সংবাদ শিরোনাম :
হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে ধর্ষনের অভিযোগে দুই যুবক আটক বিশ্বনাথে ডাকাতের সঙ্গে গোলাগুলি, ৫ পুলিশ গুলিবিদ্ধ হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে বিশেষ অভিযানে পলাতক আসামী সবুজ গ্রেফতার স্কুলছাত্রীকে বিবস্ত্র করে ধর্ষণের চেষ্টা, পুলিশের এএসআই ক্লোজড যে শহরে মসজিদ নিষিদ্ধ, মসজিদ নির্মাণ করতে চাইলেই দিতে হবে প্রাণ! লাগেজ নিচ্ছেন স্ত্রী, ক্র্যাচে ভর দিয়ে হাঁটছেন মাহমুদউল্লাহ! সাতক্ষীরায় পুলিশ কনস্টেবল নিয়োগে ১১ লাখ টাকা লেনদেনের সময় আটক ২ ‘রেললাইন ও সেতুগুলো ব্রিটিশ আমলের হওয়ায় ঝুঁকিপূর্ণ’- রেলমন্ত্রী ‘নির্বাচনে আওয়ামী লীগের হয়েই খেলেছেন ড. কামাল’- নাসিম ‘সাম্প্রদায়িক শক্তি বড় ধরনের হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে’
বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী

বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী

বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী
বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী

লোকালয় ডেস্কঃ আজ ১০ ডিসেম্বর। বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী। বিজয়ের উষালগ্নের মাত্র ছয় দিন আগে ১৯৭১-এর এই দিনে খুলনার রূপসা নদীতে রণতরী পলাশে যুদ্ধরত অবস্থায় পাক হানাদার বাহিনীর জঙ্গি বিমান থেকে বর্ষিত গোলার আঘাতে শহীদ হন বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন।

বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন ১৯৩৪ সালের ২ ফেব্রুয়ারি নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার বাঘপাঁচড়া (বর্তমান রুহুল আমিন নগর) গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। বাবা মোহাম্মদ আজহার পাটোয়ারী ছিলেন মোটামুটি সচ্ছল গৃহস্থ এবং মা জোলেখা খাতুন ছিলেন গৃহিণী। ছয় ভাইবোনের মধ্যে তিনি ছিলেন বড়। রুহুল আমিন বাঘপাঁচড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়াশোনা শেষ করে আমিষাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হন। এখান থেকে এসএসসি পাস করে ১৯৫৩ সালে জুনিয়র মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে পাকিস্তান নৌবাহিনীতে যোগদান করেন।

১৯৫৮ সালে তিনি সফলভাবে পেশাগত প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করেন এবং ১৯৬৫ সালে মেকানিশিয়ান কোর্সের জন্য নির্বাচিত হন। সফলভাবে কোর্স সমাপনান্তে তিনি ইঞ্জিনরুম আর্টিফিসার পদে নিযুক্ত হন। ১৯৬৮ সালে তিনি পিএনএস বখতিয়ার নৌঘাঁটি, চট্টগ্রামে বদলি হন।

১৯৭১ সালের এপ্রিলে ঘাঁটি থেকে পালিয়ে যান। বাড়িতে গিয়ে ছাত্র, যুবক ও সামরিক-আধাসামরিক বাহিনীর লোকদের মুক্তিযুদ্ধের প্রশিক্ষণ দেন। এর কিছুদিন পর ভারতের ত্রিপুরা সীমান্ত অতিক্রম করে আগরতলা সেক্টর প্রধান কোয়ার্টারে যান এবং সেখানে মেজর শফিউল্লাহর অধীনে ২ নম্বর সেক্টরে মুক্তিযুদ্ধে যোগদান করেন। সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ২ নম্বর সেক্টরের অধীনে থেকে বিভিন্ন স্থলযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন।

১৯৭১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে বাংলাদেশ নৌবাহিনী গঠনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। এ উদ্দেশ্যে নৌবাহিনীর সদস্যদের যারা বিভিন্ন সেক্টর ও সাব-সেক্টরে থেকে মুক্তিযুদ্ধ করছিলেন তাদেরকে সেপ্টেম্বর মাসে একত্রিত করা হয় আগরতলায় এবং গঠন করা হয় ১০ নম্বর সেক্টর। ইঞ্জিনরুম আর্টিফিসার মোহাম্মদ রুহুল আমিন নৌবাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে আগরতলায় একত্রিত হয়ে কলকাতায় আসেন এবং যোগ দেন ১০ নম্বর নৌ-সেক্টরে। পরবর্তীকালে অবস্থার প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের নিজস্ব একটি নৌবাহিনী তৈরির পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। ভারতীয় নৌবাহিনীর ক্যাপ্টেন মণীন্দ্রনাথ সামন্তের সার্বিক তত্ত্বাবধানে বিভিন্ন সেক্টর ও সাব-সেক্টর থেকে নৌবাহিনীর সদস্যদের একত্রিত করার ব্যবস্থা করা হয়। আর এ উদ্যোগের ফলে বাংলাদেশ নৌবাহিনী গঠিত হলে কলকাতায় চলে আসেন। ভারত সরকার বাংলাদেশ সশস্ত্রবাহিনীকে দুটি গানবোট উপহার দেয়। এগুলোকে কলকাতার গার্ডেনরিচ নৌ ওয়ার্কশপে দুটি বাফার গান ও মাইন পড লাগিয়ে গানবোটে রূপান্তরিত করা হয়। গানবোট দুটির নামকরণ করা হয় ‘পদ্মা’ ও ‘পলাশ’। রুহুল আমিন নিয়োগ পান ‘পলাশের’ ইঞ্জিন রুম আর্টিফিসার হিসেবে।

৬ ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে যশোর সেনানিবাসের পতন ঘটে। পাকিস্তানি বাহিনী পিছু হটতে থাকে। সে সময় পাকিস্তানি বাহিনীর নিয়ন্ত্রিত খুলনাস্থ নৌঘাট দখল করার পরিকল্পনা নিয়ে ভারতীয় গানবোট পানভেলের সঙ্গে যুক্ত হয়ে ১০ ডিসেম্বর মংলা বন্দরে পৌঁছায়। সেখানে পাকিস্তানি সেনা ও নৌবাহিনী আত্মসমর্পণ করে। ‘পলাশ’ ও ‘পদ্মা’ মংলা বন্দর হয়ে খুলনার দিকে রওয়ানা দেয়। গানবোট ‘পানভেল’ সামনে আর পেছনে ‘পলাশ’ ও ‘পদ্মা’। দুপুর ১২টার দিকে গানবোটগুলো খুলনা শিপইয়ার্ডের কাছে এলে অনেক উঁচুতে তিনটি জঙ্গি বিমানকে উড়তে দেখা যায়। শত্রুর বিমান অনুধাবন করে পদ্মা ও পলাশ থেকে গুলি করার অনুমতি চাওয়া হয়। কিন্তু অভিযানের সর্বাধিনায়ক ক্যাপ্টেন মণীন্দ্রনাথ ভারতীয় বিমান মনে করে গুলিবর্ষণ থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেন। এর কিছুক্ষণ পরে বিমানগুলো অপ্রত্যাশিতভাবে নিচে নেমে আসে এবং আচমকা গুলিবর্ষণ শুরু করে। প্রথম গোলা এসে পড়ে পদ্মায়। পরবর্তীতে পলাশে। গোলা সরাসরি ইঞ্জিন রুমে আঘাত করে ইঞ্জিন বিধ্বস্ত করে। হতাহত হয় অনেক নাবিক। ‘পদ্মা’র পরিণতিতে পলাশের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কমান্ডার রায় চৌধুরী নাবিকদের জাহাজ ত্যাগের নির্দেশ দেন। রুহুল আমিন এই আদেশে ক্ষিপ্ত হন। তিনি উপস্থিত সবাইকে যুদ্ধ বন্ধ না করার আহ্বান করেন। কামানের ক্রুদের বিমানের দিকে গুলি ছুড়তে বলে ইঞ্জিন রুমে ফিরে আসেন। কিন্তু অধিনায়কের আদেশ অমান্য করে বিমানগুলোকে চ্যালেঞ্জ করা হয়নি। বিমানগুলো উপর্যুপরি বোমাবর্ষণ করে পলাশের ইঞ্জিনরুম ধ্বংস করে দেয়। আহত হন তিনি। কিন্তু অসীম সাহসী রুহুল আমিন তারপরও চেষ্টা চালিয়ে যান ‘পলাশ’কে বাঁচানোর। তবে ইঞ্জিন বিকল হয়ে আগুন ধরে যায় এবং গোলার আঘাতে রুহুল আমিনের ডান হাতটি সম্পূর্ণ উড়ে যায়। অবশেষে পলাশের ধ্বংসাবশেষ পিছে ফেলেই আহত রুহুল আমিন ঝাঁপিয়ে পড়েন রূপসা নদীতে। প্রাণশক্তিতে ভরপুর এ যোদ্ধা একসময় পাড়েও এসে পৌঁছান। কিন্তু ততক্ষণে সেখানে রাজাকাররা আহত এই বীর সন্তানকে বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করে রূপসার পাড়েই। তার বিকৃত মৃতদেহ বেশ কিছুদিন সেখানে পড়েছিল অযত্ন, অবহেলায়।

পরে স্থানীয় জনসাধারণ খুলনার বাগমারা গ্রামে রূপসা নদীর পাড়ে তাকে দাফন করে এবং সেখান একটি স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করা হয়।

তার স্মৃতি রক্ষায় ২০০৮ সালের ১৩ মার্চ নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার রুহুল আমিন নগরে স্থাপন করা হয় বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মো. রুহুল আমিন গ্রন্থাগার ও স্মৃতি জাদুঘর। এই স্মৃতি কমপ্লেক্সে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক বিভিন্ন আলোকচিত্র, পোস্টার, সাময়িকী আর পত্র-পত্রিকা রয়েছে। মুক্তিযুদ্ধসহ নানা বিষয়ের বই এবং বিভিন্ন সময়ে রুহুল আমিনের পরিবারকে দেওয়া সরকারি-বেসরকারি পদক রয়েছে এই স্মৃতি কমপ্লেক্সে।

নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিনটি পালন করবে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ মো. রুহুল আমিন গ্রন্থাগার ও স্মৃতি জাদুঘর। এ উপলক্ষে আলোচনা সভা, মিলাদ মাহফিল এবং দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com