বেঁচে যাওয়া সিলেটের বেলালের মুখে নৌকাডুবির ভয়াবহ বর্ণণা

বেঁচে যাওয়া সিলেটের বেলালের মুখে নৌকাডুবির ভয়াবহ বর্ণণা

বেঁচে যাওয়া সিলেটের বেলালের মুখে নৌকাডুবির ভয়াবহ বর্ণণা
বেঁচে যাওয়া সিলেটের বেলালের মুখে নৌকাডুবির ভয়াবহ বর্ণণা

জীবন বিপন্ন করছে মানুষ। দালালদের খপ্পরে পড়ে চরম বিপদ জেনেও বহু দেশ ঘুরে ইউরোপে যাওয়ার পথে পা বাড়াচ্ছেন অনেকেই। সাগর পথে নৌকাযুগে ইউরোপের দেশে প্রবেশের সময় প্রায়ই ঘটছে ভয়াবহ দুর্ঘটনা, প্রাণ হারাচ্ছে মানুষ।

গত বৃহস্পতিবার রাতে ইতালি যাওয়ার উদ্দেশ্যে লিবিয়ার উত্তরপশ্চিমাঞ্চলীয় উপকূলের জুয়ারা শহর থেকে প্রায় ৭৫ জন অভিবাসী নিয়ে রওনা দেয় বড় একটি নৌকা। তিউনিসিয়া উপকূলে ওই নৌকা থেকে অভিবাসীদের আরেকটি ছোট নৌকায় তোলার সময় সেটি ডুবে যায়। জেলেদের কাছ থেকে তথ্য পেয়ে তিউনিস নৌবাহিনী ১৬ জনকে জীবিত উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। তন্মধ্যে ১৪ জন বাংলাদেশি। নৌকাটিতে সবমিলিয়ে ৫১ বাংলাদেশি ছিলেন বলে জানিয়েছে রেডক্রিসেন্ট।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন আজ জানিয়েছেন, নিহতদের মধ্যে ৩০-৩৫ জন বাংলাদেশি রয়েছেন।

বেঁচে যাওয়া ১৪ বাংলাদেশির একজন সিলেটের বেলাল আহমদ। সাগরের হিমশীতল পানিতে ভাসতে ভাসতে যখন মৃত্যুর প্রতীক্ষা করছিলেন তারা, তখনই মহান সৃষ্টিকর্তা যেন সহায় হন তাদের প্রতি। ত্রাণকর্তা হয়ে জেলেদের নৌকা নিয়ে এগিয়ে আসে তিউনিস বাহিনী। বেলাল বেঁচে গেলেও চোখের সামনে দুই নিকটাত্মীয়কে সাগরে তলিয়ে যেতে দেখেছেন তিনি।

উদ্ধার হওয়ার পর ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি’র সাথে কথা বলেছেন বেলাল আহমদ। কান্নাজড়িত কণ্ঠে বর্ণণা দিয়েছেন ভয়াবহ অভিজ্ঞতার।

৩০ বছর বয়সী বেলাল এএফপিকে জানান, ইউরোপে যাওয়ার স্বপ্নে প্রায় ছয় মাস আগে ঘর ছাড়েন তিনি। এ জন্য জমি বিক্রি করে পাঁচ লাখ ৯০ হাজার টাকা তুলে দেন দালালের হাতে। প্রথমে বাংলাদেশ থেকে বিমানযোগে দুবাইয়ে যান তিনি। সেখান থেকে আরেকটি ফ্লাইটে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে। এরপর ফের বিমানযোগে তিনিসহ কয়েকজনকে লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলিতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে আরো ৮০ জন বাংলাদেশির সাথে বিলালের দেখা হয়। তাদের সবাইকে পশ্চিম লিবিয়ার একটি কক্ষে গাদাগাদি করে রাখা হয়।

ওই অভিজ্ঞতার বর্ণণা দিতে গিয়ে বেলাল এএফপিকে বলেন, ‘একটি কক্ষে আমাদেরকে আটকে রাখা হয়। সেখানে মাত্র একটি টয়লেট ছিল, গোসল করতে পারতাম না। মাত্র একবেলা খাবার দেয়া হতো, কখনো কখনো কিছ্ইু জুটতো না। খাবারের জন্য আমরা কাঁদতাম। ভেবেছিলাম সেখানেই মারা যাবো।’

দীর্ঘদিন পশ্চিম লিবিয়ার ওই কক্ষে আটকে থাকার পর শেষপর্যন্ত গেল বৃহস্পতিবার বেলালসহ ৭৫ জনকে নিয়ে ইতালি যাওয়ার উদ্দেশ্যে নৌকায় তোলা হয়। কিন্তু স্বপ্নের ইতালি যাওয়ার আগেই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে।

নৌকাডুবির ঘটনার বর্ণণায় বেলাল বলেন, ‘আমার চোখের সামনে দুই নিকটাত্মীয়কে সাগরে তলিয়ে যেতে দেখেছি। সাগরের হিমশীতল পানিতে মনে হচ্ছিল আমিও তলিয়ে যাবো। আল্লাহ ঠিক তখনই আমাদের কাছে জেলেদের পাঠান।’

জেলেরা যদি তাদেরকে সাগরে ভাসতে দেখে তিউনিস নৌবাহিনীকে খবর না দিত, তবে হয়তো অন্যদের মতো বেলালও তলিয়ে যেতেন গভীর সাগরের তলদেশে।

বার্তা সংস্থা এএফপি বেলালের বাড়ি সিলেটে উল্লেখ করলেও, সিলেটের ঠিক কোন উপজেলায় তার বাড়ি, তা উল্লেখ করেনি। তবে সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ ও গোলাপগঞ্জ উপজেলার অন্তত ছয়জন ওই নৌকাডুবিতে নিহত হয়েছেন। নিখোঁজ রয়েছেন আরো কয়েকজন। ধারণা করা যায়, বেলালও ফেঞ্চুগঞ্জ অথবা গোলাপগঞ্জের বাসিন্দা হতে পারেন।

বেলালসহ উদ্ধারকৃত অন্যদের তিউনিসিয়ার জারজিস শহরের একটি হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com