বিয়ের মাধ্যমে নারীর সম্পর্কও হয়ে গেল, ভালো লাগছে খুব: সৃজিত

বিয়ের মাধ্যমে নারীর সম্পর্কও হয়ে গেল, ভালো লাগছে খুব: সৃজিত

বিয়ের মাধ্যমে নারীর সম্পর্কও হয়ে গেল, ভালো লাগছে খুব: সৃজিত
বিয়ের মাধ্যমে নারীর সম্পর্কও হয়ে গেল, ভালো লাগছে খুব: সৃজিত

বিনোদন ডেস্ক- কলকাতার পরিচালক সৃজিত মুখার্জির সঙ্গে প্রেমের গুঞ্জন কয়েক মাস ধরেই শোনা যাচ্ছিল। সৃজিতের মিউজিক ভিডিওর মডেল হন মিথিলা। এছাড়া কলকাতা ও কলকাতার বাইরে একসঙ্গে তাদের ছবিই শুরুতে ইঙ্গিত দেয় তাদের সম্পর্কের বিষয়টির।

গণমাধ্যমে মিথিলা বলেনও ‘জাস্ট ফ্রেন্ড’ তারা। কিন্তু স্বাভাবিকভাবেই যা হয়, সম্পর্কের খবরটি গুপ্তধনের মতো লুকিয়ে রাখতে চান তারকারা। আর সেই গুঞ্জনই অনেক সময় সত্যি হয়। যেমন আবার হলো মিথিলার বেলায়।

গতকাল বিয়ের কাজটা শেষ করেন মিথিলা ও সৃজিত। সন্ধ্যায় রেজিস্ট্রি করে একে অন্যের সঙ্গে সারাজীবন কাটানোর জন্য অঙ্গীকারাবদ্ধ হয়েছেন তারা।

মিথিলার বাবা-মা, পরিবারের লোকজন যান বাংলাদেশ থেকে। সৃজিতের মা, দিদি উপিস্থিত থেকেছেন বিয়েতে। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সৃজিতের টলিউডের পরিবার রুদ্রনীল, শ্রীজাত, ইন্দ্রদীপ, যিশু, নীলাঞ্জনা, অনুপম ও পিয়া।

বিয়ের পর গণমাধ্যমের মুখোমুখি হন কলকাতার জনপ্রিয় এই নির্মাতা। তিনি বলেন, ‘‘বাংলাদেশের সাথে নাড়ীর সম্পর্ক তো আগেই ছিল। কারণ আমার আদি বাড়ি বাংলাদেশের বিক্রমপুর ও ময়মনসিংহে- মায়ের দিক ও বাবার দিক দিয়ে। এখন বিয়ের মাধ্যমে নারীর সম্পর্কও হয়ে গেল। ‘ড়’ টা (নাড়ী) এখন ‘র’ (নারী) হয়ে গেল। ভালো লাগছে খুব।’’

সৃজিত মুখার্জী বলেন, ‘আমি এটা নিয়ে আলাদা করে কিছু ভাবিনি। সত্যি বলতে সেখানে এত বন্ধু আছেন, আমি যখনই ওখানে যাই এতটাই আপন করে নেন মানুষ, ওটা যে (বাংলাদেশ) আলাদা দেশ- এটা কখনই আমার মধ্যে প্রভাব ফেলেনি। এবং ভাষাও এক। আমাদের বাড়িতে ছোটবেলা থেকেই বাঙাল ভাষায় লোকে কথা বলে, যদিও আমি মোহনবাগানের সাপোর্টার। সব কিছু মিলে ওই পরিবেশেই বড় হয়েছি।’

‘ভাষা, খাওয়া থেকে শুরু করে শুঁটকি মাছের গন্ধ থেকে শুরু করে সব কিছুর সাথেই ছোটবেলা থেকে পরিচিত। বাংলাদেশ আলাদা দেশ এটা কখনো মনে হয়নি,’ বলেন কলকাতার জনপ্রিয় এই নির্মাতা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com