাকে যদি গুরুত্ব সহকারে না দেখা হয়, তাহলে এই সন্তানেরা বড় হয়ে ‘একে অপরকে ঘৃণা করে।’

সব সন্তানকে সমান চোখে দেখা : ভাইবোনের সম্পর্কগুলো সাধারণত পিতামাতা এবং সন্তানের সম্পর্ককে ছাড়িয়ে যায়। এটি অত্যন্ত উপকারী। এক্ষেত্রে সব বাচ্চাকে সমানভাবে দেখা। সম্বোধন, আদর-যতœ ইত্যাদি থেকে শুরু করে সবার সঙ্গে সমান আচরণ করা। একজনকে অপরজনের সঙ্গে তুলনা করে আঘাত না দেওয়া। একাধিক বাচ্চার বৈচিত্র্য তাদের সম্পর্ককে শক্তিশালী করার উপায় হিসেবে ব্যবহার করা উচিত, তাদের বিভক্ত করার জন্য নয়।

ভাইবোনের প্রতিদ্বন্দ্বিতার সাধারণ বহিঃপ্রকাশগুলোর একটি হলো শিশুরা বিশ্বাস করে পিতামাতারা অন্য সন্তানের চেয়ে একজন সন্তানকে বেশি পছন্দ করেন, বেশি ভালোবাসেন। কারণ প্রায়শই পিতামাতারা শিশুদের মধ্যে এক সন্তানের সঙ্গে অন্য সন্তানের সঙ্গে তুলনা করেন। এতে করে তাদের একে অপরের প্রতি নেতিবাচক ভাবনা তৈরি হয়। এমন মনোভাব বাবা-মার জন্য এড়িয়ে চলা জরুরি। এর পরিবর্তে সন্তানদের তাদের ব্যক্তিগত শক্তি এবং দুর্বলতাগুলো চিনতে সাহায্য করুন, তাদের দেখান- কীভাবে তারা একে অপরের পরিপূরক হতে পারে।

যদি তারা একে অপরের কিছু বৈশিষ্ট্য এবং অভ্যাস বিরক্তিকর বলে প্রকাশ করে, তাহলে মনে করিয়ে দিন, তারা একে অপরকে কীভাবে সাহায্য এবং একসঙ্গে ভালো কাজ করতে পারে। সব

সন্তানকে এক রকম কাজে ব্যস্ত করে, প্রতিযোগিতার মনোভাব তৈরি করা কাম্য নয়, বরং বাড়িতে শিশুদের চাপমুক্ত উপায়ে বেড়ে উঠতে দেওয়া উচিত।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com